• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৬:৩৫ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
সবুজ ভৈরবের আয়োজনে এমবিশন পাবলিক স্কুলে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন ভৈরবে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে অবরোধের চেষ্টা, ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ করিমগঞ্জে বেড়েছে শিশু শ্রমিক করিমগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্নহত্যা নরসিংদী আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে সদ্য যোগদানকারী জেলা ও দায়রা জজকে সংবর্ধনা প্রদান বাজিতপুরে বর্জ্যরে বায়োগ্যাসে সাশ্রয় হচ্ছে জ্বালানি খরচ কোটা বিরোধীদের রাজাকার পরিচয়ের শ্লোগানের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন বাজিতপুরে চালককে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই নিজ মেয়েকে ধর্ষণ, বাবার মৃত্যুদণ্ড কিশোরগঞ্জে কোটা বিরোধী সংগঠনের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

ভাইরাসে বন্ধ হচ্ছে সম্ভাবনাময় তুষ পদ্ধতির হাঁসের হ্যাচারি

তুষ পদ্ধতিতে ডিম থেকে উৎপাদন হচ্ছে হাজার হাজার হাঁসের বাচ্চা -পূর্বকণ্ঠ

ভাইরাসে বন্ধ হচ্ছে সম্ভাবনাময়
তুষ পদ্ধতির হাঁসের হ্যাচারি

# মোস্তফা কামাল :-
কিশোরগঞ্জের তাড়াইলের সৃজনশীল খামারিরা হারিকেনের তাপে আর তুষের ওমে ডিম ফুটিয়ে জন্ম দিচ্ছেন হাজার হাজার হাঁসের বাচ্চা। কিশোরগঞ্জ ছাড়াও বিভিন্ন জেলায় এসব বাচ্চা সরবরাহ করে হাঁসের খামার প্রতিষ্ঠায় বিশাল ভূমিকা রেখে চলেছেন। দামিহা নামে একটি ছোট্ট বাজারকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছিল ২০০ হ্যাচারি। কিন্তু বেশ কিছুদিন ধরে অজানা ভাইরাসে মারা যাচ্ছে শত শত বাচ্চা। ক্রেতারা মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন এসব হ্যাচারির দিক থেকে। উদ্যোক্তারা উপজেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগে বার বার ধরনা দিয়েও কোন সহযোগিতা পাননি। কেউ চোখের দেখাও দেখতে আসেননি। ক্ষতিগ্রস্ত হতে হতে প্রায় ১৫০টি হ্যাচারিই বন্ধ হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন বাকি উদ্যোক্তারা। হ্যাচারি বন্ধ করে ওইসব উদ্যোক্তারা বিকল্প ব্যবসার দিকে ঝুঁকছেন। তবে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা নূরজাহান বেগম এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তিনি প্রায়ই প্রাণিসম্পদের শিক্ষার্থীদের নিয়ে যান এসব হ্যাচারি দেখানোর জন্য।
তাড়াইলের দামিহা বাজারে সোমবার গিয়ে দেখা গেছে, অনেকগুলো হাঁসের হ্যাচারি। একদিকে হ্যাচারির লোকেরা হাজার হাজার ডিম থেকে বাছাই করে বাতিলযোগ্য ডিমগুলো আলাদা করছেন। অন্যদিকে অনেকগুলো লম্বা গভীর প্রকোষ্টের ভেতর তুষের মধ্যে রাখা হয়েছে বাছাই করা ডিম। ডিমের প্রকোষ্টের পাশের প্রকোষ্টেই রাখা হয়েছে জ্বলন্ত হারিকেন। হারিকেনের তাপে পাশের প্রকোষ্টের ডিমগুলোকে ১৫ দিন তাপ দেওয়া হয়। এরপর সেখান থেকে ডিমগুলো বহুতল তুষকের বিছানা করে সেখানে সাজিয়ে লেপ দিয়ে ঢেকে রাখা হয় ১৩ দিন। এভাবেই ২৮ দিন পর চোখের সামনে ডিম ফেটে বেরিয়ে আসতে থাকে হাজার হাজার বাচ্চা। এরপর বিশেষ পদ্ধতিতে এসব বাচ্চা লালন করা হয় ১০ দিন। পরে বিক্রি করা হয় হাঁসের খামারিদের কাছে। একেকটি হ্যাচারিতে মাসে ৬০ হাজার থেকে ৮০ হাজার বাচ্চা উৎপাদন হয়।
হ্যাচারি মালিক নবনির্বাচিত উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান গোলাপ মিয়া, জালাল মিয়া ও আজিজুল হক আঞ্জু জানান, তাঁরা হাওরের বিভিন্ন উপজেলাসহ শেরপুরের নালিতাবাড়ি থেকে বাচ্চা উৎপাদনের ডিম সংগ্রহ করেন। যেসব হাঁসের খামারে ৯০টি হাসির সঙ্গে অন্তত ১০টি হাসা আছে, সেসব খামার থেকেই ডিম সংগ্রহ করেন। শুধু ডিম পারার হাঁসির খামারের ডিম থেকে বাচ্চা হয় না। প্রতি হালি ডিম কেনা হয় ৬০ থেকে ৭০ টাকায়। চৈত্র মাসে প্রতিটি বাচ্চা বিক্রি হয় ৩০ টাকায়। আর বর্ষাকালে বিক্রি হয় ২০ থেকে ২২ টাকায়। যুব উন্নয়ন থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে প্রায় ২৫ বছর আগে এখানে প্রথমে তুষ পদ্ধতির হ্যাচারি শুরু করেছিলেন আবুল হোসেন নামে এক উদ্যোক্তা। তিনি এবার হজ্বে গেছেন। তাঁর সাফল্য দেখে ক্রমান্বয়ে অন্যরা হ্যাচারি শুরু করেন।
গোলাপ মিয়ার হ্যাচারির নাম ‘মায়ের দোয়া’। এলাকার আব্দুল খালেকেরও ‘মায়ের দোয়া’ নামেই বড় হ্যাচারি রয়েছে। এটি দেখভাল করেন ছোটভাই জালাল মিয়া। আজিজুল হক আঞ্জুর রয়েছে ‘মেসার্স খাদিজা এন্টারপ্রাইজ’ নামে হ্যাচারি। তাঁদের সাথে কথা বলে জানা যায়, এই একটি এলাকায় প্রায় ২০০ হ্যাচারি ছিল। কিন্তু ইদানিং এক ধরনের ভাইরাসে প্রচুর হাঁসের বাচ্চা মারা গেছে। এরকম মরক দেখে হাঁসের খামারিরা এখান থেকে বাচ্চা কিনতে চান না। যে কারণে প্রায় ১৫০টি হ্যাচারি বন্ধ হয়ে গেছে। এর মধ্যে গোলাপ মিয়ার দুটি আর আজিজুল হক আঞ্জুরও একটি হ্যাচারি বন্ধ হয়েছে।
তাঁরা জানান, উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসে গিয়ে সহযোগিতা চাইলে সহযোগিতা পাননি। এমনকি কেউ পরিদর্শন করতেও আসেননি। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা নূরজাহান অভিযোগ অস্বীকার করেন বলেন, এ ধরনের সমস্যা নিয়ে আসলে কেউ যাবে না, এমন হতে পারে না। তবে এরকম ভাইরাসের লক্ষণের কোন কারণ নেই মন্তব্য করে তিনি বলেন, কিছুদিন আগে প্রচণ্ড গরম গেছে। সেই কারণে হয়ত কিছু বাচ্চা মারা গিয়ে থাকতে পারে। তবে মরা বাচ্চা উপজেলা পশু হাসপাতালে নিয়ে গেলে ময়না তদন্ত করে দেখা যেত, আসলে কী করণে বাচ্চাগুলো মারা গেছে। তিনি আরও বলেন, ২১ দিন বয়স হলে বাচ্চাগুলোর এক ধরনের রোগ হয়। এর জন্য ভেকসিন রয়েছে। কিন্তু হ্যাচারি থেকে আরও অনেক কম বয়সের বাচ্চা বিক্রি করা হয়। যে কারণে খামারিরা এসব ভেকসিন ব্যবহার করেন না। এত কম বয়সের বাচ্চার এ ধরনের ভাইরাস সংক্রমণ হওয়ার কোন কারণ নেই বলেও তিনি মন্তব্য করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *