• শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:০৯ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
পাকুন্দিয়ায় লাল তীর আলু উৎপাদনে রেকর্ড হোসেনপুরে বারি উদ্ভাবিত উন্নত জাতের আলুর উপর মাঠ দিবস ভৈরবে ভোটারদের প্রশিক্ষণ দিতে “মক ভোটিং” কিশোরগঞ্জে র‌্যাবের হাতে ইলেক্ট্রনিক সরঞ্জামসহ দুই পর্ণোগ্রাফ ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে নতুন ১০ জনের করোনা শনাক্ত, কুলিয়ারচর দু’মাস শূন্য থাকার পর একজন শনাক্ত কিশোরগঞ্জে গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির সম্মেলনে নতুন কমিটি পাকুন্দিয়ায় কালাজ্বর নির্মূল কর্মসূচির অবহিতকরণ সভা ভৈরব পৌরসভার নির্বাচনে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের ইভিএম প্রশিক্ষণ ভৈরবে ছিনতাইকারীর হামলায় শিশু সন্তানকে ট্রেনে রেখেই ছিঁটকে পড়লেন মা নির্বাচনকে ঘিরে ভৈরব পৌর এলাকা এখন উৎসবের নগরী

পাপ কাজের দুনিয়াবী ক্ষতি : সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

পাপ কাজের দুনিয়াবী ক্ষতি

সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

মহান আল্লাহ বলেন, যে ব্যক্তি কোন কুকর্ম বা মন্দ কাজ করবে, সে তার বিনিময় প্রাপ্ত হবে। (সূরা নিসা: ১২৩)
অন্যত্র তিনি বলেন, মানুষের কৃতকর্মের কারণে জলে এবং স্থলে বিপর্যয় (যার দ্বারা মনুষ্য সমাজে সুখ-শান্তি ও নিরাপত্তা বিনষ্ট হয় এবং মানুষের শান্তিময় জীবন-যাত্রা ব্যাহত হয়) দেখা দিয়েছে যাতে তিনি তাদেরকে তাদের কোন কোন কাজের শাস্তি আস্বাদন করান, যাতে তারা (অসৎ পথ হতে) ফিরে আসে। (সূরা রুম: ৪১)
অন্যত্র এসেছে, গুরুতর (পরলৌকিক বৃহত্তম) শাস্তির আগে আমি তাদেরকে অবশ্যই অবশ্যই লঘু শাস্তি (ইহলৌকিক বিভিন্ন রোগ-ব্যাধি বা বিপদাপদ) আস্বাদন করাবো যাতে তারা (অনুশোচনা নিয়ে) ফিরে আসে। (সূরা সাজদাহ: ২১)
উল্লেখিত আয়াতগুলোর মাধ্যমে বুঝা যায় যে, মন্দ কাজ বা পাপ কাজের শাস্তি মানুষকে পেতেই হবে। পাশাপাশি এটাও বুঝা যায় যে, পাপের শাস্তি যে শুধু পরকালে পাবে এমনটি নয়, বরং কোন কোন পাপের কিছু শাস্তি দুনিয়াতেও মানুষকে পেতে হয়। যেমন- ব্যক্তিগত জীবনে কঠিন রোগ, মারাত্মক ক্ষতি, নিজের প্রিয়তম লোকদের হারানো, ভয়াবহ দুর্ঘটনা, ব্যর্থতা, একে অপরের উপর অত্যাচার, রক্তপাত, বিভিন্ন ধরণের ভয়-ভীতি, নিরাপত্তাহীনতা, ছিনতাই-ডাকাতি, অভাব-অনটন, বিভিন্ন ধরণের অশান্তি, দুর্ভিক্ষ, মহামারী, ভূমিকম্প, বন্যা, অগ্নিকাণ্ড, পানিতে নিমজ্জিত হওয়া, সব কিছু থেকে বরকত উঠে যাওয়া, উপকারী বস্তুর উপকার কম এবং ক্ষতি বেশী হয়ে যাওয়া ইত্যাদি দুনিয়াবী শাস্তি মানুষ পাপ কাজের কারণে এই পৃথিবীতে পেয়ে থাকে। তবে কারো যদি শুধু দুনিয়া হাসিল করা উদ্দেশ্য হয় তাহলে আল্লাহ তায়ালা তাকে দুনিয়াতেই তার কর্মের পূর্ণ প্রতিদান দিয়ে দিবেন। কিন্তু আখিরাতে তার জন্য জাহান্নাম ছাড়া আর কিছুই থাকবে না। এই মর্মে মহান আল্লাহ বলেন, যারা এ দুনিয়ার জীবন আর তার শোভা সৌন্দর্য কামনা করে, তাদেরকে এখানে তাদের কর্মের পুরোপুরি ফল আমি দিয়ে দেই, আর তাতে তাদের প্রতি কোন কমতি করা হয় না। কিন্তু আখেরাতে তাদের জন্য আগুন ছাড়া কিছুই নাই, এখানে যা কিছু তারা করেছে তা নিষ্ফল হয়ে গেছে, আর তাদের যাবতীয় কাজকর্ম ব্যর্থ হয়ে গেছে। (সূরা হুদ: ১৫-১৬)
মু’আয ইবনে জাবাল (রা.) হতে বর্ণিত, রাসূল (সা.) বলেছেন, ইসলামের সূচনা বা রাজত্ব শুরু হয়েছে নবী ও দয়া দ্বারা। তারপর রাজত্ব আসবে খেলাফত ও রহমত দ্বারা, তারপর আসবে অত্যাচারী শাসকদের যুগ। তারপর আসবে কঠোরতা, উচ্ছৃংখলতা, বিপর্যয় সৃষ্টিকারীর যুগ। এসব অত্যাচারী শাসকেরা রেশমী কাপড় পরিধান করা, অবৈধভাবে নারীদের লজ্জাস্থান উপভোগ করা এবং মদ পান করাকে হালাল মনে করবে। এরপরও তাদের প্রচুর রুযী দেয়া হবে। দুনিয়াবী যে কোন কাজে তাদের সাহায্য করা হবে। অবশেষে এ পাপের মধ্যে লিপ্ত থেকে আল্লাহর সম্মুখে উপস্থিত হবে। (বায়হাক্বী, মিশকাত: ৫১৪৩)
তবে এটাও সত্য যে, একজন ঈমানদারের সমস্ত গোনাহর কারণে বিপদ বা শাস্তি আসে না, বরং কোন কোন গোনাহের কারণেই অল্প কিছু বিপদ আসে। কেননা এই মর্মে মহান আল্লাহ বলেছেন, আল্লাহ যদি মানুষকে তাদের সীমালঙ্ঘনের জন্য পাকড়াও করতেন, তাহলে যমীনের উপর কোন প্রাণীকেই তিনি রেহাই দিতেন না। কিন্তু তিনি একটা নির্দিষ্ট কাল পর্যন্ত তাদেরকে সময় দেন। তাদের সময় এসে গেলে এক মুহুর্তও অগ্র-পশ্চাৎ করা হয় না। (সূরা নাহল: ৬১)
কাজেই সকলেরই উচিত বিপদাপদের সম্মুখীন হলে তওবা করে মহান আল্লাহর দিকে ফিরে আসা এবং গোনাহ বা পাপের কাজগুলো বর্জন করা। আর যে সমস্ত গোনাহ বা পাপের কারণে দুনিয়াতেই বিভিন্ন ধরণের শাস্তির সম্মুখীন হতে হয় তার মধ্য থেকে কিছু পাপ কাজের কথা নিম্নে তুলে ধরা হল:
১। শিরক করলে :-
মহান আল্লাহর সাথে কোন কিছুকে অংশীদার স্থাপন করার নামই হল শিরক। এটি পৃথিবীর সবচেয়ে বড় এবং ক্ষমার অযোগ্য অন্যায়। শিরক করলে জান্নাত হারাম হয়ে যায়। তাছাড়া এই দুনিয়াতে শিরককারীর হৃদয়ে আল্লাহ বিভিন্ন ধরণের ভয় ঢুকিয়ে দেন। আল্লাহ বলেন, অতিসত্বরই আমি কাফিরদের অন্তরে ভয় সঞ্চার করব, কারণ তারা আল্লাহর শরীক গ্রহণ করেছে যার স্বপক্ষে তিনি কোনও সনদ অবতীর্ণ করেননি, তাদের নিবাস হবে জাহান্নাম এবং যালিমদের নিবাস কতই না জঘন্য। (সূরা আলে ইমরান: ১৫১)
উল্লেখিত আয়াতটিতে অন্তরে ভয় সঞ্চার করার অন্যতম কারণ হিসাবে আল্লাহর শরীক গ্রহণ করা তথা শিরক করাকে উল্লেখ করা হয়েছে।
২। ছালাত ছেড়ে দিলে :-
ইসলামের দ্বিতীয় রুকন হলো ছালাত বা নামায। ইসলামী শরীয়তে ছালাতের গুরুত্ব অপরিসীম। কেননা ক্বিয়ামতের দিন সর্বপ্রথম বান্দার কাছ থেকে ছালাতের হিসাবই নেওয়া হবে। আর ছালাত আদায় করার যেমন বহুবিধ উপকার রয়েছে, ঠিক তেমনভাবে ছালাত ছেড়ে দেওয়ার অনেক ক্ষতিও আছে। এর মধ্য থেকে অন্যতম একটি ক্ষতি হল, ছালাত ছেড়ে দিলে বান্দার উপর থেকে আল্লাহর দায়িত্ব উঠে যায়। (সহীহ তারগীব: ৫৬৬) আর কোন বান্দার উপর থেকে আল্লাহর দায়িত্ব উঠে গেলে এই পৃথিবীতে বিভিন্ন ধরণের সমস্যার সম্মুখীন হওয়াটা একেবারেই স্বাভাবিক বিষয়।
৩। দুনিয়ার চিন্তায় বিভোর হয়ে পড়লে :-
রাসূল (সা.) বলেছেন, পার্থিব চিন্তা যাকে মোহগ্রস্ত করবে, আল্লাহ তার কাজকর্মে অস্থিরতা সৃষ্টি করবেন, দরিদ্রতা তার নিত্যসংগী হবে এবং পার্থিব স্বার্থ ততটুকুই লাভ করতে পারবে, যতটুকু তার তাকদীরে লিপিবদ্ধ আছে। আর যার উদ্দেশ্য হবে আখিরাত, আল্লাহ তার সবকিছু সুষ্ঠু করে দিবেন, তার অন্তরকে ঐশ্বর্যমণ্ডিত করবেন এবং দুনিয়া স্বয়ং তার সামনে এসে হাযির হবে। (ইবনে মাজাহ: ৪১০৫)
৪। ইবাদতে নিজেকে নিয়োজিত না রাখলে :-
মহাপবিত্র আল্লাহ বলেন, হে আদম সন্তান! আমার ইবাদতে মগ্ন হও। আমি তোমার অন্তরকে ঐশ্বর্যমণ্ডিত করবো এবং তোমার দরিদ্রতা দূর করবো। আর যদি তা না কর, তবে আমি তোমার হৃদয়কে (দুনিয়ার) ব্যস্ততায় পূর্ণ করে দিব এবং তোমার অভাব মিটাবো না। (ইবনে মাজাহ: ৪১০৭)
উল্লেখিত হাদিসটি থেকে বুঝা যায় যে, আল্লাহর ইবাদত না করলে অভাব-অনটন দূর হবে না।
৫। সুদের সাথে জড়িত হলে :-
সুদের সাথে জড়িত হওয়া মারাত্মক অন্যায় কাজ। কেননা সুদকে মহান আল্লাহ রব্বুল আলামীন হারাম করেছেন। এক দিরহাম সুদ গ্রহণ করা ছত্রিশ বার যিনা করার চেয়েও কঠিন। সুদের পাপের ৭০টি স্তর রয়েছে। তার মধ্যে সবচেয়ে সাধারণ হল নিজের আপন মাকে বিবাহ করার সমপরিমাণ পাপ। এছাড়াও সুদের সাথে জড়িত হলে মানুষের সম্পদ কমে যায়, যদিও বাহ্যিকভাবে বেশী মনে হয়। সুদের ব্যাপারে মহান আল্লাহ বলেন, আল্লাহ সুদকে বিলুপ্ত করেন এবং দান-খয়রাতকে বৃদ্ধি করেন, আল্লাহ অকৃতজ্ঞ পাপীদেরকে ভালবাসেন না। (সূরা বাকারা: ২৭৬)
ইবনে মাসউদ (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) বলেছেন, নিশ্চয়ই সুদ এমন বস্তু যার পরিণাম হলো সংকুচিত হওয়া যদিও তা বৃদ্ধি মনে হয়। (ইবনু মাজাহ, মিশকাত: ২৮২৭)
৬। মদ ও জুয়ার সাথে জড়িত হলে :-
মদ এমন একটি বস্তু যা বিবেককে আচ্ছন্ন করে ফেলে। আর বিবেক আচ্ছন্ন হলে মানুষের হিতাহিত জ্ঞান থাকে না। এই কারণে মদকে সকল অশ্লীল কর্মের মূল বলা হয়েছে। আর জুয়া খেলাও শয়তানী কাজ। জুয়ার মাধ্যমে খুব অল্প সময়েই মানুষ নিঃস্ব হয়ে যেতে পারে। তাছাড়া মদ ও জুয়া এমন ধরণের পাপ যে, এগুলোর কারণে এই পৃথিবীতে পারস্পরিক শত্রুতা ও বিদ্বেষ সৃষ্টি হয়। এই মর্মে মহান আল্লাহ বলেন, হে বিশ্বাসীগণ! মদ, জুয়া আর মূর্তী ও ভাগ্য নির্ধারক তীর ঘৃণিত শয়তানী কাজ, তোমরা তা বর্জন কর, যাতে তোমরা সাফল্যমণ্ডিত হতে পার। মদ আর জুয়ার মাধ্যমে শয়তান তো চায় তোমাদের মাঝে শত্রুতা আর বিদ্বেষ সৃষ্টি করতে, আল্লাহর স্মরণ আর নামায থেকে তোমাদেরকে বাধা দিতে। কাজেই তোমরা কি এসব থেকে বিরত থাকবে না? (সূরা মায়িদাহ: ৯০-৯১)
৭। আল্লাহ স্মরণ থেকে বিমুখ থাকলে :-
অর্থাৎ কুরআনের বিধি-বিধান থেকে মুখ ফিরিয়ে রাখলে, কুরআনের নির্দেশের আনুগত্য থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়ে অন্যদের থেকে হিদায়াত গ্রহণ করলে, আল্লাহ তায়ালা জীবিকা সংকীর্ণ করে দিবেন। এই মর্মে মহান আল্লাহ বলেন, আর যে আমার স্মরণ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিবে, তার জীবিকা হবে সংকীর্ণ আর তাকে ক্বিয়ামতের দিন উত্থিত করব অন্ধ অবস্থায়। (সূরা ত্বহা: ১২৪)
৮। ঘরে ছবি থাকলে :
যেই ঘরে ছবি থাকে সেই ঘরে রহমতের ফেরেশতারা প্রবেশ করেন না। আবূ হুরাইরাহ্ (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, জিবরীল (আ.) আমার নিকট এসে বললেন, গতরাতে আমি আপনার নিকট এসেছিলাম, কিন্তু আপনার অবস্থানরত ঘরের দরজায় একটি পুরুষের প্রতিকৃতি, ঘরের মধ্যে প্রাণীর ছবিযুক্ত একটি সূক্ষ্ম কাপড়ের পর্দা এবং একটি কুকুর আমাকে ভিতরে প্রবেশ করতে বাধা প্রদান করেছে। সুতরাং আপনি দরজার পাশে রাখা প্রতিকৃতিটির মাথা কেটে ফেলার আদেশ করুন, তাহলে সেটা গাছের আকৃতি হয়ে যাবে। আর পর্দাটিও কেটে ফেলতে বলুন আর তা দিয়ে সাধারণতঃ ব্যবহারের জন্য দু’টি গদি বানানো যাবে এবং কুকুরটিকে বের করে দেয়ার নির্দেশ দিন। তারপর রাসূলুল্লাহ (সা.) জিবরীলের পরামর্শ মুতাবিক কাজ করলেন। আর কুকুর ছানাটি হাসান কিংবা হুসাইনের চৌকির নীচে বসা ছিল। যা হোক তিনি আদেশ করলেন এবং সে মুতাবিক এটাকেও বের করে দেয়া হল। (তিরমিজি: ২৮০৬)
উল্লেখিত আলোচনা থেকে দুনিয়াতেও ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয় এমন কিছু পাপের কথা আমরা জানতে পারলাম। আমাদের সকলেরই উচিত উল্লেখিত অন্যায়গুলো থেকে বেঁচে থাকা। আল্লাহ আমাদের তাওফীক দিন। আমীন
প্রচারে: আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!