• মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১১:৩২ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

হাওরাঞ্চলে পর্যটন সম্ভাবনা নিয়ে ৬ জেলার কর্মশালা

হাওরাঞ্চলে পর্যটন সম্ভাবনা
নিয়ে ৬ জেলার কর্মশালা

# মোস্তফা কামাল :-

হাওরাঞ্চলে পর্যটন সম্ভাবনা নিয়ে ৬টি হাওর অধ্যুষিত জেলা কিশোরগঞ্জ, সিলেট, হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও নেত্রকোনার সঙ্গে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়, পর্যটন কর্পোরেশন ও পর্যটন বোর্ড অনলাইন কর্মশালা করেছে। কিশোরগঞ্জের সঙ্গেও আলাদাভাবে পর্যটন সম্ভাবনা নিয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধি, উন্নয়ন পরিকল্পনায় পর্যটনকে সম্পৃক্তকরণ ও পর্যটন মহাপরিকল্পনা প্রণয়নে সহায়তাকরণ বিষয়ে গত ১৫ জুলাই প্রথমবারের মত একটি অনলাইন কর্মশালা করেছিল।
আজ ১৬ সেপ্টেম্বর বুধবার ৬ জেলার সঙ্গে পৌনে ৩ ঘণ্টার একটি প্রাণবন্ত অনলাইন কর্মশালা হয়েছে। ট্যুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী অফিসার অতিরিক্ত সচিব জাবেদ আহমেদের সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মহিবুল হক, আর বিশেষ অতিথি ছিলেন পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান অতিরিক্ত সচিব রাম চন্দ্র দাস। কর্মশালায় ৬ জেলা থেকে জেলা প্রশাসকদের নেতৃত্বে সরকারি কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, উদ্যোক্তা ও সংবাদ কর্মিসহ ১০ জন করে অংশগ্রহণকারী সংযুক্ত হন। জুমে সর্বমোট ৮৬ জন সংযুক্ত ছিলেন। তবে প্রত্যেক জেলা থেকে জেলা প্রশাসকসহ তিনজন করে আলোচনায় অংশ নেন। যুগ্ম-সচিব মল্লিক আনোয়ার হোসেনের সঞ্চালনায় ট্যুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী অফিসার জাবেদ আহমেদ কর্মশালায় ‘হাওর পর্যটনের সম্ভাবনা’ শীর্ষক মূল প্রবন্ধে বলেন, কোভিডের কারণে পর্যটন শিল্প বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। যদিও এখন আবার পর্যটনের সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। দেশের হাওরগুলোকে কেন্দ্র করে দেশীয় পর্যটন শিল্পকে বিকশিত করা যায়। দেশের হাওরগুলোকে প্রধানত পাহাড়ের পাদদেশের হাওর, প্লাবিত এলাকার হাওর এবং গভীর পানিতে প্লাবিত হাওরে শ্রেণিবিভাগ করা যায়। তবে দেশের ৭টি জেলা, কিশোরগঞ্জ, সিলেট, হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, নেত্রকোনা এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৭ লাখ ৮৪ হাজার হেক্টর এলাকাজুড়ে মোট ৪২৩টি হাওর রয়েছে। এর মধ্যে কিশোরগঞ্জে রয়েছে ১২২টি হাওর।
কর্মশালার প্রধান অতিথি পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মহিবুল হক বলেন, হাওরাঞ্চলের পর্যটন সম্ভাবনা নিয়ে এ ধরনের কর্মশালা এটাই প্রথম। আমাদের দেশে পর্যটন শিল্পে সাফল্যের চেয়ে ব্যর্থতাই বেশি। জিডিপি-তে পর্যটন শিল্পের অবদান শতকরা তিন ভাগ। এর বেশিরভাগ আসে বেসরকারি পর্যটন খাত থেকে। কোভিডের কারণে এবার পর্যটন শিল্পে ১৫ হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। তবে হাওর, সাগর, পাহাড়, বনভূমি এবং কৃষ্টিকে কেন্দ্র করে পর্যটনের অপার সম্ভাবনা রয়েছে। ট্যুরিজমের প্রচার ও প্রসার দরকার। বর্তমান বাণিজ্যিক যুগে প্রচার ছাড়া প্রসার হবে না। হাওর নিয়ে গান, সিনেমা, নাটক হয়েছে, হচ্ছে। তবে এলাকাবাসীর ভাল আচরণ দরকার। স্থানীয় উদ্যোক্তাদের সহনশীল হতে হবে, সাশ্রয়ী মূল্যে পরিষেবা দিতে হবে। তা না হলে পর্যটকরা একবার ফিরে গিয়ে দ্বিতীয়বার আসবেন না। কোন এলাকায় পর্যটন কেন্দ্র গড়ে উঠলে এর সঙ্গে ১০০টি প্রতিষ্ঠান বা পরিষেবা যুক্ত হয়। এলাকার উন্নয়ন হয়, কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়। কাজেই সবাইকে মণপ্রাণ দিয়ে কাজ করতে হবে। জেলা প্রশাসকরা নেতৃত্বের ভূমিকা নিলে, সবাই মিলে কাজ করলে পর্যটন শিল্পে সাফল্য আসবে।
কর্মশালার বিশেষ অতিথি পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান রাম চন্দ্র দাস বলেন, পর্যটন কর্পোরেশনের বয়স ৪৮ বছর। পর্যটন শিল্প বিকাশের সাথে সাথে আরো ১১০টি শিল্প বিকশিত হয়। ১১টি পেশায় মানুষের কর্মসংস্থান হয়। অর্থের প্রবাহ বেড়ে যায়। হাওর মূলত গ্রামকেন্দ্রিক। এখানে পর্যটন কেন্দ্র হলে তারাও লাভবান হবেন। সম্মানজনক জীবিকার সুযোগ হবে। তবে পর্যটকদের অতিথির মর্যাদা দিতে হবে। তাহলেই বিকাশ ঘটবে। পরবর্তীতে তারা পরিবার নিয়ে বেড়াতে আসবেন। মানুষ বেড়াতে চায়। তবে নৌ-দুর্ঘটনা রোধ করার উদ্যোগ নিতে হবে। গতবছর বাংলাদেশ থেকে ৪৬ লাখ পর্যটক বিদেশে গেছেন। তাদেরকে এদেশে পর্যটনের সুযোগ করে দিতে হবে। পর্যটনের জন্য ৭টি উপাদান লাগে। নদী, সমুদ্র, বন, পাহাড়, কৃষ্টি-সংস্কৃতি, ঋতু বৈচিত্র্য ও আতিথেয়তা। আর এই ৭টি উপাদান এদেশে আছে। কর্মশালার সঞ্চালক যুগ্ম-সচিব মল্লিক আনোয়ার হোসেন বলেন, পর্যটন শিল্পের সঙ্গে ২১টি মন্ত্রণালয় যুক্ত থাকে। ফলে ধারাবাহিকভাবে সকল মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করা হবে। ২০২৩ সালে মধ্যে পর্যটন শিল্পে উন্নয়ন সাধিত হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।
কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী তার ‘হাওর অঞ্চলে পর্যটনের বিকাশ’ শীর্ষক প্রস্তাবনা ও পরিকল্পনা তুলে ধরে বলেন, এ জেলায় নিকলীর বেড়িবাঁধ এলাকা, করিমগঞ্জের চামড়া নৌ-বন্দর ও বালিখলাকে কেন্দ্র করে ইতোমধ্যে হাজার হাজার দর্শণার্থী আসছেন। তারা বর্ষার পানিতে নৌ-ভ্রমণে যাচ্ছেন। নিকলীতে ছাতিরচরসহ সেখান থেকে ইটনা মিঠামইনে নৌ-ভ্রমণের সুযোগ রয়েছে। মিঠামইনে রয়েছে জেলার কৃতি সন্তান বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের বাড়ি। সেখানেও মানুষ দেখতে যায়। এছাড়া মিঠামইনের দিল্লীর আখড়া, হিজল বাগানসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে মানুষ যাচ্ছেন। শুষ্ক মৌসুমেও হাওরের অলওয়েদার রোডের মাধ্যমে ইটনা, মিঠামইন এবং অষ্টগ্রামের বিস্তীর্ণ হাওরের ফসলি মাঠসহ অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করার সুযোগ রয়েছে। এখানে রয়েছে মিঠা পানির মাছের ভাণ্ডার। রয়েছে অষ্টগ্রামের পনির, যা নিয়ে জেলা ব্র্যান্ডিং করা হয়েছে। তিনি অলওয়েদার রোডসহ হাওরের বিভিন্ন দৃষ্টিনন্দন দৃশ্যপট ও বিভিন্ন মডেলের নৌকার আকর্ষণীয় স্থিরচিত্র প্রদর্শন করেন। এর মাধ্যমে তিনি হাওরে পর্যটকদের আকৃষ্ট করার অপার সম্ভাবনার চিত্র তুলে ধরেছেন। তবে বর্ষার মৌসুমে পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য লাইফ জ্যাকেটসহ সুরক্ষামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। উন্নত আইন শৃংখলার ওপরও গুরুত্বারোপ করেছেন। আর বিভিন্ন বর্জ্য ফেলে জলজ পরিবেশ যেন কেউ নষ্ট করতে না পারে সেদিকেও সবাইকে নজর রাখার আহবান জানান। কিশোরগঞ্জ থেকে যুক্ত হয়ে আরো আলোচনা করেন অষ্টগ্রাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম ও জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি মোস্তফা কামাল।
এছাড়া হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান, মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান, সুনমাগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ, নেত্রকোনার জেলা প্রশাসক কাজি মো. আব্দুর রহমান ও সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শারমিন সুলতানাসহ তাদের স্ব স্ব জেলার আরো দু’জন করে বক্তব্য রেখেছেন। তারাও হাকালুকি হাওর, রাতারগুল, বিছানাকান্দি, খালিয়াজুড়ির হাওরসহ বিভিন্ন সম্ভাবনাময় স্পটগুলোর কথা তুলে ধরেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!