• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৫:১৮ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

ধানের চেয়ে চাল সংগ্রহ বেশি, ক্রয়ের তথ্য নিয়ে গরমিল

# মন্তোষ চক্রবর্তী :-
সরকারি কৃষকদের কাছ থেকে ধান চাল সংগ্রহ শুরু হয়েছে। চলতি মাসের ৭ তারিখে আনুষ্ঠানিক ভাবে কৃষকদের কাছ থেকে ধান চাল সংগ্রহ উদ্বোধন করা হয়েছে। কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোনা, হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার পাঁচ জেলায় এবছর কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ করা হবে ৫৮ হাজার ৩৬১ মেট্রিক টন এবং চাল সংগ্রহ করা হবে ১ লাখ ৪ হাজার ৮১০ মেট্রিক টন পাঁচ জেলায় ধানের দ্বিগুণ। এদিকে সোমবার পর্যন্ত নেত্রকোনা জেলায় কোন ধান সংগ্রহ করতে পারেনি বলে জানা গেছে। এছাড়াও সম্প্রতি কিশোরগঞ্জে মধ্যস্বত্বভোগী ফড়িয়ার পরিবর্তে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করছে বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর ও কৃষক সংগঠন কিশোরগঞ্জ জেলা শাখা।
বক্তারা এই সময় বলেন, সরকার প্রতি মৌসুমে ধান কিনলেও কৃষক সরাসরি গুদামে দিতে পারেন না। ফড়িয়ারা সস্তায় কিনে গুদামে দেন। এতে কৃষকরা বঞ্চিত হয়। তাদের কাছ থেকে সরাসরি ধান কেনার জন্য ইউনিয়ন পর্যায়ে সরকারি ক্রয়কেন্দ্র খোলার দাবি জানান তাঁরা। একই সঙ্গে পল্লী রেশনিং ব্যবস্থা ও মাসে ৫ হাজার টাকা বয়স্ক ভাতা দেওয়ার দাবি জানানো হয়েছে।
সরকার এবার প্রতি কেজি ধানের দাম ৩০ টাকা নির্ধারণ করেছে। আন্দোলনকারীরা এ মূল্য প্রত্যাখ্যান করে ৪০ টাকা করার দাবি জানান। তাঁরা বলেন, সার, ডিজেলসহ কৃষি উপকরণের মূল্যবৃদ্ধিতে উৎপাদন খরচ বেড়েছে। প্রতি মণ ধানে খরচ পড়ে সাড়ে ১২শ টাকা। নিজেদের শ্রমের মূল্য তো ধরাই হয় না। লোডশেডিংয়ের কারণে ডিজেল দিয়ে সেচ চালাতে হচ্ছে। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে জীবনযাত্রার ব্যয়ও বেড়েছে। ১৬শ টাকা মণ দামে ধান বিক্রি করতে না পারলে কৃষিকাজে লাভ নেই।
হবিগঞ্জের জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক (ভারপ্রাপ্ত) চাই থোয়াই প্রু মার্মা জানান, এবছর হবিগঞ্জ জেলাতে ধান সংগ্রহ করা হবে ৬ হাজার ৬৫৯ মেট্রিক টন এবং চাল সংগ্রহ করা হবে ১৪ হাজার ৪২৪ মেট্রিক টন। এখন পর্যন্ত ধান সংগ্রহ করা হয়েছে ৩৫০ মেট্রিক টন এবং চাল সংগ্রহ করা হয়েছে ১ হাজার ৯১১ মেট্রিক টন।
সুনামগঞ্জ জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ মইনুল ইসলাম ভুঞা জানান, সুনামগঞ্জে এবছর কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ করা হবে ১৮ হাজার ৪৮৩ মেট্রিক টন এবং চাল সংগ্রহ করা হবে ৯ হাজার ৬৭৬ মেট্রিক টন।
মৌলভীবাজার জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জ্যোতি বিকাশ ত্রিপুরা জানান, এবছর মৌলভীবাজার জেলায় ধান সংগ্রহ করা হবে ৪ হাজার ৭৪৯ মেট্রিক টন এবং চাল সংগ্রহ করা হবে ৭ হাজার ১১২ মেট্রিক টন। এখন পর্যন্ত ধান সংগ্রহ করা হয়েছে ১২৭ মেট্রিক টন এবং চাল সংগ্রহ করা হয়েছে ১ হাজার ৯৬২ মেট্রিক টন।
এদিকে নেত্রকোনা জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক (ভারপ্রাপ্ত) মো. মোয়েতাছেমুর রহমান জানান, এবছর নেত্রকোনা জেলায় ১৫ হাজার ১৭৭ মেট্রিক টন এবং চাল ৬১ হাজার গত সোমবার পর্যন্ত কৃষকদের কাছ থেকে সোমবার পর্যন্ত কোন ধান সংগ্রহ করতে পারেনি তবে চাল ক্রয় হয়েছে ৪ হাজার মেট্রিক টনের উপরে। আনুষ্ঠানিক ভাবে গত ৭ তারিখ উদ্বোধন হয়েছে কিন্তু এখনো পর্যন্ত ধান ক্রয় করতে না পারার কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে? প্রশ্নের উত্তর তিনি এ প্রতিনিধিকে বলেন কৃষকদের আবেদনের কারনে কার্যক্রম চলমান। এদিকে কিশোরগঞ্জের হাওর অধ্যুষিত অষ্টগ্রাম, ইটনা ও মিঠামইন উপজেলা একাধিক কৃষকদের সঙ্গে আলাপ কালে এ প্রতিনিধিকে তারা জানান, সরকারি ভাবে ধান সংগ্রহ বেশ কয়েকদিন আগেই চালু হলেও স্থানীয় প্রভাবশালীদের কারনে এখনো সাধারণ কৃষক ধান দিতে পারছে না বলে জানান তারা। এই বিষয়ে মিঠামইন উপজেলা ভারপ্রাপ্ত খাদ্য কর্মকর্তা মো. আক্কাছ আলী জানান, সোমবার পর্যন্ত ৫৭ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ হয়েছে এবং অষ্টগ্রাম, ইটনা উপজেলা এখনো সংগ্রহের কাজ শুরু হয়নি বলেও জানান তিনি। এদিকে মিঠামইন উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক এবং অষ্টগ্রাম, ইটনার উপজেলা দায়িত্ব থাকা মো. আয়ুব রায়হানের কাছে ৩ উপজেলার তথ্য জানতে চাইলে তিনি বলেন মিঠামইন উপজেলা প্রায় ৭০ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ করা হয়েছে বাতি ২ উপজেলা তথ্য উনার কাছে নেই।
এই বিষয়ে অষ্টগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং উপজেলা ধান চাল সংগ্রহ কমিটির সভাপতি মো. হারুন অর রশিদ মুঠোফোনে জানান, আনুষ্ঠানিক ভাবে কয়েক দিন আগেই ধান সংগ্রহ উদ্বোধন করা হয়েছে।
এ বিষয়ে কিশোরগঞ্জের জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক নাজমুল হক ভূঁইয়া বলেন, কিশোরগঞ্জে ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৪ হাজার ৩০৩ টন। চালের লক্ষ্যমাত্রা ২২ হাজার ৫২ টন।
সোমবার পর্যন্ত জেলায় ধান সংগ্রহ করা হয়েছে ২শ মেট্রিক টনের মতো এবং চাল সংগ্রহ করা হয়েছে ৪শ মেট্রিক টনের মতো।
হাওর উপজেলা গুলোতে ধান সংগ্রহের তথ্য নিয়ে গরমিল এবং কৃষকদের অভিযোগ সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে এ প্রতিনিধিকে বলেন, তথ্য গরমিল থাকার কথা নয়, তারপর অনেক সময় হয়। আর সাধারণ কৃষক ধান দিতে পারছে না এমন কোন অভিযোগ আমাদের কাছে আসে নাই আর এর জন্য উপজেলা একটি কমিটি আছে তারপর আমাদের যতটুকু করার কথা আমরা চেষ্টা করব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *