• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৪:২৮ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

বাজিতপুরে ধর্ষণের অভিযোগে উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা

# বিশেষ প্রতিনিধি :-
কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে এক নারী আদালতে মামলা করেছেন। গত ২১ মে রোববার ওই নারী কিশোরগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২-এ মামলার আবেদন করলে আদালতের বিচারক মো. রেজাউল করিম আবেদনটি আমলে নিয়ে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।
বাদীপক্ষের আইনজীবী সিরাজুল ইসলাম ভূঁইয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। আবদুল্লাহ আল মামুন বাজিতপুর পৌর শহরের বাসিন্দা।
মামলার আরজিতে বলা হয়েছে, কয়েক বছর আগে মুঠোফোনে কথা বলার সূত্রে ওই নারীর সঙ্গে আওয়ামী লীগ নেতা মামুনের পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাঁদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর বিয়ের কথা বলে মামুন ওই নারীকে ধর্ষণ করেন। গত ৫ মার্চ সর্বশেষ ওই নারীর বাড়িতে গিয়ে মামুন ওই নারীকে দুইবার ধর্ষণ করেন। পরে ওই নারী বিয়ের জন্য মামুনকে চাপ দেন। পরে মামুন মৌলভি ডেকে এনে ওই নারীকে বিয়ে করেন। তবে ওই বিয়ের কোনো রেজিস্ট্রি করা হয়নি। এর পর থেকে রেজিস্ট্রির বিষয়টি মামুন এড়িয়ে যাচ্ছিলেন। একপর্যায়ে মামুন ওই নারীর সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ
করে দেন।
অভিযোগ বিষয়ে জানতে ২৪ মে বুধবার বিকেলে মামুনের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়। তাই এ বিষয়ে তাঁর বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
পিবিআই কিশোরগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার মো. শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘আবদুল্লাহ আল মামুনের বিরুদ্ধে করা ধর্ষণ মামলার তদন্তের দায়িত্ব পাওয়ার কথা শুনেছি। তবে আদালত থেকে এ-সংক্রান্ত নথিপত্র এখনো পাইনি।’
উল্লেখ্য, বাজিতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুনের বিরুদ্ধে এর আগেও অর্থ লেনদেনের বিরোধে ব্যবসায়ী হাজি মো. লায়েছকে হত্যার জন্য মামুন দুই লাখ টাকায় খুনি নিয়োগ করেছিলেন বলে অভিযোগে উঠে। খুনিরা ২০১৭ সালের ২৭ জুন রাতে বসন্তপুর এলাকায় লায়েছ ভেবে তার ঘুমন্ত ছোটভাই ব্যবসায়ী ওমর চাঁন সাচ্চুকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে। নিহতের ভাই মো. জামাল উদ্দিন বাদী হয়ে মামলা করলেও এতদিন হত্যা রহস্য অনুদঘাটিত ছিল। বছরখানেক আগে মামলাটি পিবিআই’র কাছে হস্তান্তর করা হলে সম্প্রতি দড়ি ঘাগটিয়া এলাকার নান্টু মিয়া ও ৪নং পৌর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আল আমিনকে গ্রেফতার করলে তারা আদালতে আব্দুল্লাহ আল মামুনের নির্দেশে দুই লাখ টাকার চুক্তিতে হত্যার বিষয়ে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন। স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে পিবিআই গত ২০২০ সালে ১২ নভেম্বর মামুনকে গ্রেফতার করে


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *