• মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১১:৩৮ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

আজ আর কোন মঞ্চে উচ্চারিত হয় না মহারাজের জীবন-কর্ম, সুমন মোল্লা

আজ আর কোন মঞ্চে উচ্চারিত
হয় না মহারাজের জীবন-কর্ম

সুমন মোল্লা

দীর্ঘ কারাবাস জীবন সম্পর্কে লিখতে গিয়ে মহারাজ তাঁর ‘জেলে ত্রিশ বছর ও পাক-ভারত স্বাধীনতা সংগ্রাম’ গ্রন্থে লিখেছেন, ‘আমি ভারত বর্ষের মধ্যে, ভারতবর্ষ কেন, সম্ভবঃ পৃথিবীর মধ্যে, রাজনৈতিক কারণে সর্বাপেক্ষা অধিক বৎসর যাঁহারা কারাগারে কাটাইয়াছেন, তাঁহাদের মধ্যে অন্যতম। বিভিন্ন সময় কারাগারে নেতাজী শুভাষ চন্দ্রের সাথে কাটাইয়াছি’।
বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম নেতা ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী হলেন সেই মহারাজ। বলা হয়ে থাকে রাজনৈতিক কারণে বিশ্বের মধ্যে তিঁনিই অধিক সময় করাভোগ করেছেন।
আজন্ম এই সংগ্রামী মৃত্যুর আগের দিন পর্যন্ত ভারতবর্ষ ও স্বাধীনতা পরবর্তীতে নিজ দেশের অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক উন্নয়নে কাজ করে গেছেন। বিপ্লবী কর্মকাণ্ড স্বদেশে নয়-পুরো ভারতবর্ষের মধ্যে তাকে একজন বর্ষীয়ান রাজনীতিকের পরিচিতি এনে দেয়।
জীবন-যৌবনের ত্রিশটি বছর কারাগারে কেটে গেলেও তাঁর বিপ্লব ছিল চির জাগ্রত। জেলে আটকে রেখে তার বিপ্লবী মনোভাবকে ধাবিয়ে রাখা যায়নি। বিপ্লব জাগ্রত রাখতে কখনও তিঁনি যোদ্ধা কখনও গুপ্তচর হয়েছেন। বিশেষ করে জেলে থাকা অবস্থায় অত্যন্ত সুক্ষ্মভাবে পালন করতেন গুপ্তচরের ভূমিকা। সেসময় তিনি কালিচরণ নাম ধারণ করেন। ডাব বিক্রির অজুহাতে বিপ্লবীদের সাথে তার হয়ে যেত প্রয়োজনীয় কথা বার্তা।
মহারাজ ছিলেন সুঠাম দেহের অধিকারী। দীর্ঘ সময় বৃটিশরা তাকে শারীরিক ও মানুষিক নির্যাতন চালিয়েছেন। তবে তার স্বাস্থ্যহানি ঘটাতে পারেনি। কিন্তু তার সুঠাম স্বাস্থ্য কংকালসার রুপ পায় স্বাধীন পূর্ব পাকিস্তানের জেলে। জীবনের শেষ সময়গুলো কাটে রাষ্ট্রীয় অবহেলা, অযত্ন আর নানান বঞ্চনার মধ্যে দিয়ে। তবে তার জীবানাবাসনের আগ মূহুর্তগুলো কেটেছে অনেকটা মহারাজের মর্যাদায়।
বিশ্বের বিপ্লবের ইতিহাসের খ্যাতিমান এই বিপ্লবীকে এখন আর কজনা মনে রাখে। এমনকি তার মতাদর্শের রাজনৈতিক মঞ্চেও নামটি উচ্চারিত হয় না। মনে রাখার প্রয়োজন অনুভব করে না নিজ জেলা কিশোরগঞ্জ। গ্রামের বাড়ি কুলিয়ারচরবাসীরও ভোলা মন।
৯ আগস্ট কীর্তিমান ব্যক্তিটির মৃত্যু দিবস। ৫০ বছর আগের এই দিনে রাজনৈতিক কারণে লম্বা সময় করাভোগকারী মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ ভারতে মৃত্যু বরণ করেন। মৃত্যুর দেড় মাস আগে ১৯৭০ সালের ২৪ জুন চিকিৎসার জন্য ভারতে যান তিনি। নিজ দেশ থেকে যাওয়াটা তার সম্মানের না হলেও ভারতবাসী তাকে গ্রহণ করেন সম্মান ও শ্রদ্ধায়। আনুষ্ঠানিক সম্মান জানাতে ২৫ জুলাই কোলকাতা পৌরসভা আয়োজন করে নাগরিক সংবর্ধনার। ওইদিন ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হন নেতা।
সম্মান জানতে পিছিয়ে থাকেননি ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারও। তৎকালীন ইন্দিরা সরকার পার্লামেন্টে তাকে অনারম্ভর সংবর্ধনা দেন। জবাবে নেতা বাংলায় বক্তৃতা করেন। এখানেই থেমে যায়নি বিপ্লবীর প্রতি ইন্দিরা সরকারের শ্রদ্ধা। ৮ আগস্ট মহারাজের সম্মানে ভোজ সভার আয়োজন করা হয়। ইন্ধিরাগান্ধি নিজ হাতে মহারাজকে খাওয়ান। কেন্দ্রীয় সরকারের বহু মন্ত্রী, লোকসভার সরকারি-বিরোধী দলের অনেক সাংসদের উপস্থিত ভোজসভাটি ভিন্নমাত্রা পায়। বিরল সম্মান পেয়ে বাসায় ফেরার পর থেকে মহারাজ শারিরীকভাবে অসুস্থ অনুভব করতে থাকেন। রাত তিনটার দিকে তিনি সজ্ঞাহীন হয়ে পড়েন। এর ২০ মিনিট পর মহানায়কের জীবনাবাসন ঘটে। তাঁর মৃত্যুতে ভারত ও বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ সেদিন শোকে বিহব্বল হয়ে পড়েছিল। তার প্রমাণ মিলে পরদিন ১০ আগস্ট। মহারাজের মরদেহ নিয়ে কলকাতায় যে শোকযাত্রা বের হয়- তাতে লাখো ভক্ত ও রাজনৈতিক অনুসারীর উপস্থিতি ঘটে। পরে চোখের জলে কোলকাতার কেওরাতলা শ্মশানে তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয়।
মহারাজের বিপ্লবীর চেতনার বিষয়টি আপামর জনসাধারণের জানা নেই। তবে রাজনীতিক, সমাজ সংস্কারক এবং প্রগতিশীল সমাজকর্মীদের চোখে মহারাজকে ভারতবর্ষের আলোক বর্তিকা হিসাবে বিবেচনায় আনা হয়। তার রাজনৈতিক আদর্শ বিপ্লবীদের এখনও উজ্জীবিত করে। ভারতবর্ষ আলো করে এই মহানায়ক পৃথিবীতে আসেন ১৮৮৯ সালে। জন্মভূমি হাওরবেষ্টিত কিশোরগঞ্জ জেলার কুলিয়ারচর উপজেলার নিভৃত পল্লী কাপাসাটিয়ার সাধারণ একটি পরিবার। সনটি মনে থাকলে তারিখটি কারো জানা নেই।
পিতা দূর্গাচরণ চক্রবর্তী ও মা প্রসন্নময়ী দেবির পরিবারের ত্রৈলোক্যনাথ ছিলেন ৬ ভাই বোনের মধ্যে সর্বকনিষ্ঠ।
১৯০৮ থেকে ১৯৪৬ সালের মধ্যে কারাবাসের ত্রিশটি বছর ছিল মহারাজের জন্য কঠিন পরীক্ষা। বৃটিশদের অনেক জুলম-নির্যাতন তিঁনি বিপ্লবী দিক্ষা দিয়ে মোকাবেলা করেন। পরীক্ষার এখানেই শেষ নয়- ৫ বছর তাকে গুপ্ত জীবন কাটাতে হয়। তাছাড়া একই কারণে ১৯১৪ সাল থেকে ১৯২৪ সাল পর্যন্ত দশ বছর ভারতের আন্দামান দ্বীপপুঞ্জে নির্বাসিত জীবন-যাপন করতে হয়। জীবন-যৌবনের এই মূল্যবান সময় তিঁনি বিসর্জন দিয়েছিলেন শুধুমাত্র ভারতবর্ষকে বৃটিশ শাসন থেকে মুক্ত করতে।
মহারাজের ছাত্র জীবন শুরু হয় মালদাহ জেলার কানসার্টে। ওই সময় তিঁনি দু’বছর ইংরেজি স্কুলে পড়ার পর পরবর্তীতে ভর্তি হন ময়মনসিংহের ধলা স্কুলে। ওই স্কুলে প্রতিবছর মহামারি দেখা দেওয়ার কারণে তিঁনি এক বছরের বেশি পড়তে পারেননি। প্রকৃতই মেধাবী এই ছাত্রটি পরবর্তীতে ভর্তি হন নরসিংদীর সাটিরপাড়া স্কুলে। ১৯০৬ সালে তিনি বিপ্লবী পুলিন বিহারী দাশের কাছ থেকে স্বদেশী মন্ত্রের দিক্ষা গ্রহণ করেন। অনুশীলন সমিতির সদস্যও হন। ১৯০৮ সালে প্রবেশিকা পরীক্ষার ঠিক আগে তৎকালীন ঢাকা জেলার নারায়নগঞ্জে গ্রেফতার হন মহারাজ। সেদিন বৃটিশ সরকার তার বিরুদ্ধে নৌকা চুরির অভিযোগ আনেন। কিন্তু প্রমাণ করতে পারেনি। সেকারণে ৬ মাসের বেশি কারাগারে আটকে রাখতে রাখা যায়নি তাকে।
১৯১২ সালে গোয়েন্দা পুলিশ সদস্য রতিলাল রায়কে হত্যার অভিযোগে পুলিশ আবার তাকে গ্রেফতার করে। ওই সময় তিঁনি ঢাকা ষড়যন্ত্র মামলার পলাতক আসামি ছিলেন। ১০৯ ধারায় তার বিচার শুরু হলে তিনি বেকসুর খালাস পান। সেদিনের কথা বলতে গিয়ে মহারাজ লিখেছেন, ‘পান্তাভাত খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে তিন বছর পর বাড়ি ফিরি। মাত্র দশদিন বাড়ি থাকার পর আবার শুরু সুদীর্ঘ পলাতক জীবন। তিন পয়সার ছোলা খেয়ে পঁচাশি মাইল পথ হেঁটে নিরাপদ আশ্রয় পায়’।
তখন তাকে ধরার জন্য সরকার পক্ষ থেকে পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছিল। ১৯১৪ সালের শেষ দিকে কলকাতা থেকে পুলিশ তাকে আবারও গ্রেফতার করে। বরিশাল যড়যন্ত্র মামলায় অভিযুক্ত দেখিয়ে দশ বছরের জন্য নির্বাসন দণ্ডে দণ্ডিত করা হয়। ১৯১৫ সালে তাকে পাঠানো হয় আন্দামানের সেলুলার জেলে (শুনা যায়, যে জাহাজ করে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল তারও নাম ছিল মহারাজ)।
মুক্তির দিনটি আসে ১৯২৪ সালে। কিন্তু মুক্ত জীবন দীর্ঘ হয়নি। মাত্র দশ মাসের ব্যবধানে একই বছরের নভেম্বর মাসে আবার গ্রেফতার হন। স্থানটি ছিল ময়মনসিংহ। ১৯২৮ সালের শেষভাগ পর্যন্ত মান্দালয় জেলে আটক রাখা হয়। জেলে থাকাকালীন সময়ে তিনি বার্মিজ ভাষাসহ খানিক হিন্দি, উর্দূ, গুরুমুখী, মারাঠি আর মালয়ালম ভাষা রপ্ত করেন। যা পরবর্তী সময়ে তার রাজনৈতিক কাজে আসে।
১৯৩০ সালে গ্রেফতার হন রাজশাহীতে। ১৯৩৩ সাল পর্যন্ত মাদ্রাজ ও অবিভক্ত বাংলার বিভিন্ন জেলে বন্দি জীবন কাটাতে হয়। ১৯৪০ সালে শুরু হয়ে যায় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ। বিশ্বযুদ্ধের শুরুতে ১৯৪০ সালের মার্চ মাসে মহারাজ চট্টগ্রামের জনসভা অংশ নেন। ওইসভা থেকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। জেল খাটতে হয় ছয় বছর। মুক্তি পান ১৯৪৬ সালের ২৩ মে।
মহারাজের জন্য সবচেয়ে কঠিন সময় আসে দেশ বিভাগের সময়। সেসময় অনেক হিন্দু পরিবার ভারতে পাড়ি জমান। মহারাজটি একজাটি করেন। নিজ বাড়ি আর আপনজনদের মায়ায় থেকে যান নিজ দেশেই।
পাকিস্তানী সোস্যালিষ্ট পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হয়ে কাজ শুরু করেন। ওই সময় পূর্ব পাকিস্তানের জেলায় জেলায় যান। উদ্দেশ্য হিন্দুরা যেন দেশ ত্যাগ না করে। কিন্তু পূর্ব পাকিস্তান সরকার তার এই রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড ভালো চোখে দেখেননি। সন্দেহ থেকে তার চিঠিপত্র পর্যন্ত জব্দ করে। সন্দেহ আর অবিশ্বাস এখানেই শেষ নয়। ‘জেলে ত্রিশ বছর ও পাক ভারত স্বাধীনতা সংগ্রাম’ গ্রন্থটি বাজেয়াপ্ত করে ছাড়েন পাকিস্তান সরকার।
নেমে আসে রাজনৈতিক দমনপীড়ন। সেসময় তিনি ছিলেন পূর্ব পাকিস্তান বিধানসভার সদস্য। কার্যকাল শেষ হবার পর দ্বিতীয়বার তাকে নির্বাচনে অংশ নিতে দেওয়া হয়নি। আইয়ুব খান সরকারের বেসিক ডেমোক্রেসীতে তার সদস্যপদ না থাকার আদেশ জারি করা হয়। তার জীবনের রাজনৈতিক ইতিহাসের দুঃখজনক ঘটনাটি ঘটে যায় ১৯৬৫ সালে। ভারত-পাকিস্তান সংঘর্ষের সময় দেশপ্রেমিক এই মানুষটিকে পাক সরকার দুবছরের জন্য কারারুদ্ধ করে রাখেন।
সেসময় বিপ্লবী পুরুষটি আর নিজেকে ধরে রাখতে পারেননি। মানুষিকভাবে ভেঙ্গে পড়েন। স্বাস্থ্যহানি ঘটে। শুধু স্বাস্থ্যহানি বললে ভুল হবে। স্বাস্থ্য কংকালসার রুপ পায়। কারা কর্তৃপক্ষ কারাগারে মহারাজের মৃত্যু আশঙ্কা করেন। কিছুটা ভীত হয়ে পড়েন করা কর্তৃপক্ষ। দায় এড়াতে তরিগড়ি করে মুক্তি দেন নেতাকে। উন্নত চিকিৎসার জন্য অনুসারীরা নেতাকে ভারতে নিয়ে যেতে চান। কিন্তু সরকারের দিক থেকে অনুমতি মিলেনি। বহু আবেদন আর জনতার চাপে ১৯৭০ সালের মে মাসে ৩ মাসের জন্য তার পাসপোর্ট মঞ্জুর করা হয়। ১৯৭০ সালের ২৪ জুন মহারাজ খুব সকালে বনগা সীমান্ত ভারত প্রবেশ করেন।
অনেক শিক্ষিকজনের সাথে কথা বলে বুঝা গেছে, সংগ্রামী মানুষটির জীবন-কর্ম তাদের অনেকেই জানা নেই। গিয়ে জানা যায়, তার নিজ উপজেলা কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে ছয় বছর আগে স্মৃতি ধরে রাখার জন্য মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ নামে একটি গণ গ্রন্থাগার ছাড়া আর কোন স্মৃতি চিহ্ন নেই। সেটিও হয়েছে এক সরকারি কর্মকর্তার হাত ধরে। তৎকালীন কুলিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৌরেন্দ্র নাথ চক্রবর্তী মহারাজের স্মৃতি ধরে রাখার নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন, মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ গবেষক। কর্মস্থল পরিবর্তন হবার পর গ্রন্থাগারটিও মুখ ধুবড়ে পড়ে। আগে বিকালে গ্রন্থাগারটি খোলা হত। এখন আর হয় না। শহর থেকে দুই কিলোমিটার দূরে কাপাসাটিয়া গ্রামের বাড়িটির একই অবস্থা। একটি সেমি আধা পাকা ভাঙ্গা ঘর ছাড়া আর কিছুই নেই। তাঁর সকল সম্পত্তি বেদখল হয়ে গেছে এবং আত্মীয়রা ভারতসহ বিভিন্ন জায়গায় চলে গেছে।
জীবনের মূল্যবান সময় দিয়ে যে মানুষটি দেশ ও দেশের মানুষের কথা ভেবেছেন- সে মানুষটিকে আমরা কতটুকু মনে রেখেছি ? প্রশ্নটি তার রাজনৈতিক অনুসারী থেকে শুরু করে প্রগতিশীল চিন্তার মানুষের কাছে এখন বড় হয়ে দেখা দিয়েছে।

সুমন মোল্লা, নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রথম আলো


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!