• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৪:৪৫ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
সবুজ ভৈরবের আয়োজনে এমবিশন পাবলিক স্কুলে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন ভৈরবে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে অবরোধের চেষ্টা, ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ করিমগঞ্জে বেড়েছে শিশু শ্রমিক করিমগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্নহত্যা নরসিংদী আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে সদ্য যোগদানকারী জেলা ও দায়রা জজকে সংবর্ধনা প্রদান বাজিতপুরে বর্জ্যরে বায়োগ্যাসে সাশ্রয় হচ্ছে জ্বালানি খরচ কোটা বিরোধীদের রাজাকার পরিচয়ের শ্লোগানের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন বাজিতপুরে চালককে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই নিজ মেয়েকে ধর্ষণ, বাবার মৃত্যুদণ্ড কিশোরগঞ্জে কোটা বিরোধী সংগঠনের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

‘বারি ওলকচু-১’ আবাদ ঘোচাবে রক্ত শূন্যতা

‘বারি ওলকচু-১’ আবাদ
ঘোচাবে রক্ত শূন্যতা

# মোস্তফা কামাল :-
কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় এবার পরীক্ষামূলক আবাদ হয়েছে কন্দাল ফসল (টিউবার ক্রপ) ওলকচু। ভূগর্ভস্থ কচুটিসহ পুরো গাছই পুষ্টিকর খাবার হিসেবে ব্যবহৃত হয়। পাকুন্দিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নূর-ই-আলম এমন তথ্যই জানালেন।
তিনি জানান, ওলকচুতে প্রচুর আয়রনসহ উচ্চ মাত্রার পুষ্টিগুণ রয়েছে। প্রসূতিসহ যারা রক্ত শূন্যতায় ভোগেন, তাদের জন্য এটি বেশ উপযোগী। তিনি পাকুন্দিয়ার বুরুদিয়া ইউনিয়নের কাগারচর ব্লকে কৃষক গাজী রহমানকে দিয়ে এবার ৩৩ শতাংশের প্রদর্শনী প্লটে ওলকচু আবাদ করিয়েছেন। এটি বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি) উদ্ভাবিত জাত ‘বারি ওলকচু-১’। প্রতিটি গাছে অন্তত ১০ কেজি ওলকচু হবে। এটি ৮ মাসের ফসল। এর কচি পাতা শাক বা ভর্তা করে খাওয়া যায়। এর ডাটা মাছ দিয়ে রান্না করা যায়। ভূগর্ভস্থ কচুটি মাছ বা মাংস দিয়ে খাওয়া যায়। পুরো গাছটিই পুষ্টিকর খাবার। এক কেজি ওলকচু বাজারে ৪০ থেকে ৫০ টাকা দরে বিক্রি হয়। এসব জমিতে তেমন যত্ন বা খরচ লাগে না। ফলে অর্থনৈতিক দিক থেকেও এটি কৃষকদের জন্য বেশ লাভজনক একটি ফসল।
ওই এলাকায় গেলে কৃষক গাজী রহমান জানান, তিনি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নূর-ই-আলম এবং কাগারচর ব্লকের দায়িত্বে থাকা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিপা রাণী দাসের উৎসাহে এবারই প্রথম ওলকচু চাষ করেছেন। জমিটি দেখে এখন তার খুবই ভাল লাগে। জমির কাছে আসলেই মনটা ভাল হয়ে যায়। তাঁর জমি দেখার জন্য প্রতিদিন বহু মানুষ আসেন। তারাও ওলকচু আবাদের জন্য উৎসাহ দেখাচ্ছেন। তাঁর কাছে অগ্রিম বীজ চেয়ে রেখেছেন। গত ১৬ এপ্রিল বীজ রোপন করা হয়েছে। চারমাস পর ওলকচু আহরণ করা যাবে বলে কৃষক জানিয়েছেন।
এদিকে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের সরেজমিন গবেষণা কেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জানিয়েছেন, এই প্রতিষ্ঠানটি ওলকচু, আলু, মিষ্টি আলু, শিমুল আলু, গাছ আলু, পানি কচু, মুখিসহ ১৪৪টি কন্দাল ফসলের নতুন জাত উদ্ভাবন করেছে। এর মধ্যে আলু সর্বাধিক ১০৬টি, মিষ্টি আলু ১৭টি, ওলকচু দুটি। ‘বারি ওলকচু-১’ প্রতি হেক্টরে ফলন হয় ৪৫ থেকে ৫৫ মেট্রিকটন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *