• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৫৭ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

কটিয়াদীতে জমে উঠেছে ঐতিহ্যবাহী ঢাকের হাট

ঢাকী আর বংশিবাদকরা তাদের দক্ষতা প্রদর্শন করছেন -পূর্বকণ্ঠ

কটিয়াদীতে জমে উঠেছে
ঐতিহ্যবাহী ঢাকের হাট

# মোস্তফা কামাল :-
সনাতন ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব। আর দুর্গোৎসবের অন্যতম অনুষঙ্গ হচ্ছে ঢাক। এই ঢাকীদেরই হাট বসেছে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলা সদরের পুরান বাজারে। এই ঐতিহ্যবাহী ঢাকের হাট প্রায় ৪শ বছরের পুরনো। আজ ২০ অক্টোবর শুক্রবার থেকে শুরু হচ্ছে ষষ্ঠী। আগামী মঙ্গলবার বিজয়া দশমীর দিন প্রতিমা বিজর্সনের মধ্যে দিয়ে সমাপ্ত হবে এবারে দুর্গোৎসব। বৃহস্পতিবারই শুরু হয়েছে ঢাকের হাটের যাত্রা।
এই হাটে প্রধানত মুন্সিগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলা থেকে ঢাকী আসেন। অন্যান্য বছর প্রায় দুশ ঢাকী আসলেও এবার এসেছেন শখানেক। কারণ হিসেবে ঢাকী এবং স্থানীয় পূজারিরা বলছেন, এবার মুন্সিগঞ্জ ও আশপাশের এলাকায় পূজার সংখ্যা বেড়েছে। এছাড়া গতবছর বিভিন্ন মণ্ডপে যেসব ঢাকী ঢাক বাজিয়েছেন, তাদের সঙ্গে মণ্ডপ কর্মকর্তারা মোবাইলে যোগাযোগ করে চুক্তি করে ফেলেছেন। সেই কারণে ঢাকের হাটে এবার ঢাকীর সংখ্যা কমে গেছে। প্রতি বছর বাইরের ঢাকীরা পূজার দুতিন দিন আগেই চলে আসেন। থাকেন হোটেল ভাড়া করে বা বিভিন্ন মন্দিরে।
তারা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত দল বেঁধে ঢাকের হাটে হাজির থাকেন। আর সারাদিনই ঢাক বাজিয়ে নিজেদের মুন্সিয়ানা জাহির করে বিভিন্ন পূজা মণ্ডপের কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলা ছাড়াও আশপাশের জেলা থেকেও পূজা মণ্ডপের কর্মকর্তারা কটিয়াদীতে আসেন ঢাকী দল ভাড়া করার জন্য। তারা ঢাকের বাদন আর ঢাকীর নাচন দেখে পছন্দ করেন কাকে নেবেন।
ঢাকের হাটে গিয়ে বৃহস্পতিবার দেখা গেছে, ঢাকীরা নানা রকম মুন্সিয়ানা দেখিয়ে ঢাক বাজিয়ে, আবার কেউ কেউ বাঁশি বাজিয়ে বিভিন্ন মণ্ডপের কর্মকর্তাদের আকৃষ্ট করছেন। ঢাক আর বাঁশির সুরে পুরো এলাকা ছিল মুখরিত। বিভিন্ন মণ্ডপের কর্মকর্তাদেরও ঢাকীদের সঙ্গে চুক্তি নিয়ে দরদাম করতে দেকা গেছে। ময়মনসিংহের ত্রিশালের বালিপাড়া এলাকার সজিব আচার্য এসেছিলেন তাদের পারিবারিক মণ্ডপের জন্য ঢাকী নিতে। তিনি মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগরের গৌরাঙ্গ চন্দ্র দাসের সঙ্গে পারিশ্রমিক নিয়ে কথা বলছিলেন। গৌরাঙ্গ দাস ২৪ হাজার টাকা দাবি করেছিলেন। সজিব আচার্য বলেছিলেন ১৫ হাজার টাকা। দামে মেলেনি, তাই চুক্তি হলো না।
বিক্রমপুরের বিনয় দাস এই হাটে আসছেন গত ২০ বছর ধরে। তিনি জানান, একজন ঢাকী সাধারণত ১৫ হাজার থেকে ১৬ হাজার টাকায় চুক্তি করেন। বিক্রমপুর থেকে আরও এসেছে বকুল দাসসহ তার সঙ্গীরা। তিনি জানান, অদক্ষ ঢাকী ৮ হাজার টাকায়ও চুক্তিতে যান। আবার দক্ষ ঢাকী হলে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত চুক্তি হয়।
ঢাকের হাটে সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করেন মুক্তিযোদ্ধা তপন কুমার ঘোষ। তাকে একটি টেবিলে খাতা নিয়ে বসে থাকতে দেখা গেছে। তিনি জানালেন, এখানে যেসব ঢাকী আসেন, তাদের নাম-পরিচয় আর মোবাইল নম্বর লিখে রাখা হয়। আর যেসব মণ্ডপ কর্মকর্তারা ঢাকী ভাড়া করতে আসেন, তাদের কাছ থেকে কিছু আর্থিক অনুদান রাখা হয়। ৩০০ থেকে এক হাজার টাকা পর্যন্ত দিয়ে থাকেন। এসব টাকা থেকে যেসব ঢাকী অসুস্থ হয়ে পড়েন, তাদের চিকিৎসা করানো হয়। তাদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। আবার কেউ যদি চুক্তি না পান, তাকে বাড়ি পাঠানোর ভাড়া দিয়ে দেয়া হয়। এখানকার ঐতিহ্যবাহী ঢাকের হাট প্রায় ৪০০ বছর ধরে বসছে বলে তিনি জানিয়েছেন।
এদিকে জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ভূপেন্দ্র চন্দ্র ভৌমিক জানিয়েছেন, এবার জেলার ১৩ উপজেলা ও ৮টি পৌরসভায় পারিবারিক ও সার্বজনীন ৪১১টি মণ্ডপে পূজা হচ্ছে। গতবছর হয়েছিল ৪২৪টি মণ্ডপে।
র‌্যাবের কোম্পানি অধিনায়ক স্কোয়ড্রন লিডার মো. আশরাফুল কবির জানিয়েছেন, অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার নিরাপত্তা ব্যবস্থা বেশি থাকবে। সার্বক্ষণিক র‌্যাবের টিম টহলে থাকবে। জেলা ও উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে সভা করে প্রায়োজনীয় পরামর্শ গ্রহণ করেছেন, তিনিও পরামর্শ দিয়েছে। সবাইকে ভিজিটিং কার্ড দিয়েছেন, যেন প্রয়োজনে যোগাযোগ করতে পারেন।
পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রাসেল শেখ জানিয়েছেন, এখন পর্যন্ত গোয়েন্দা তথ্যে সর্বত্রই পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। তিনি জেলা ও উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সঙ্গে পরামর্শ সভা করেছেন। প্রতিটি মণ্ডপে একজন পুলিশ ও ৬ জন আনসারসহ ৭ জন করে আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্য সার্বক্ষণিক মোতায়েন থাকবে। যেখানে বেশি লোকসমাগম হয়, সেখানে থাকবে ৯ জন। এছাড়া পুলিশের সার্বক্ষণিক টহলও থাকবে। কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। প্রতিটি মণ্ডপের কর্মকর্তাদের কাছে জরুরি নম্বর দেয়া আছে যেন প্রয়োজনে যোগাযোগ করতে পারেন।
জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ জানিয়েছেন, জেলা উপজেলা পর্যায়ে কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। প্রত্যেক মণ্ডপে সিসি ক্যামেরা স্থাপনের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ফায়ার সার্ভিসের টিম এবং মেডিক্যাল টিম করা হয়েছে। স্বোচ্ছাসেবক দলও থাকবে। এখন পর্যন্ত সবকিছু স্বাভাবিক রয়েছে। তারপরও এবার নিরাপত্তা ব্যবস্থা অন্যান্য বছরের তুলনায় কঠোর করা হয়েছে। প্রত্যেক মণ্ডপে পুলিশ ও পুরুষ আনসারের পাশাপাশি দুজন করে মহিলা আনসার থাকবেন বলেও তিনি জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *