• মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১১:৫৫ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

ভৈরবে ১০০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করলেন স্বাস্থ্য সচিব

ভৈরবে ১০০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য
কমপ্লেক্স পরিদর্শন করলেন স্বাস্থ্য সচিব

# মিলাদ হোসেন অপু :-

ভৈরবে ১০০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো. আব্দুল মান্নান। আজ ৩০ আগষ্ট রোববার কিশোরগঞ্জ জেলার কটিয়াদী উপজেলার নিজ বাড়ি থেকে ঢাকায় ফেরার পথে ভৈরব পৌর শহরে চণ্ডিবের অবস্থিত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নির্মাণাধীন ১০০ শয্যা বিশিষ্ট  হাসপাতাল পরিদর্শন করেন তিনি। এসময় তার সাথে ছিলেন স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী বিগ্রেডিয়ার সারোয়ার মোরশেদ।
এ সময় স্বাস্থ্য সচিবকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন, কিশোরগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান, ভৈরব উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো. সায়দুল্লাহ মিয়া, উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা, উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা. বুলবুল আহম্মদ, উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সেন্টুসহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকবৃন্দ।
এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগ স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. মিজানুর রহমান কবির, পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোশারফ হোসেন মিন্টু, ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. মোমেন মিয়া, উপজেলা যুবলীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন প্রমুখ। পরিদর্শন শেষে ভৈরবের স্বাস্থ্য বিভাগের সকল কর্মকর্তা ও নেতৃবৃন্দের সাথে এক মতবিনিময় সভায় অংশগ্রহন করে স্বাস্থ্য সচিব। সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সেন্টু ভৈরববাসীর পক্ষে দাবী করে বলেন, ভৈরব পৌর শহরে কমলপুরে অবস্থিত ট্রমা হাসপাতালের পাশে অনেক জায়গায় খালি পরে আছে। সেই জায়গায় একটি হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতাল নির্মাণের দাবী জানান। এছাড়াও তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বিভিন্ন দপ্তরে ডাক্তার সংকট নিরসনের আহবান জানান।
এ সময় মতবিনিময় সভায় স্বাস্থ্য সচিব বলেন, ভৈরব আমার নিজের এলাকা। আমার জন্মস্থান জেলা কিশোরগঞ্জ। ভৈরবের জন্য কিছু একটা করা আমার দায়িত্ব ও কর্তব্য। প্রয়াত রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব জিল্লুর রহমান আমাকে সন্তানের মত স্নেহ করতেন। উনারমত নেতা শতাব্দীতে একবার জন্ম নেয়।
এসময় তিনি আরো বলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সারা দেশে ১৪শ কোটি টাকার স্বাস্থ্য উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে একাই লড়াই করে যাচ্ছেন। আমাদের নীতি আদর্শ ঠিক রেখে দেশের জন্য কাজ করতে হবে।
ইতি মধ্যে সারাদেশে স্বাস্থ্য খাতসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়নমূলক কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ভৈরবের প্রয়োজনে যে কোন কাজ করবেন এবং চাকরিরত থাকা অবস্থায় ভৈরবের মানুষের স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে সকল চাহিদার পূরণ করবেন বলে জানান তিনি। এসময় তিনি বলেন আপনাদের দাবীর বিষয়গুলো আমি অফিসিয়াল ভাবে আলোচনা করে তা বাস্তবায়নের চেষ্টা করবো। এসময় হাসপাতাল নির্মানাধীন কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, সরকারি সম্পদ নষ্ট করা যাবে না। সঠিক তদারকির মাধ্যমে ভাল মানের বিল্ডিংয়ের নির্মাণের নির্দেশ দেন। এ ছাড়াও সকল ডাক্তারদের নির্মানাধীন কোয়াটারে থাকতে অনুরোধ জানান তিনি।
এ সময় তিনি আরো বলেন, নীতি এবং নৈতিকতার সাথে মানুষকে চলতে হবে। এমন কিছু করে যেতে হবে মানুষ যেন মৃত্যুর পর মনে রাখে। সন্তানদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে হবে। তাহলেই এ দেশ এগিয়ে যাবে। স্বাস্থ্যখাতে জনবল বাড়াতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রতিদিন ডাক্তার ও নার্স নিয়োগ দিচ্ছেন।  যখন যা চাওয়া হয় তখনই তা তিনি দিয়ে দিচ্ছেন।
তিনি বলেন, মানুষ যেন চিকিৎসা নিতে এসে পরীক্ষায় হয়রানির শিকার না হয় সে দিকে নজরদারী বাড়াতে হবে। অল্প অসুখে একাধিক পরীক্ষা দিয়ে অসহায় গরীবদের চিকিৎসা বঞ্চিত না হয় সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে। পরিশেষে হাসপাতালে ভর্তিরত রোগীদের খোঁজ-খবর নেন ও বিভিন্ন ওয়ার্ড পরিদর্শন করেন রোগীদের সেবার মান বৃদ্ধি করতে ডাক্তারদেরকে নির্দেশ প্রদান করেন তিনি।

ভৈরবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো. আব্দুল মান্নান।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!