• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৪:৪৫ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

ভৈরবে ত্রিবেণী সেতু এলাকায় পর্যটকদের উপচে পড়া ভিড়

# মিলাদ হোসেন অপু :-
কিশোরগঞ্জ ভৈরবে ত্রিবেণী সেতু মেঘনার পাড় বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষদের উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে।
টানা ৬ দিনের ছুটিতে আজ তৃতীয় দিনে পর্যটকে মুখরিত হয়ে উঠেছে ত্রি-সেতু এলাকা। ঈদ উল ফিতর ও পয়লা বৈশাখের ছুটি ভ্রমণ পিপাসু মানুষদের আনন্দের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছে। শহীদ হাবিলদার রেলসেতু, রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান রেল সেতু ও সৈয়দ নজরুল ইসলাম সড়ক সেতু দাঁড়িয়ে আছে মেঘান নদীর উপর। উৎসুক জনতা এই ত্রি সেতুর সুন্দর্য অবলোকন করতে মেঘনার পাড় ভিড় করে। থৈ থৈ স্বচ্ছ পানি দেখতে নদীর কিনারায় বসে বসে যুঘলরা আড্ডায় মগ্ন হচ্ছেন। মানুষের আগমনকে কেন্দ্র করে নদীর পাড় গড়ে উঠেছে ছোট বড় ৫ শতাধিক দোকান। এদিকে পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কাজ করছে পুলিশ ও র‍্যাব সদস্যরা।
স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, কিশোরগঞ্জ ভৈরব ও ব্রাহ্মণ বাড়িয়ার আশুগঞ্জ প্রান্তকে যুক্ত করতে ব্রিটিশ আমলে শহীদ হাবিলদার আবদুল হালিম রেলওয়ে সেতুটি নির্মিত হয়। তখন থেকেই বিভিন্ন জেলা উপজেলার পর্যটকরা বিভিন্ন উৎসবে এখানে এসে ভিড় করে। তবে মহাড়কের গাড়িগুলো পাড় হতো ফেরি দিয়ে। ফেরিঘাটে গাড়ির ভিড় ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের গুরুত্ব বিবেচনা করে সরকার ২০০২ সালে রেলসেতুর পাশে নির্মাণ করে সড়ক সেতু। সেতুটির নাম সৈয়দ নজরুল ইসলাম সেতু। সেতুটি উদ্বোধন হওয়ার পর মেঘনাপাড় দর্শনার্থীদের আসা যাওয়ার আগ্রহ বেড়ে যায়। এর মধ্যে ২০১৭ সালে উদ্বোধন করা হয় রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান রেলওয়ে সেতু নামে আরও একটি সেতু। সেতু তিনটি ঘিরে মেঘনা পাড়ের আকর্ষণ আরও বেড়ে গেছে।ত্রিবেণী সেতু এক সাথে দেখতে বিভিন্ন উৎসবে লাখো পর্যটক ভিড় করে প্রতিনিয়ত। ঈদে প্রায় এক সপ্তাহ পর্যন্ত এই স্থানে উৎসবের আমেজ থাকে। এছাড়া পয়লা ফাল্গুন, ভালোবাসা দিবস ও পয়লা বৈশাখের দিনগুলোতেও ত্রি-সেতুর পাড় উৎসবের মাত্রা বেড়ে যায়।
সরেজমিনে মেঘনার পাড় ঘুরে দেখা যায়, উৎসুক জনতা তাদের পরিবার নিয়ে মেঘনার পাড় বসে আছে। কেউ কেউ স্বচ্ছ পানি দেখতে কিনারায় বসেছে। কেউ কেউ ব্যস্ত সেলফি ও ফটো স্যাশনে। আবার কেউ ভিড় করছে ফুসকার দোকানে ও মটকা চায়ের দোকানে। কেউ আবার মেতে উঠেছে নাগর দোলাতে, চড়কি, মিনি ট্রেনে ও ওয়াটার রাইডে। তবে উঠতি বয়সের ছেলে মেয়েদের উপস্থিতি ছিল লক্ষনীয়।
এ বিষয়ে কথা হয় শিক্ষার্থী সিনথিয়ার সাথে। ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে পরিবারের সাথে এসেছে মেঘনার পাড়ে। এখানে মানুষের ঢল তাই দাড়ানোর জায়গা পাওয়া যাচ্ছে না। বাড়ির পাশে এত বড় নদী পাওয়া ভাগ্য ছাড়া আর কিছু নয়। তার উপর আবার তিন সেতু এক সাথে মেঘনার পাড়ের সুন্দর্য বাড়িয়ে তুলেছে বহুগুণ।
ঢাকা থেকে বাড়িতে আসা শফিক মিয়া বলেন, যানজটের শহর ছেড়ে ভৈরবে পরিবারের সাথে ঈদ করতে এসেছেন তিনি। মেঘনার সুন্দর্য যত দেখেন ততই মুগ্ধ হোন তিনি। পরিবারকে সময় দিতেই তিনি এখানে এসেছেন।
তবে তিনি অভিযোগ করে বলেন, দিন দিন মেঘনা নদীটি অবহেলা নষ্ট হচ্ছে। দর্শনার্থীরা চিপসের প্যাকেট, খালি বোতলসহ বিভিন্ন আবর্জনা ফেলে নদীটি নষ্ট করছেন। পৌর কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় প্রশাসনের বাড়তি নজরধারী থাকলে মেঘনার পাড়কে আরো আকর্ষনীয় ভাবে গড়ে তুলতে পারবেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *