• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৫:০১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ক্রীড়া দিবসে আলোচনা

বক্তব্য রাখছেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী মহুয়া মমতাজ -পূর্বকণ্ঠ

জাতীয় ও আন্তর্জাতিক
ক্রীড়া দিবসে আলোচনা

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
কিশোরগঞ্জে জতীয় ও আন্তর্জাতিক ক্রীড়া দিবসের আলোচনা সভা হয়েছে। আজ শনিবার সকালে কালেক্টরেট সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ‘ক্রীড়াঙ্গনের উন্নয়ন, শেখ হাসিনার দর্শন’ প্রতিপাদ্য নিয়ে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী মহুয়া মমতাজের সভাপতিত্বে ও জেলা ক্রীড়া কর্মকর্তা নূর এ এলাহির সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন সহকারী কমিশনার এসএম মেহেদী হাসান, কিশোরগঞ্জ মহকুমা ফুটবল দল ও সাবেক বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলা ফুটবল দলের অধিনায়ক লায়েক আলী, জেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের সহসভাপতি একেএম ফারুক, সাংবাদিক মোস্তফা কামাল, আলম সারোয়ার টিটু, জেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের সহসভাপতি হাবিবুর রহমান সজল, সরযূ বালা সরকারী বালিকা বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক মো. মাহফুজুল হক, আরজত আতরজান উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক মো. আব্দুল্লাহ, রেফারি এসোসিয়েশনের কর্মকর্তা শামীম খান প্রমুখ।
আলোচকগণ বলেন, এক সময় এ জেলায় জমজমাট ফুটবল খেলা হতো। শহরের পুরাতন স্টেডিয়ামে প্রতি বছর জমজমাট লীগ খেলা হতো। আন্তঃউপজেলা ফুটবল টুর্নামেন্ট হতো। আন্তঃমহকুমা ফুটবল টুর্নামেন্ট হতো। দর্শকে স্টেডিয়ামে জায়গা হতো না। ঢাকার প্রথম বিভাগের ফুটবলাররা এখানে খেলতে আসতেন। সেই ঐতিহ্য হারিয়ে গেছে। খেলাধুলার আয়োজন কমে গেছে। অনেক পুকুর ভরাট হয়ে গেছে। শিশুরা প্রতিযোগিতার জন্য সাঁতার শিখতে পারছে না। ক্লাবগুলোকে সক্রিয় করার ওপর বক্তাগণ জোর দিয়েছেন। সেই সাথে ক্রীড়া সংস্থার একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনেরও দাবি জানিয়েছেন।
তবে এখন আন্তর্জাতিক পরিসরের ক্রীড়াঙ্গনে বাংলাদেশ ভাল করছে জানিয়ে বক্তাগণ বলেন, ক্রীড়া নিয়ে সামাজিক মানসিকতায়ও ইতিবাচক পরিবর্তন এসেছে। এক সময় মেয়েরা ফুটবল খেলবে, ক্রিকেট খেলবে, একথা ভাবাই যেত না। এখন মেয়েরা আন্তর্জাতিক পুরস্কার আনছেন। এক্ষেত্রে বক্তাগণ সরকারের ভূমিকারও প্রশংসা করেন। তবে জেলা-উপজেলা পর্যায়ে ক্রীড়াকে উৎসাহিত করার জন্য আর্থিক প্রণোদনা বাড়ানো দরকার বলেও বক্তাগণ উল্লেখ করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *