• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৪:৫৩ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
সবুজ ভৈরবের আয়োজনে এমবিশন পাবলিক স্কুলে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন ভৈরবে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে অবরোধের চেষ্টা, ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ করিমগঞ্জে বেড়েছে শিশু শ্রমিক করিমগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্নহত্যা নরসিংদী আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে সদ্য যোগদানকারী জেলা ও দায়রা জজকে সংবর্ধনা প্রদান বাজিতপুরে বর্জ্যরে বায়োগ্যাসে সাশ্রয় হচ্ছে জ্বালানি খরচ কোটা বিরোধীদের রাজাকার পরিচয়ের শ্লোগানের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন বাজিতপুরে চালককে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই নিজ মেয়েকে ধর্ষণ, বাবার মৃত্যুদণ্ড কিশোরগঞ্জে কোটা বিরোধী সংগঠনের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

মিঠামইনে পরকিয়ার জেরে স্বামী খুন, গ্রেপ্তার চারজন

 হত্যা মামলায় গ্রেপ্তারকৃত চার আসামী -পূর্বকণ্ঠ

মিঠামইনে পরকিয়ার জেরে
স্বামী খুন, গ্রেপ্তার চারজন

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
মিঠামইনে স্ত্রী পরকিয়ায় রাজি হননি। এর জন্য তাকে একদিন মারধর করা হয়। এসব নিয়ে স্বামী-স্ত্রীসহ পরিবারের সদস্যরা কাটখাল ইউপি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলামের কাছে বিচার প্রার্থী হয়েছিলেন। অভিযুক্ত চেয়ারম্যানের চাচাত ভাই হওয়ায় বিচার দূরে থাক, বিচার প্রার্থীদের গালাগাল করে তাড়িয়ে দেয়া হয়। বিচার চাওয়ার অপরাধেই মিঠামইনের কাটখাল ইউনিয়নের শান্তিপুর গ্রামের আব্দুল মালেককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। চেয়াম্যানসহ ১২ জনের নামে মামলা হলে আসামী মো. ওসমান মিয়া, মো. হুমায়ুন, সিরাজ মিয়া ও মো. নাদিফ মিয়া ওরফে নাদিমকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন মিঠামইন থানার ওসি আহসান হাবিব।
মামলার বিবরণে জানা যায়, শান্তিপুর গ্রামের মাছ ব্যবসায়ী আব্দুল মালেকের স্ত্রী সাহেদা বেগমকে প্রায়ই প্রতিবেশি আব্দুল মালেক প্রায়ই কুপ্রস্তাব দিতেন। সাহেদা বিষয়টি স্বামীসহ পরিবারের অন্যদের জানালে কাটখাল ইউপি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলামের কাছে বিচার চান। কিন্তু তিনি বিচার না করে উল্টো গালমন্দ করে বিচার প্রার্থীদের তাড়িয়ে দেন। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে আব্দুল মালেক তার সহযোগীদের নিয়ে ২৩ জানুয়ারি দুপুরে নিহত আব্দুল মালেকের বাড়িতে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা করে মারধর করে। স্ত্রী সাহেদা আটকাতে গেলে তাকেও মারধর করা হয়। এক পর্যায়ে আব্দুল মালেককে মাটিতে ফেলে কয়েকজন গলা চেপে ধরলে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। পরে তাকে অটোরিকশায় করে হাসপাতালে নেয়ার পথে কাটখাল বাজারে আবার হামলা করা হয়। এরপর বাজরের এক চিকিৎসক নূরল আমিন পরীক্ষা করে মালেককে মৃত ঘোষণা করেন। লাশের ময়না তদন্ত করানো হয়েছে।
এ ঘটনায় নিহতের বড়ভাই আকবর আলী বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার মিঠামইন থানায় ইউপি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলামকে প্রধান ও হামলাকারী আব্দুল মালেককে ২ নং আসামী করে ১২ জনের নামে মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয় কাটখাল তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পরিদর্শক মুহাম্মদ শহীদুল ইসলামকে। বৃহস্পতিবার রাতেই মিঠামইন থানার ওসি আহসান হাবিব ও তদন্ত কর্মকর্তা শহীদুল ইসলামসহ অন্যান্য পুলিশ সদস্য হবিগঞ্জের আজমেরীগঞ্জ উপজেলার রায়লা এলাকা থেকে ওসমান মিয়া ও মো. হুমায়ুনকে গ্রেপ্তার করেন। আর মিঠামইনের বৈরাটি বাহেরচর এলাকা থেকে সিরাজ মিয়া ও নাদিমকে গ্রেপ্তার করা হয়। চারজনকেই শুক্রবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে ওসি আহসান হাবিব জানিয়েছেন। অন্যদেরও গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *