• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

সিঁধ কেটে শিশু চুরি ১৬ ঘণ্টাতেই উদ্ধার

শিশুটিকে ফিরে পেয়ে চুমু খাচ্ছেন মা নাজনীন -পূর্বকণ্ঠ

সিঁধ কেটে শিশু চুরি
১৬ ঘণ্টাতেই উদ্ধার

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে ঘরের সিঁধ কেটে ১০ জুন সোমবার ভোর আনুমানিক ৫টার দিকে ঘুমন্ত মায়ের পাশ থেকে দুই মাসের একমাত্র শিশুপুত্র চুরি হয়েছিল। প্রায় ১৬ ঘণ্টা পর বিকাল ৪টার দিকে সদর উপজেলার মাইজখাপন ইউনিয়নের বেত্রাটি গ্রামের এক কাপড়ের হকারের বাড়ি থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করেছে থানার পুলিশ ও ডিবি। চার কন্যা সন্তানের পর পুত্র সন্তানের অভাব মেটাতে শিশুটিকে সিঁধ কেটে নিজেই চুরি করেছিল হকার রুবেল মিয়া (৩২)। রুবেল ও তার শ্বাশুড়ি সস্তু বেগমকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। জানিয়েছেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাসেল শেখ। আর শিশুটিকে মা নাজনীনের কোলে তুলে দিয়েছেন পুলিশ সুপার। তখন নাজনীন তার শিশুকে উপর্যুপরি চুমু খাচ্ছিলেন আর কেঁদে কেঁদে সবার কাছে দোয়া চাইছিলেন। এসময় এক আবেগঘন পরিবেশের অবতারণা হয়।
সোমবার সন্ধ্যায় জেলা পুলিশ কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার জানান, রুবেল সদর উপজেলার বেত্রাটি গ্রামের মৃত শহীদ মিয়ার ছেলে। তার স্ত্রী খাদিজার গর্ভে পর পর চারটি কন্যা সন্তান জন্মায়। এদিকে তাড়াইলের তালজাঙ্গা ইউনিয়নের শাহবাগ গ্রামের দিনমজুর হিয়াস উদ্দিনের মেয়ে নাজনীন দুই মাস আগে পুত্র সন্তান জন্ম দেন। নাজনীনের স্বামী সাজ্জাদ গার্মেন্ট কারখানায় কাজের সূত্রে ঢাকায় ছিলেন। তাদের শিশুর নাম জুনায়েদ। শিশুটির ডায়রিয়া হয়েছে। ৯ জুন রোববার রাতে ঘুমানোর পর রাত ৩টায় একবার উঠে শিশুটিকে খাইয়ে আবার নাজনীন ঘুমিয়ে পড়েন। ভোর ৫টার দিকে ঘুম থেকে উঠে দেখেন শিশুটি নেই। খোঁজাখুজি করে ঘরের পেছনের দিকে সিঁধ কাটা দেখতে পান। তখন বুঝতে পারেন, শিশুটি চুরি হয়ে গেছে। তার চিৎকারে বাড়ির সবাই উঠে যান। সকালে নাজনীন নিজেই তাড়াইল থানায় গিয়ে অভিযোগ করেন। তখন তাড়াইল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বাহালুল খান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এরপর পুলিশ সুপার তাড়াইল ও সদরের পুলিশ এবং ডিবি পুলিশের টিম বানিয়ে অভিযানে পাঠান।
এক পর্যায়ে জানতে পারেন, রুবেলের বাড়িতে শিশুটি রয়েছে। রোববার একটি হাসপাতালে রুবেলের স্ত্রী খাদিজা চতুর্থ কন্যা সন্তানের জন্ম দেন। ফলে রুবেল জুনায়েদকে চুরি করে আনার পর প্রচার করছিলেন, হাসপাতালে তার স্ত্রী একটি কন্যা ও একটি পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। পুলিশ ওই হাসপাতালে গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানতে পারে, খাদিজা কেবল একটি কন্যা সন্তানই জন্ম দিয়েছিলেন। এছাড়া দুটি শিশুর বয়সেরও তারতম্য আছে। তখন রুবেলকে আটক করলে তিনি নিজেই সিঁধ কেটে শিশুটি চুরি করেছেন বলে স্বীকার করেন।
রুবেল বর্ণনা দিয়েছেন, তার শ্বশুর বাড়িও তাড়াইলের ওই শাহবাগ গ্রামে। প্রতিবেশি হবার সুবাদে রুবেলের শ্বাশুরি সস্তু বেগম জানতেন, প্রতিবেশি নাজনীনের শিশুপুত্র হয়েছে। ফলে তিনিই রুবেলকে এ খবরটি দেন। পরে রুবেল পুত্র সন্তানের অভাব পূরণ করতে সিঁধ কেটে শিশু জুনায়েদকে চুরি করেন। এ ঘটনায় রুবেল ও তার শ্বাশুড়ি সস্তু বেগমকে আটক করা হয়েছে। তারা স্বেচ্ছায় আদালতে স্বীাকরোক্তি না দিলে রিমান্ডে আনা হতে পারে বলে পুলিশ সুপার রাসেল শেখ জানিয়েছেন। আর তদন্তে রুবেলের স্ত্রীর সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে তাকেও আসামি করা হবে। তবে কেবল রোববারই তার সন্তান হয়েছে। ফলে এই অবস্থায় তাকে গ্রেপ্তার করাও ঠিক হবে না বলে পুলিশ সুপার মনে করছেন।
এদিকে তালজাঙ্গা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু জাহেদ ভূঁইয়া জানিয়েছেন, নাজনীনের এটি দ্বিতীয় বিয়ে। গার্মেন্ট কারখানায় কাজের সূত্রে বর্তমান বিয়েটি হয়েছে। স্বামী সাজ্জাদের বাড়ি কুমিল্লায়। অন্যদিকে নাজনীনের স্বামী সাজ্জাদ মিয়াও আগে বিয়ে করেছিলেন। সেই সংসারে একটি ৭ বছরের পুত্র সন্তান রয়েছে বলে তাড়াইল থানা সূত্রে জানা গেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *