• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৪:৪৩ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
সবুজ ভৈরবের আয়োজনে এমবিশন পাবলিক স্কুলে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন ভৈরবে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে অবরোধের চেষ্টা, ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ করিমগঞ্জে বেড়েছে শিশু শ্রমিক করিমগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্নহত্যা নরসিংদী আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে সদ্য যোগদানকারী জেলা ও দায়রা জজকে সংবর্ধনা প্রদান বাজিতপুরে বর্জ্যরে বায়োগ্যাসে সাশ্রয় হচ্ছে জ্বালানি খরচ কোটা বিরোধীদের রাজাকার পরিচয়ের শ্লোগানের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন বাজিতপুরে চালককে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই নিজ মেয়েকে ধর্ষণ, বাবার মৃত্যুদণ্ড কিশোরগঞ্জে কোটা বিরোধী সংগঠনের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

ভৈরবে ফাঁসিতে ঝুলে যুবকের আত্মহত্যা

# মিলাদ হোসেন অপু :-
কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ফাঁসিতে ঝুলে এক যুবকের আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে। আজ শনিবার রাত ৯টায় শহরের পঞ্চবটি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ভৈরব থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ভৈরব থানা অফিসার ইনচার্জ মো. সফিকুল ইসলাম। নিহত যুবক শহরের পঞ্চবটি এলাকার বাবুল মোল্লার ছেলে সাব্বির মিয়া (১৮)। পুলিশ ও পারিবারিক সুত্রে জানা যায়, সাব্বির ৬ মাস আগে একটি বিবাহিত মেয়েকে বিয়ে করে। তাদের পরিবারে ৫ ভাই। সাব্বির সবার ছোট। বিয়ের পর দীর্ঘদিন সাব্বিরের পরিবার বিয়ের বিষয়টি মেনে নেয়নি। কয়েকদিন আগে পরিবার থেকে মেনে নিলেও পরিবারের কটুকথা সহ্য করতে পারতো না সাব্বির। প্রায় সময় সে রাগলে ঘুমের ট্যাবলেট খেতো। পারিবারিক কলহের জেরে ২৪ মে আত্মহত্যা করতে সাব্বির ৫০/৬০টি ঘুমের ট্যালেট খেয়ে ফেলে। তার পরিবার তাকে বাজিতপুর ভাগলপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা দিয়ে আজ বাড়িতে নিয়ে আসে। রাত সাড়ে ৮টার দিকে নিজ ঘরে ফ্যানের সাথে ঝুলে ফাঁসিতে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। দরজা ভেঙ্গে পরিবার তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। এ বিষয়ে নিহতের স্ত্রী আয়েশা বলেন, সাব্বিরের অনেক রাগ ছিল। কথা কথায় রাগ করতো। রেগে গেলে ঘুমোর ট্যালেট খেতো। ২৪ মে আত্মহত্যা করতে অনেক গুলো ঘুমের ট্যাবলেট খেয়েছিল। আজ বাড়ি আনতেই আবার ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেছে। নিহতে মা রুবি বেগম বলেন, আমার ৫ সন্তান। সবাইকে না বলে ছোট ছেলে সাব্বির বিয়ে করে ফেলেছে। রাগে আমরা তাকে প্রথমে বাড়িতে জায়গা দেয়নি। ইদানিং বউসহ তাকে বাড়িতে এনেছি। প্রয়োজনে বাড়ি বিক্রি করে বিদেশ পাঠাতে চেয়েছিলাম। ২৪ মে ঘুমের ঔষুধ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। পরে চিকিৎসা দিয়ে আজকে বাড়িতে আনতেই কিছুক্ষণ পর ঘরে আত্মহত্যা করেছে। ভৈরব থানা অফিসার ইনচার্জ মো. সফিকুল ইসলাম জনান, হাসপাতাল থেকে মরদেহ থানায় আনা হয়েছে। পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *