• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:৪৬ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

রাসূল (সা.) এর উম্মতের বৈশিষ্টাবলী ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

মহান আল্লাহ রব্বুল আলামীন বিশ্ব মানবতাকে তাঁর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য যুগে যুগে নবী ও রাসূল প্রেরণ করেছেন। যার ধারাবাহিকতা শেষ হয়েছে, বিশ^নবী মুহাম্মদ (সা.) এর মাধ্যমে। তাঁর আগমনে আল্লাহর মনোনীত দ্বীন ইসলামের পূর্ণতা ঘটেছে। মানবীয় অবয়বে মহান আল্লাহর পছন্দনীয় গুণাবলীর সর্বোচ্চ সমাহার ঘটেছিল তাঁর মধ্যে। এক কথায়, তিনি ছিলেন জীবন্ত কুরআন তথা কুরআনের সকল বিধি-বিধানের বাস্তব রূপ।
মহান আল্লাহ রব্বুল আলামীনের বাণী, আল্লাহর রঙে রঞ্জিত হও। (অর্থাৎ আল্লাহ তায়ালা তাঁর দ্বীন ইসলামে যে সকল আদেশ করেছেন তা যথাযথ ভাবে পালন কর আর যা নিষেধ করেছেন তা থেকে বিরত থাক)। আর রং এর দিক দিয়ে আল্লাহর চেয়ে কে অধিক সুন্দর? আর আমরা তাঁরই ইবাদতকারী। (সূরা বাকারা: ১৩৮)
এই আয়াতের পূর্ণ রূপকার ছিলেন বিশ^নবী মুহাম্মদ (সা.)। আমরা তাঁর মাধ্যমেই ঈমানের মত বড় নেয়ামত লাভ করেছি। সীমাহীন নির্যাতন সহ্য করে হেদায়েতের আলো মানুষের নিকট তিনি পৌঁছে দিয়েছেন বলে আমরা কুফরের অন্ধকার ও শিরকের কদর্যতা থেকে বের হওয়ার দিশা পেয়েছি। কাজেই এমন নবীর উম্মত হিসেবে আমাদের প্রতিও তাঁর এমন কিছু অধিকার রয়েছে, যা সঠিকভাবে আদায় করা সকলের জন্যই অবশ্যম্ভাবী। আর এগুলোই হলো রাসূল (সা.) এর উম্মতের বৈশিষ্টাবলী। যেমন-
১। রাসূল (সা.) এর নবুওয়াত ও রিসালাতের প্রতি ঈমান আনা। অর্থাৎ মহান আল্লাহ তায়ালা তাঁকে নবী ও রাসূল হিসেবে পাঠিয়েছেন, তাঁর মাধ্যমে নবুওয়াতের সমাপ্তি ঘটিয়েছেন। তাঁর নবুওয়াত ও রিসালাত সর্বজনীন, মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে তিনি যেই দায়িত্ব পেয়েছেন তা পরিপূর্ণভাবে আদায় করেছেন। তিনি দ্বীন হিসেবে আমাদেরকে যা শিক্ষা দিয়েছেন সবই সন্দেহাতীতভাবে নির্ভূল ইত্যাদি বিষয়গুলোর প্রতি যথাযথভাবে বিশ^াস স্থাপন করা। কেননা এই সকল বিষয়ে কুরআন ও হাদীসে অগণিত নির্দেশনা এসেছে। যেমন- আল্লাহ রব্বুল আলামীন বলেন, বল, হে মানবজাতি, নিশ্চয় আমি তোমাদের সকলের প্রতি আল্লাহর পক্ষ থেকে প্রেরিত রাসূল। (সূরা আ’রাফ: ১৫৮)
অন্যত্র এসেছে, নিশ্চয় আমি আপনাকে সমস্ত সৃষ্টি জগতের জন্য রহমত স্বরূপ প্রেরণ করেছি। (সূরা আম্বিয়া: ১০৭)
আল্লাহ তায়ালা আরো বলেন, অতএব তোমরা আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের এবং আমি যে নূর অবতীর্ণ করেছি তার প্রতি ঈমান আন। আর তোমরা যে আমল করছ আল্লাহ সে বিষয়ে সম্যক অবগত। (সূরা তাগাবুন: ৮)
২। রাসূল (সা.) এর মর্যাদায় বিশ^াসী হওয়া এবং তাঁকে ভালবাসা। তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ট মানুষ, মানবজাতির নেতা, নবী-রাসূলদের প্রধান। তিনি আল্লাহর প্রিয়তম বান্দা, তাঁর হাবীব। তিনি নিষ্পাপ ও সকল কলুষতা থেকে মুক্ত। নবুওয়ত প্রাপ্তির আগে ও পরে সর্বাবস্থায় আল্লাহ তাঁকে সকল পাপ ও অন্যায় থেকে রক্ষা করেছেন। এছাড়াও তিনি তাঁকে বিশেষ মর্যাদা দান করেছেন ইত্যাদি বিষয়ে বিশ^াস স্থাপন করা এবং পৃথিবীর সকল কিছুর থেকে তাঁকে সবচেয়ে বেশী ভালবাসা।
রাসূল (সা.) বলেছেন, আমি কিয়ামতের দিন আদম সন্তানদের সরদার হব এবং আমিই প্রথম ব্যক্তি যার কবর খুলে যাবে এবং আমিই প্রথম সুপারিশকারী ও প্রথম সুপারিশ গৃহীত ব্যক্তি। (মুসলিম: ৫৮৩৪)
অন্যত্র এসেছে, রাসূল (সা.) বলেছেন, তোমাদের কেউ প্রকৃত মুমিন হতে পারবে না, যতক্ষণ না আমি তার নিকট তার পিতা, তার সন্তান ও সব মানুষের অপেক্ষা অধিক ভালবাসার পাত্র হই। (বুখারী: ১৫)
৩। রাসূল (সা.) এর আনুগত্য ও অনুকরণ করা। একমাত্র তাঁর আনুগত্য ও অনুকরণের মাধ্যমেই আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন ও মুক্তি পাওয়া সম্ভব। তাঁর আনুগত্য ব্যতীত কোনভাবেই আল্লাহর সন্তুষ্টি, মুক্তি ও সওয়াব অর্জন সম্ভব নয়। তাই একজন ঈমানদারের দায়িত্ব হলো জীবনের সকল ক্ষেত্রে সার্বিকভাবে তার আনুগত্য করা। জীবনের সকল বিষয়ে, সকল ক্ষেত্রে, মহানবী (সা.) এর শিক্ষা, বিধান ও নির্দেশ দ্বিধাহীন চিত্তে মেনে নেওয়া। যেমন- নিজের চরিত্রকে রাসূল (সা.) এর চরিত্রের অনুকরণে গড়ে তোলা। কথা বলতে গিয়ে তাঁর মত সত্য কথা বলা। ওয়াদা ভঙ্গ না করা, মানুষের সাথে প্রতারণা না করা, উপার্জন করতে গিয়ে হারামের সাথে জড়িত না হওয়া, সুদ-ঘুষ বর্জন করা, জুলুম-অত্যাচার পরিত্যাগ করা, কারো প্রতি হিংসাত্মক মনোভাব না রাখা ইত্যাদি। তাঁর আনুগত্যের ব্যাপারে আল্লাহ তায়ালা বলেন, যে ব্যক্তি রাসূলের হুকুম মান্য করল সে আল্লাহরই হুকুম মান্য করল। (সূরা নিসা: ৮০)
৪। রাসূল (সা.) এর উপর দরূদ ও সালাম পাঠ করা। এই মর্মে আল্লাহ-তায়ালা বলেন, নিশ্চয় আল্লাহ (ঊর্ধ্ব জগতে ফেরেশতাদের মধ্যে) নবীর প্রশংসা করেন এবং তাঁর ফেরেশতাগণ নবীর জন্য দোআ করেন। হে মুমিনগণ, তোমরাও নবীর উপর দরূদ পাঠ কর এবং তাকে যথাযথভাবে সালাম জানাও। (সূরা আহযাব: ৫৬)
৫। রাসূল (সা.) এর শিখানো আদর্শ অটুট রাখা। রাসূল (সা.) যেই আদর্শ আমাদেরকে শিখিয়ে গেছেন তা মানুষের মাঝে যথাযথভাবে তুলে ধরা। এমনকি ছোট বাচ্চাদের হৃদয়েও রাসূল (সা.) এর প্রতি সম্মানবোধ জাগ্রত করার চেষ্টা করা। জীবনে কখনো রাসূল (সা.) এর আদর্শ বিরোধী কোন কিছু না বলা। কেননা আল্লাহ রব্বুল আলামীন বলেন, অতএব যারা তাঁর নির্দেশের বিরুদ্ধাচরণ করে তারা যেন তাদের উপর বিপর্যয় নেমে আসা অথবা যন্ত্রণাদায়ক আযাব পৌঁছার ভয় করে। (সূরা নূর: ৬৩)
উল্লেখিত আলোচনা থেকে আমরা রাসূল (সা.) এর উম্মতের মৌলিক কিছু বৈশিষ্টের কথা জানতে পারলাম। তাঁর উম্মত হিসেবে আমাদের সকলেরই উচিত উক্ত গুণাবলীসমূহ অর্জন করা। আল্লাহ আমাদের তাওফীক দিন। আমীন
প্রচারে: আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *