• রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৭:৪০ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জে মানববন্ধন আজ ভৈরব পৌরসভা নির্বাচন, কে হচ্ছেন পৌর পিতা কিশোরগঞ্জে ইয়াবাসহ র‌্যাবের হাতে মাদক ব্যবসায়ী আটক স্যাটেলাইট যুগে প্রতিটি ঘরই এখন প্রেক্ষাগৃহ, কিশোরগঞ্জের ১৯টি হলই বন্ধ ৭টি চালু বন্ধ থাকার মতই ভৈরবে অটোচালক খুনের ৫ মাস পর খুনি গ্রেফতার, স্বীকারোক্তি লাগামহীন অপরাধীরা, ভৈরবে দুই মাসে তিন হত্যাকাণ্ড জ্ঞান ফেরেনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নারীর ভৈরবে সাবেক রাষ্ট্রপতির এপিএস শাখাওয়াত উল্লাহ করোনায় আক্রান্ত ৩৫ কেন্দ্রের মধ্যে ৩০ কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ, আগামীকাল ভৈরব পৌরসভা নির্বাচন কিশোরগঞ্জে প্রথমবার জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস উদযাপন কিশোরগঞ্জে করোনামুক্ত হলো বাজিতপুর উপজেলা নতুন রোগি শনাক্ত ৩ জন

পাপ কাজের দুনিয়াবী ক্ষতি : সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

পাপ কাজের দুনিয়াবী ক্ষতি

সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

পূর্বে প্রকাশিতের পর…
গত পর্বে আমরা এমন কিছু পাপ কাজের কথা জেনেছিলাম যেইগুলো কেউ করলে এই দুনিয়াতেই তাকে বিভিন্ন ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। আর এই পর্বেও আমরা এই জাতীয় আরো কতগুলো পাপ কাজের কথা জানব ইন্শাআল্লাহ। আর তা হলো:
(৯) হারাম খেলে :- কেউ যদি হারাম খায় তাহলে আল্লাহ রব্বুল আলামীন সেই মানুষটার দোআ কবুল করবেন না। আবূ হুরায়রা (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, নিশ্চয়ই আল্লাহ পবিত্র, তিনি পবিত্র ছাড়া গ্রহণ করেন না। (এই ক্ষেত্রে) আল্লাহ রাসূলগণকে যা আদেশ করেছেন, মুমিনগণকেও সেই আদেশই করেছেন। অতঃপর রাসূল (সা.) উল্লেখ করলেন, এক ব্যক্তি দূর-দূরান্তের সফর করছে, তার মাথার চুল এলোমেলো, শরীরে ধূলা-বালি। এমতাবস্থায় ঐ ব্যক্তি উভয় হাত আসমানের দিকে উঠিয়ে কাতর স্বরে হে প্রভু! হে প্রভু! বলে ডাকছে। কিন্তু তার খাদ্য হারাম, তার পানীয় হারাম, তার পোষাক হারাম, তার জীবিকা নির্বাহ হারাম, কিভাবে তার দোআ কবুল হবে? (মুসলিম, মিশকাত: ২৭৬০)
(১০) নিজ পিতা ব্যতীত অন্যকে পিতা দাবী করলে :- নিজ পিতাকে ছাড়া অন্যকে পিতা হিসাবে স্বীকার করলে ফরয এবং নফল কোন ইবাদতই কবূল হবেনা। হাদীসে এসেছে, যেই ব্যক্তি নিজের পিতাকে ছাড়া অন্যকে পিতা বলে স্বীকার করেছে অথবা যেই ক্রীতদাস নিজের মালিক ছাড়া অন্যকে মালিক বলে গ্রহণ করেছে তার উপর আল্লাহর, ফেরেশতাদের এবং সকল মানুষদের অভিশাপ। তার ফরয বা নফল ইবাদত কোনটাই কবুল হবে না। (তারগীব, মিশকাত: ২৭২৮)
(১১) প্রবৃত্তির অনুসারী হলে, লোভ-লালসার গোলাম হলে এবং অহংকার করলে :- আবূ হুরায়রা (রা.) হতে বর্ণিত, রাসূল (সা.) বলেছেন, তিনটি জিনিস মুক্তি দানকারী এবং তিনটি জিনিস ধ্বংস সাধনকারী। মুক্তিদানকারী জিনিসগুলো হল, প্রকাশ্যে ও গোপনে আল্লাহকে ভয় করা। খুশী ও অখুশী উভয় অবস্থায় সত্য কথা বলা। ধনী ও দরিদ্র উভয় অবস্থায় মধ্যপন্থা অবলম্বন করা। আর ধ্বংস সাধনকারী জিনিসগুলো হল, প্রবৃত্তির অনুসারী হওয়া। লোভ-লালসার দাস হওয়া বা কৃপণ হওয়া। কোন ব্যক্তির আত্মঅহমিকায় লিপ্ত হওয়া আর এটাই হল সবচেয়ে জঘন্য। (শুআবুল ঈমান, মিশকাত: ৫১২২)
(১২) অধিক হাসলে :- কেননা অধিক হাসলে অন্তর মরে যায়। আর মরা অন্তর সহজে আল্লাহ অভিমুখী হতে পারে না। আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, কে এই কয়েকটি বাক্য (বিধান) আমার নিকট হতে গ্রহণ করবে? অতঃপর নিজে সেই অনুযায়ী আমল করবে অথবা এমন ব্যক্তিকে শিখিয়ে দিবে, যে তার উপর আমল করবে। আমি বললাম, আমি প্রস্তুত আছি হে আল্লাহর রাসূল (সা.)! তারপর তিনি আমার হাত ধরলেন এবং পাঁচটি গণনা করালেন। তিনি বললেন, (১) আল্লাহ যা হারাম করেছেন তা হতে বেঁচে থাক, তাতে তুমি হবে উত্তম ইবাদতকারী। (২) আল্লাহ তোমার কিসমত যা বন্টন করেছেন তাতেই সন্তুষ্ট থাকবে, তাতে তুমি হবে সর্বাপেক্ষা ধনবান। (৩) তোমার প্রতিবেশীর সাথে ভাল ব্যবহার করবে, তাতে তুমি হবে পূর্ণ ঈমানদার। (৪) নিজের জন্য যা পছন্দ কর মানুষের জন্যও তা পছন্দ করবে, তখন তুমি হবে পূর্ণ মুসলমান। (৫) অধিক হাসবে না, কেননা অধিক হাসি অন্তরকে মেরে ফেলে। (আহমদ, তিরমিযি, মিশকাত: ৫১৭১)
(১৩) আল্লাহর স্মরণ থেকে গাফেল থাকলে :- মহান আল্লাহ বলেন, আর যে আমার স্মরণ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে, তার জীবিকা হবে সংকীর্ণ আর তাকে কিয়ামতের দিন উত্থিত করব অন্ধ অবস্থায়। (সূরা ত্বহা: ১২৪)
(১৪) অশ্লীলতা ছড়িয়ে পড়লে।
(১৫) ওজন ও পরিমাপে কারচুপি করলে।
(১৬) যাকাত আদায় না করলে।
(১৭) আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের অঙ্গীকার ভঙ্গ করলে।
(১৮) আল্লাহর কিতাব মোতাবেক বিচার-ফায়সালা না করলে।
আব্দুল্লাহ বিন ওমর (রা.) হতে বর্ণিত, রাসূল (সা.) বলেছেন, যখন কোন জাতির মধ্যে প্রকাশ্যে অশ্লীলতা ছড়িয়ে পড়ে তখন সেখানে মহামারি আকারে প্লেগরোগের প্রাদুর্ভাব হয়। তাছাড়া এমন সব ব্যাধির উদ্ভব হয়, যা পূর্বেকার লোকদের মধ্যে কখনো দেখা যায়নি। যখন কোন জাতি ওজন ও পরিমাপে কারচুপি করে তখন তাদের উপর নেমে আসে দুর্ভিক্ষ, কঠিন বিপদ-মুসীবত। যখন কোন জাতি যাকাত আদায় করে না তখন আসমান থেকে বৃষ্টি বর্ষণ বন্ধ করে দেয়া হয়। যদি ভু-পৃষ্ঠে চতুষ্পদ জন্তু ও নির্বাক প্রাণী না থাকতো তাহলে আর কখনো বৃষ্টিপাত হতো না। যখন কোন জাতি আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের অঙ্গীকার ভঙ্গ করে, তখন আল্লাহ তাদের উপর তাদের বিজাতীয় দুশমনকে ক্ষমতাসীন করেন এবং সে তাদের সহায়-সম্পদ সবকিছু কেড়ে নেয়। যখন তোমাদের শাসকবর্গ আল্লাহর কিতাব মোতাবেক মীমাংসা করে না এবং আল্লাহর নাযীলকৃত বিধানকে গ্রহণ করে না, তখন আল্লাহ তাদের পরস্পরের মধ্যে যুদ্ধ বাধিয়ে দেন। (ইবনে মাজাহ: ৪০১৯)
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!