• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৬:০৩ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
সবুজ ভৈরবের আয়োজনে এমবিশন পাবলিক স্কুলে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন ভৈরবে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে অবরোধের চেষ্টা, ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ করিমগঞ্জে বেড়েছে শিশু শ্রমিক করিমগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্নহত্যা নরসিংদী আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে সদ্য যোগদানকারী জেলা ও দায়রা জজকে সংবর্ধনা প্রদান বাজিতপুরে বর্জ্যরে বায়োগ্যাসে সাশ্রয় হচ্ছে জ্বালানি খরচ কোটা বিরোধীদের রাজাকার পরিচয়ের শ্লোগানের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন বাজিতপুরে চালককে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই নিজ মেয়েকে ধর্ষণ, বাবার মৃত্যুদণ্ড কিশোরগঞ্জে কোটা বিরোধী সংগঠনের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

গিফট বা উপহার কিভাবে হারাম হয় ; সংকলনে- ডা. এ.বি সিদ্দিক

নিঃস্বার্থভাবে ও আন্তরিকতার সাথে কাউকে পছন্দ করে কোন কিছু দেওয়ার নাম গিফট বা উপহার। আর পারস্পরিক উপহার বিনিময় করা সামাজিক একটি রীতি। এতে একজনের প্রতি আরেকজনের সম্প্রীতি ও ভালবাসা তৈরী হয়। সামাজিক বন্ধন মজবুত হয়। অন্তরের কলুষতা দূরীভূত হয়। পারস্পরিক সম্পর্ক মধুর হয়। তাছাড়া উপহার বা হাদিয়া বিনিময় করা বিশ^নবী মুহাম্মদ (সা.) এর আদর্শও বটে। কেননা তিনি নিজে তাঁর সাহাবীদেরকে গিফট দিতেন এবং সাহাবীরাও তাঁর নিকট বিভিন্ন উপঢৌকন পাঠাতেন। তাইতো রাসূল (সা.) এর হাদীসে এসেছে, তিনি বলেন, তোমরা পরস্পর উপহারাদি বিনিময় করো, (এতে) তোমাদের পারস্পরিক মহব্বত সৃষ্টি হবে। (আদাবুল মুফরাদ: ৫৯৭)
আবার কেউ যাতে কারো উপহারকে তুচ্ছ মনে না করে সেই জন্য তিনি বলেন, হে মুসলিম নারীগণ! কোন মহিলা প্রতিবেশিনী যেন অপর মহিলা প্রতিবেশিনীর উপহার তুচ্ছ মনে না করে, এমনকি তা ছাগলের সামান্য গোশতযুক্ত হাড় হলেও। (বুখারী: ২৫৬৬)
অন্যত্র এসেছে, রাসূল (সা.) বলেছেন, যদি আমাকে হালাল পশুর পায়া বা হাতা খেতে ডাকা হয়, তবু তা আমি গ্রহণ করব, আর যদি আমাকে পায়া বা হাতা হাদিয়া দেয়া হয়, আমি তা কবুল করব। (বুখারী: ২৫৬৮)
উল্লেখিত হাদীসগুলো থেকে বুঝা যায় যে, গিফট বা উপহার যত ক্ষুদ্রই হোক, এমনকি তা হালাল প্রাণীর পায়ের অংশ হলেও তাকে ঘৃণা বা ছোট মনে করা যাবে না। পাশাপাশি এটাও বুঝা যায় যে, হাদিয়া বা উপহার বিনিময় করা একটি সুন্নতী কাজ। তবে কখনো এই উপহার বিনিময় করাটাই হারাম হয়ে যায়। যেমন-
১। উপহারদাতার আয়ের উৎস হারাম হলে। অর্থাৎ উপহারদাতার উপার্জন যদি হারাম হয়, আর এই অবৈধ উপার্জনের টাকা-পয়সা দিয়ে উপহার দেয়, তবে তা হারাম হবে। জানা থাকলে এসব উপহার নেয়া নাজায়েজ। আবার উপহারদাতার উপার্জন যদি সরাসরি হারাম না হয়ে হালাল হারাম সংমিশ্রণের কারণে সন্দেহযুক্ত হয়, তাহলেও এমন ব্যক্তির উপহার গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। কেননা রাসূল (সা.) বলেছেন, নিশ্চয়ই হালাল স্পষ্ট এবং হারামও স্পষ্ট, আর এ উভয়ের মাঝে রয়েছে সন্দেহজনক বিষয়, অনেক লোকই সেগুলো জানে না। যে ব্যক্তি এসব সন্দেহজনক বিষয় থেকে দূরে থাকে সে তার দ্বীন ও মর্যাদাকে নিরাপদে রাখে, আর যে লোক সন্দেহজনক বিষয়ে পতিত হবে সে হারামের মধ্যেই লিপ্ত হল। (মুসলিম: ৩৯৮৬)
২। উপহারের জিনিস হারাম হলে। অর্থাৎ যেই জিনিসটি উপহার হিসেবে দেয়া হবে, ঐ মূল বস্তুটিই হারাম হলে উপহার বিনিময় হারাম হবে। কেননা আল্লাহ রব্বুল আলামীন বলেন, হে মানুষ, যমীনে যা রয়েছে তা থেকে হালাল, পবিত্র বস্তু আহার কর এবং শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করো না। নিশ্চয় সে তোমাদের প্রকাশ্য শত্রু। (সূরা বাকারা: ১৬৮)
৩। পদবীর অধিকারী ব্যক্তির উপহার গ্রহণ। অর্থাৎ সাধারণ মানুষের উপকার সংশ্লিষ্ট কোন পদে কেউ যদি অধিষ্ঠিত হন, তাহলে তার জন্য নিজের মাহরাম আত্মীয়, যারা তাকে এ পদ লাভ করার আগে থেকেই হাদিয়া দিত তারা এবং কোন উপকৃত হওয়ার উদ্দেশ্য ব্যতীত তার পদের চেয়ে উপরের পদবীধারী ব্যতীত অন্য কোন মানুষ থেকে উপহার গ্রহণ করা জায়েজ নয়। আবূ হুমায়দ সাঈদী (রা.) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী (সা.) আযদ গোত্রের ইবনু লুতবিয়্যাহ নামের এক লোককে সদকা সংগ্রহের কাজে নিযুক্ত করেছিলেন। তিনি ফিরে এসে বললেন, এগুলো আপনাদের আর এগুলো আমাকে হাদিয়া দেয়া হয়েছে। (তখন) রাসূল (সা.) বললেন, সে তার বাবার ঘরে কিংবা তার মায়ের ঘরে কেন বসে থাকল না। তখন সে দেখতে পেত, তাকে কেউ হাদিয়া দেয় কি দেয় না? যার হাতে আমার প্রাণ, সেই সত্তার কসম, এই ক্ষেত্রে কেউ যদি কিছু গ্রহণ করে তাহলে সে তা কাঁধে করে কিয়ামত দিবসে উপস্থিত হবে। (বুখারী: ২৫৯৭)
৪। সুপারিশ বা তদবির করে গিফট নিলে হারাম হবে। আবূ উমামাহ (রা.) হতে বর্ণিত, নবী (সা.) বলেন, কোন ব্যক্তি তার কোন ভাইয়ের জন্য কোন বিষয়ে সুপারিশ করার কারণে যদি সে তাকে কিছু উপহার দেয় এবং সে তা গ্রহণ করে তাহলে সে সুদের একটি বড় দরজা দিয়ে প্রবেশ করলো। (আবু দাউদ: ৩৫৪১)
৫। কারো উপর চাপ প্রয়োগ করে অথবা বাধ্য হওয়ার মতো পরিবেশ তৈরী করে উপহার নেওয়া জায়েজ নেই। যেমনটা বিয়েতে কনে পক্ষের উপর চাপ প্রয়োগ করে নেওয়া হয়, যেটাকে সহজ ভাষায় যৌতুক বলে। এই ক্ষেত্রে মহান আল্লাহ রব্বুল আলামীন বলেন, আর তোমরা নিজেদের মধ্যে একে অন্যের সম্পদ অন্যায়ভাবে খেয়ো না এবং মানুষের ধন-সম্পত্তির কিছু অংশ জেনে বুঝে অন্যায়ভাবে আত্মসাৎ করার উদ্দেশ্যে বিচারকদের কাছে পেশ করো না। (সূরা বাকারা: ১৮৮)
উপরোল্লিখিত আলোচনায় গিফট বা উপহার যেভাবে হারাম হয় তার ধরনগুলো তুলে ধরা হয়েছে। এখন আমাদের সকলেরই উচিত উপহার বিনিময়ের ক্ষেত্রে উল্লেখিত হারাম পদ্ধতিগুলো থেকে বেঁচে থাকা। আল্লাহ আমাদের সবাইকে এই সমস্ত হারাম থেকে বিরত রাখুন। আমীন
প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), ভৈরব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *