• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:১৫ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

পল্লীবিদ্যুতের ভৌতিক বিলের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

বিদ্যুৎ বিলের কাগজ নিয়ে গ্রাহকদের মানববন্ধন -পূর্বকণ্ঠ

পল্লীবিদ্যুতের ভৌতিক
বিলের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
ভৌতিক বিল করে গ্রাহকদের ওপর পল্লীবিদ্যুৎ জুলুম করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এপ্রিলের তুলনায় মে মাসে কোন কোন গ্রাহকের ৬ গুণেরও বেশি বিল এসেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মিটারের সঙ্গে বিলের কোন সামঞ্জস্য নেই বলে গ্রাহকরা অভিযোগ করেছেন। দরিদ্র গ্রাহকরা বিলের কাগজ নিয়ে ২৩ মে মঙ্গলবার দুপুরে মানববন্ধন করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে হোসেনপুর উপজেলার দক্ষিণ গোবিন্দপুর গ্রামে।
গ্রাহক বাচ্চু মিয়া (মিটার নম্বর ১৪৭৭৬৮৩০) জানান, এপ্রিলে তার ২০ ইউনিটের জন্য ১২২ টাকা বিল দেয়া হয়েছিল। কিন্তু মে মাসে ৯৫ ইউনিট বিদ্যুৎ ব্যবহার দেখিয়ে বিল দেয়া হয়েছে ৭৪৫ টাকা। শারীরিক প্রতিবন্ধী রিটন মিয়াকে (মিটার নম্বর ১৮০২৮৮৭২) মার্চ-এপ্রিল একসঙ্গে বিল দেয়া হয়েছিল ৩৪২ টাকা। কিন্তু মে মাসে বিল এসেছে ৬৭৯ টাকা। নূর ইসলামের (মিটার নম্বর ০০০৮৬৫১) ফেব্রুয়ারি-এপ্রিল তিন মাসে বিল এসেছিল ৬৫০ টাকা। কিন্তু মে মাসে বিল এসেছে ৫৫৮ টাকা।
এরকম অভিযোগ সিরাজ উদ্দিন, আতশ মিয়া, মদিনা আক্তার ও সোহরাব মিয়াসহ বহু গ্রাহকের। গ্রাহকরা জানান, এমনিতেই গ্রামে দীর্ঘ সময় বিদ্যুৎ থাকে না। এছাড়া গ্রামের মানুষ রাত ১০টা হলেই ঘুমিয়ে পড়েন। গ্রামের গ্রাহকরা অধিকাংশই গরিব। প্রতিটি পরিবার একটি বা দুটি বাল্ব আর একটি ফ্যান ব্যবহার করে। অনেক পরিবার কেবল একটি বাল্ব ব্যবহার করে। ফলে তারা বিদ্যুৎ ব্যবহার করে অনেক কম। কাজেই এই ভৌতিক বিল সংশোধনের জন্য ভুক্তভোগিরা কর্তৃপক্ষের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। সংশোধন না করলে তারা বিল দেবেনা বলে জানিয়েছেন।
এ ব্যাপারে পল্লীবিদ্যুতের মহাব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মো. জুলফিকারকে প্রশ্ন করলে বলেন, গত রমজানের কিছু বিল মে মাসের বিলে যুক্ত হয়ে থাকতে পারে। তার পরও এত বেশি বিল আসার কথা নয় মন্তব্য করে বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখবেন বলে জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *