• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৫:৩০ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

ঐতিহ্যবাহী লাঠিখেলার এখন চলছে দুর্দিন

ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলার একটি উত্তেজনাপূর্ণ মুহুর্ত -পূবকণ্ঠ

ঐতিহ্যবাহী লাঠিখেলার
এখন চলছে দুর্দিন

# মোস্তফা কামাল :-
লাঠি খেলা গ্রাম বাংলার এক আদি ঐতিহ্য। বিয়ের অনুষ্ঠান, বাগদান, নববর্ষ, জাতীয় দিবস, বিভিন্ন সংগঠনের সম্মেলন, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী, খৎনাসহ নানারকম অনুষ্ঠানে লাঠি খেলা একটি আবশ্যক আনন্দদায়ক উপষঙ্গ ছিল। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মত কিশোরগঞ্জ সদর আর কুলিয়ারচরের কয়েকটি এলাকায় লাঠি খেলার দল রয়েছে। এক সময় তাদের কাজের বেশ ব্যস্ততা থাকলেও এখন চলছে দুর্দিন। এখন ডিজিটাল সাউন্ড সিস্টেমে বড় বড় স্পিকার লাগিয়ে উচ্চ স্বরে গানবাজনা বাজানো হচ্ছে। লাঠি খেলা গুরুত্ব হারাচ্ছে, অস্তিত্ব হারাতে বসেছে।
কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার চৌদ্দশত এবং বৌলাই এলাকায় রয়েছে শক্তিশালী লাঠি খেলা দল। চৌদ্দশত এলাকার লাঠি খেলা দলের প্রধান মোহাম্মদ আলী জানিয়েছেন, তাদের পূর্বপুরুষরা এখানে লাঠি খেলা চালু করেছিলেন। এরাও প্রায় ৩৫ বছর ধরে লাঠি খেলা দেখিয়ে যাচ্ছেন। একটি অনুষ্ঠানে ১০ জনের একটি দল নিয়ে গেলে কমপক্ষে ২০ হাজার টাকার মত পাওয়া যায়। এই দলে লাঠিয়াল যেমন থাকেন, থাকেন বাদক দলও। এক সময় মাসে অন্তত ১০টি অনুষ্ঠানে ডাক পেতেন। এখন মাসে দুটিও পান না। যে কারণে তাঁরা বিকল্প পেশায় চলে যাচ্ছেন। লাঠি খেলার মত একটি আদি গ্রামীণ সংস্কৃতির ভবিষ্যত হুমকির মুখে পড়েছে।
লাঠি খেলোয়ড়রা লাঠি চালনার এমন সব কারসাজি আর মুন্সিয়ানা দেখান, যেন চোখের পলকে প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়ের দিকে আঘাত করে বসেন। আবার প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়ও দক্ষতায় কম যান না। মুহুর্তে তাঁর হাতের লাঠি দিয়ে আঘাত ফিরিয়ে প্রত্যাঘাত করে বসেন। তবে হাতের এমনই এক অবিশ্বাস্য ভারসাম্য তাঁরা রপ্ত করেছেন, কখনই আঘাতটি সজোরে লাগবে না। কোন খেলোয়াড়ই বড় কোন ব্যথা পাবেন না। বিশেষ পোষাক পরে পায়ে ঘুঙুর বেঁধে বাদ্যের তালে তালে কোমর দুলিয়ে নেচে নেচে তাঁরা লাঠি খেলা প্রদর্শন করেন। সঙ্গে কৌতুকও প্রদর্শন করেন। এ যেন এক অপার সৌন্দর্যের আবহ তৈরি করে।
লাঠি চালনার পাশাপাশি তাঁরা নানা রকম লোমহর্ষক ক্রীড়া শৈলীও দেখান। একজনকে মাটিতে চিত করে শুইয়ে তার বস্ত্রহীন পেটের ওপর চালকুমড়ো রাখা হয়। এরপর একজন একটি লম্বা রামদা নিয়ে এসে লাফ দিয়ে বসে এক কোপে সেটি দ্বিখণ্ডিত করে ফেলেন। পেটে একটি আঁচড়ও লাগে না। আবার এক ব্যক্তিকে মাটিতে শুইয়ে তার পেটের ওপর দুজন ধান ভানতে থাকেন। রকম লোমহর্ষক ক্রীড়া শৈলী দেখে উপস্থিত শত শত দর্শক শিহরিত হন। তুমুল করতালিও পড়ে।
শুক্রবার কিশোরগঞ্জ সদরের পত্রিকা হকার জহিরুল ইসলামের আউলিয়াপাড়া গ্রামের বাড়িতে বড় ছেলে মোছাব্বির হোসেন মুছার সুন্নতে খৎনা ছিল। দাওয়াত করে দুপুরে খাইয়েছেন প্রতিবেশিসহ কয়েকজন আমন্ত্রিত অতিথিকে। বিকালে আয়োজন করেছিলেন ঐহিত্যবাহী লাঠি খেলার। সদর উপজেলার চৌদ্দশত এলাকার মোহাম্মদ আলীর বাদক দলসহ লাঠি খেলোয়াড় দল সেখানে প্রদর্শন করে মনোমুগ্ধকর খেলা। এলাকার নানা বয়সের শত শত নারী-পুরুষ উপভোগ করেন এই দৃষ্টিনন্দন খেলা। জহিরুলের শ্বশুর বাড়ি লাঠি খেলোয়াড়দের একই গ্রামে। ফলে জহিরুলের শ্বশুরই নাতির খৎনা অনুষ্ঠানের জন্য ১৮ হাজার টাকায় দলটি পাঠিয়েছিলেন বলে জানালেন জহিরুল।
সেখানেই কথা হয় দল প্রধান মোহাম্মদ আলীর সঙ্গে। এ সময় তাঁদের দুর্দিনের চিত্র উঠে আসে। তিনি জানান, এই লাঠি খেলা এক ধরনের নির্মল আনন্দ দেয়। সমাজের সকল শ্রেণির মানুষকেই লাঠি খেলা বিনোদন দিয়ে থাকে। লাঠি খেলার খরচও আজকের বাজারে খুবই কম বলে তিনি মনে করেন। কাজেই এই শিল্পটিকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য সবাই যেন সহযোগিতার হাত বাড়ান, মোহাম্মদ আলী সেই আহবানই জানিয়েছেন সকলের প্রতি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *