• শনিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৮:৫৫ অপরাহ্ন |
  • English Version

ভৈরবে খাল খননের নামে অবৈধভাবে লোড ড্রেজারে বালু উত্তোলনের অভিযোগ যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে

# এম.আর রুবেল :-
ভৈরব উপজেলার শ্যামপুর এলাকায় মেঘনা নদীতে অবৈধভাবে লোড ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে এক যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত যুবলীগ নেতা অরুণ আল আজাদ তিনি ভৈরব উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহবায়ক।
স্থানীয় গ্রামবাসী লোকজন জানান, গত দেড় সপ্তাহ ধরে খাল খননের নামে শ্যামপুর এলাকায় মেঘনা নদী থেকে বালু উত্তোলন করে বাল্কহেড নৌকায় বালু বিক্রি করেছে প্রভাবশালী এক যুবলীগ নেতা অরুণ আল আজাদ।
এই কাজে সহযোগিতা করছেন আগানগর ইউনিয়ন পরিষদের ৯নং ওয়ার্ড মেম্বার রাশিদ মিয়া। খাল খননের দোহাই দিয়ে গত তিনদিন ধরে শ্যামপুর গ্রাম রক্ষা বাঁধের ৫০ গজ দূরে একটি ও ৫০০ গজ দূরে অন্য একটি লোড ড্রেজারে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছে। গ্রামবাসী কয়েক বার বাধা দিলেও বালু উত্তোলন বন্ধ করে না ওই যুবলীগ নেতা। পরে এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে ৬ সেপ্টেম্বর বুধবার দুপুরে শ্যামপুর গ্রামবাসী লাঠিসোঁটা নিয়ে বালু উত্তোলনকারী ড্রেজারকে ধাওয়া করলে ড্রেজার নিয়ে পালিয়ে যায় ড্রেজারে কর্মরত শ্রমিকরা।
অভিযুক্ত ওই প্রভাবশালী যুবলীগ নেতা বিভিন্ন মহলকে ম্যানেজ করে অবৈধ উপায়ে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছেন বলে স্থানীরা অভিযোগ করেন।
গ্রামবাসীরা আরও জানান, শ্যামপুর গ্রামটি ভৈরব উপজেলার একটি অবহেলিত গ্রাম। কোনো রাস্তা না থাকায় বর্ষাকালে নৌকা ছাড়া ঘর থেকে বের হওয়ার কোন উপায় নেই। বর্ষা ছাড়াও কাদা মাটি দিয়ে হেঁটে প্রয়োজনীয় কাজে গকুলনগর বাজার, আনন্দ বাজার ও ভৈরবে শহরে আসতে হয় তাদের। ওই গ্রাম রক্ষায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো. সায়দুল্লাহ মিয়া ও স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নাজমুল হাসান পাপনের উদ্যোগে একটি বাঁধ নির্মাণ করা হয়। কিন্তু কিছু অসাধু প্রভাবশালী ব্যক্তি বাঁধের পূর্বপাড়ের ৫০ গজ দূরে ড্রেজার লাগিয়ে বালু উত্তোলন করায় নদী গর্ভে বিলীনে হুমকির মুখে পড়েছে গ্রামটি। অবহেলিত এই গ্রামটি রক্ষায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্থানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন নিরীহ গ্রামবাসী।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত বছর পানি উন্নয়ন বোর্ডের খাল খনন প্রকল্পের আওতায় শ্যামপুর মেঘনা নদীর মোহনা থেকে আগানগর পর্যন্ত (খনন যন্ত্র) এক্সাভেটর দিয়ে খাল খননের কথা থাকলেও গুডম্যান নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সময়মতো কাজ শেষ না করায় নতুন করে ওই প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানো হয়। এই বর্ষার মৌসুমে ভেকোর পরিবর্তে যত্রতত্রভাবে লোড ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করে বাল্কহেড নৌকায় বিক্রি করছেন তারা। অবৈধ বালু উত্তোলনের কারণে গ্রামটি নদী গর্ভে বিলীন হওয়ার শঙ্কায় শ্যামপুর গ্রামবাসীর মধ্যে তীব্র ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।
এ বিষয়ে আগানগর ইউনিয়ন পরিষদ মেম্বার রাশিদ মিয়া জানান, আমি যুবলীগের রাজনীতি করায় নেতা অরুণ ভাই আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন জায়গাটা ড্রেজারের লোকজনকে দেখিয়ে দেয়ার জন্য। অরুণ ভাই বলেছে কাগজপত্র সব লিগ্যাল আছে, তাই আমি গিয়েছিলাম। ড্রেজারে বালু উত্তোলন এখন বন্ধ রয়েছে।
এ বিষয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি উপজেলা যুবলীগ যুগ্ম-আহবায়ক অরুণ আল আজাদ বলেন, সরকারি নিয়মনীতি মেনে বরাদ্দ পাওয়া খাল খননের কাজটি আমরা করছি। কাগজপত্র সব ঠিক আছে। গুডম্যান নামে টাঙ্গাইলের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের হয়ে আমরা খাল খননের কাজটির সময় মতো সমাপ্ত করতে না পারায় নতুন করে সময় বৃদ্ধি করা হয়েছে। পরীক্ষামূলকভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করছি মূলত খাল খননের জন্য। বালু বিক্রির অভিযোগটি সঠিক নয়। আমাদের একটাই ভুল হয়েছে উত্তোলনকৃত বালু নিলামের কাজটি শেষ না করে ড্রেজার লাগানো। এলাকার জনগণ বাধা দেয়ায় আমরা বালু উত্তোলন বন্ধ করে দিয়েছি।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান সবুজ বলেন, শ্যামপুরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের যে কাজটি চলমান রয়েছে, সেটি একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া। গত ১ বছর আগে কাজটি শুরু হয়েছিল। কিন্তু ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজটি সময়ের মধ্যে সমাপ্ত করতে পারেনি। পরে তারা কাজের মেয়াদ বাড়িয়ে নিয়ে আসেন। আমাকে তারা বিষয়টি অবগত করলে, আমি তাদের বলেছি বিধি অনুযায়ী যেভাবে খাল খনন করার কথা, ঠিক সেভাবেই যেন খনন করে।
সম্প্রতি একটি অভিযোগ পেয়েছি, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এক্সাভেটর দিয়ে না কেটে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করতেছে। যেটা বালু ব্যবস্থাপনা আইনে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। ড্রেজারে বালু উত্তোলন করতে হলে অবশ্যই সরকারের অনুমতি নিতে হবে। ইতিমধ্যে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে সতর্ক করেছি, সিডিউলে যেভাবে নিয়ম রয়েছে, সেভাবেই যেন কাটেন। এর বাহিরে যদি অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের চেষ্টা করে তাহলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *