• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৬:৩১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

উপার্জন হালাল হওয়ার মূলনীতি ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

উপার্জন বলতে আয়-রোজগার, কামাই, লাভ প্রাপ্তি, সংগ্রহ ইত্যাদি বুঝায়। যাকে আরবীতে আল কাসব ও ইংরেজিতে ওহপড়সব বলা হয়। আর অর্থ উপার্জন হলো মানব জীবনের এক অবিচ্ছেদ্য অনুষঙ্গ। এটি মানুষের জীবন নির্বাহের অন্যতম চালিকাশক্তি হিসেবে সমাদৃত। কেননা মানুষের মৌলিক চাহিদা তথা অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা ও চিকিৎসা ইত্যাদি প্রয়োজন মিটাতে অবশ্যম্ভাবীভাবে যে জিনিষটির প্রয়োজন হয় সেটিই হচ্ছে অর্থ। আর মানুষের মৌলিক অধিকার সংরক্ষণের একমাত্র মাধ্যম অর্থের যোগান দিতেই তাকে বেছে নিতে হয় কৃষি, ব্যবসা-বাণিজ্য, চাকরি, শিল্পসহ ইত্যাদি সম্পদ উপার্জনের নানাবিধ পন্থা। আর ইসলাম যেহেতু আল্লাহ (সুব.) এর একমাত্র মনোনীত ও পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা, সেহেতু এতে মানুষের ঈমান-আক্বীদা থেকে শুরু করে ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ইত্যাদি সকল কিছুরই দিক নির্দেশনা রয়েছে। একদিকে জীবিকা উপার্জনের ক্ষেত্রে যথেষ্ট তাগিদ ও উৎসাহ প্রদান করা হয়েছে। অপরদিকে হালাল উপার্জনের ব্যপারে অত্যাধিক গুরুত্বারুপ করা হয়েছে। যেমন- আল্লাহ (সুব.) বলেন,
“অতপর যখন সালাত সমাপ্ত হয় তখন তোমরা জমিনে ছাড়িয়ে পড় এবং আল্লাহর অনুগ্রহ (জীবিকা) তালাশ কর। আর আল্লাহকে অধিক স্মরণ কর যাতে তোমরা সাফল্য লাভ করতে পার”। (সূরা জুমআ: ১০)
উক্ত আয়াতে আল্লাহ সুব. বান্দাকে জীবিকা উপার্জনের নির্দেশ দিয়েছেন। তাই বলা যায়, জীবিকা উপার্জন একটি আবশ্যকীয় বিষয়। যেহেতু উপার্জন ছাড়া পৃথিবীতে বসবাস করা সম্ভব নয়, অতএব, উপার্জন না করে ঘরে বসে থাকার কোন সুযোগ ইসলামে নেই। তবে হ্যাঁ উপার্জনের ক্ষেত্রেও ইসলামের কতিপয় মূলনীতি রয়েছে যা মানা অত্যাবশ্যক। যেগুলিকে সম্পদ উপার্জনের বা উপার্জন হালাল হওয়ার মূলনীতি বলা হয়। যথা:
১। মূলগতভাবে উপাজেয়বস্তুটি হালাল হওয়া। অর্থাৎ একজন মানুষ যা উপার্জন করবে সে উপার্জেয় বস্তুটি অবশ্যই হালাল ও পবিত্র হতে হবে। যেমন- ব্যবসার ক্ষেত্রে যেই জিনিষের ব্যবসা করবে তা (মূল ব্যবসাটাই) হালাল হতে হবে। কোন ধরনের হারাম জিনিষের ব্যবসা করা যাবে না। চাকরির ক্ষেত্রে যেই চাকরি করবে সেই চাকরিটা (মূল চাকরিটা) বৈধ হতে হবে। কোন হারাম চাকরি হলে হবে না। কৃষির ক্ষেত্রে যা চাষাবাদ করা হবে তা বৈধ ও পবিত্র হতে হবে। এরকমভাবে মূল শিল্প কারখানা বৈধ হতে হবে ইত্যাদি।
এই মর্মে মহান রাব্বুল আলামিন বলেন, “হে মানুষ, যমিনে যা রয়েছে তা থেকে হালাল পবিত্র বস্তু আহার কর এবং শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করো না। নিশ্চয় সে তোমাদের জন্য সুস্পষ্ট শত্রু। (সূরা বাকারা: ১৬৮)
২। উপার্জনের পদ্ধতি বৈধ হওয়া। অর্থাৎ যেই পদ্ধতি বা মাধ্যমে সম্পদ উপার্জন করা হবে তা অবশ্যই বৈধ হতে হবে। কেননা যাবতীয় অবৈধ উপায় ও পন্থায় অর্থ-সম্পদ উপার্জন করাকে ইসলামে নিষিদ্ধ করা হয়েছে এবং সকল প্রকার হারাম ও অবৈধ পন্থায় উপার্জনকারীকে বিভিন্নভাবে সতর্ক করা হয়েছে। এমনকি তার দু’আ কুবল না হওয়া, নেক আমল বাতিল হয়ে যাওয়া তার প্রতি আল্লাহর ক্রোধ বেড়ে যাওয়া, সর্বোপরি সে জাহান্নামের উপযোগী হয়ে যাওয়ার মত সর্বাত্মক ধরনের ক্ষতির কথা কুরআন-সুন্নাহতে বর্ণিত হয়েছে। যা আমরা ইতিপূর্বে বিগত জুমআর খুতবায় জানতে পেরেছি। তাই কোন ধরনের অবৈধ পন্থা বা উপায় যেমন, প্রতারনা, খিয়ানত, সুদ-ঘুষ, জুলাম-অত্যাচার, চুরি-ডাকাতি, মিথ্যা ইত্যাদির আশ্রয় নিয়ে অর্থ-সম্পদ উপার্জন করা যাবে না। কেননা এই মর্মে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেন, হে মুমিনগণ তোমরা একে অপরের সম্পত্তি অন্যায়ভাবে গ্রাস করো না। তবে পারস্পরিক সম্মতিতে ব্যবসার মাধ্যমে হলে ভিন্ন কথা। (সূরা নিসা: ২৯)
৩। উপার্জন আল্লাহর বিধান পালনে প্রতিবন্ধক না হওয়া। অর্থাৎ অর্থ-সম্পদ উপার্জন করার সময় এ বিষয়টি ভালভাবে খেয়াল রাখতে হবে তা যেন আল্লাহর স্মরণ থেকে গাফিল বা উদাসীন না করে এবং ফরয ইবাদত থেকে বিরত না রাখে। পাশাপাশি এটাও মাথায় রাখতে হবে যে, শুধু সম্পদ অর্জন করাই মহান আল্লাহর নৈকট্য লাভের মাধ্যম নয়। কেননা এই মর্মে আল্লাহ তায়ালা বলেন আর তোমাদের ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততি এমন বস্তু নয় যা তোমাদেরকে আমার নিকটবর্তী করে দেবে, তবে যারা ঈমান আনে ও নেক আমল করে তারাই তাদের আমলের বিনিময়ে পাবে বহুগুণ প্রতিদান। আর তারা (জান্নাতের) সু-উচ্চ প্রসাদে নিরাপদে থাকবে। (সূরা সাবা: ৩৭)
অন্যত্র এসেছে, হে মুমিনগণ! তোমাদের ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততি যেন তোমাদেরকে আল্লাহর স্মরণ থেকে উদাসীন না করে। আর যারা এরূপ করে তারাই তো ক্ষতিগ্রস্থ। (সূরা মুনাফিকুন: ৯)
৪। উপার্জনের ক্ষেত্রে ধৈর্যধারণ করা। অর্থাৎ উপার্জনে কম-বেশী হওয়াকে মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে পরীক্ষা স্বরূপ মনে করে ধৈর্য সহকারে অর্থ উপার্জন করতে হবে। কখনো ধৈর্যচ্যুত হয়ে অবৈধ রাস্তা অবলম্বন করা যাবে না। কেননা রাসূল (সা.) বলেছেন, হে মানবমন্ডলী! আল্লাহকে ভয় কর। আর জীবিকা অন্বেষণে মধ্যপন্থা অবলম্বন কর। জীবিকা আসতে দেরী হলে অবশ্যই আল্লাহর অবাধ্যতা করে তা অর্জন করো না। কেননা আল্লাহর আনুগত্য ব্যতীত তার নিকট যা আছে তা পাওয়া যায় না। (সিলসিলা ছহীহা: ২৬০৭)
অন্যত্র এসেছে, তোমরা উপার্জনের ক্ষেত্রে উত্তম পন্থা অবলম্বন করো। কেননা, কোন আত্মাই তার ভাগ্যে নির্ধারিত সর্বশেষ রিযিক অর্জন না করা পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করবে না। (ইবনে মাজাহ: ২১৪৪)
উপরোল্লিখিত আলোচনায় অর্থ-সম্পদ উপার্জনের মূলনীতি তুলে ধরা হয়েছে। হালালভাবে উপার্জন করতে হলে অবশ্যই এই মূলনীতিগুলো মেনেই উপার্জন করতে হবে।
পরিশেষে বলা যায় যে, ইসলামী শরীয়ত একদিকে যেমন ভাবে নিজ হাতে উপার্জন করার প্রতি উৎসাহ প্রদান করেছে, ঠিক তদ্রুপভাবে উপার্জন যেন সকল ধরনের অবৈধ ও অকল্যাণকর পথ হতে মুক্ত হয়ে বৈধ বা হালাল হয় সেই দিকেও গুরুত্বারোপ করেছে। এই মর্মে মহান রাব্বুল আলামিনের সরসরি নির্দেশ ও এসেছে। তাই প্রত্যেকটি মানুষের উচিৎ স্রষ্টার নির্দেশ মেনে উপার্জন হালাল হওয়ার মুলনীতিসমূহ অনুস্মরণ করে বৈধ বা হালাল পদ্ধতিতে অর্থ-সম্পদ উপার্জন করা। আল্লাহ আমাদের তাওফিক দিন। আমিন
প্রচারে ঃ আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), ভৈরব।

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *