• বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৪৩ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

ইজারাদারদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে ভৈরবের ব্যবসায়ীরা

# মিলাদ হোসেন অপু :-
বিআইডব্লিউটিএ ও আরো তিন দপ্তরের ইজারাদারদের বিরুদ্ধে ভৈরবে কয়লা ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। মেঘনা নদীর তীরবর্তী ঘাট ইজারার বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে রয়েছে ব্যবসায়ীরা। ২০ মে শনিবার ভৈরব মেঘনা ফেরীঘাট এলাকায় কয়লা ব্যবসায়ীসহ আরো ৩ ব্যবসায়ীক সংগঠন একত্রিত হয়ে একটি বিশাল সমাবেশ করেছে। সমাবেশে বক্তারা বিআইডব্লিওটিএ ৫০ গজ সীমানাকে ৫শ গজে রূপান্তরের বিষয়টি তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। বিআইডব্লিওটিএ থেকে নেয়া ইজারাদারদেরও ঘাটে চাঁদা না তোলার কঠোর হুশিয়ারী দিয়েছেন। সমাবেশে ভৈরব মৎস্য আড়ত মালিক সমিতি, স্থানীয় ট্রাক মালিক সমিতি, পংকু মিয়া কাচা বাজার সমিতির মালিক-শ্রমিকরা অংশ নেন।
ভৈরব নৈশ মৎস্য আড়ত মালিক সমিতির সভাপতি হাজী জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, ভৈরব পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোমেন মিয়া, ১০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. মনির হোসেন, ১১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. মানিক মিয়া, ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. ইব্রাহিম মিয়া, কাউন্সিলর মৌসুমী আক্তার বেলা, কয়লা ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সভাপতি সাজ্জাদ ইবনে সোলায়মান, ট্রাক মালিক সমিতির পক্ষ থেকে আসিবুদ্দৌল্লাহ আবু, বিষ্ণু সাহা, মৎস্য মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসেন, পংকু মিয়া বাজার সমিতির পক্ষে হাবিব মিয়া প্রমুখ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও ঘাটে কর্মরত শ্রমিকগণ। ইজারা ডাকের ৫০ গজের বাইরে কোন টোল দিবেনা বলে সমাবেশে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন ব্যবসায়ীক নেতারা।
ভৈরব মেঘনা ফেরিঘাটে বিআইডব্লিউটিএ’র ইজারা হয় গত ১৭ মে বুধবার। স্থানীয় যুবলীগ নেতা তমাল আহমেদ আগামী অর্থবছরের (২০২৩-২৪) এর জন্য ১৭ লাখ ১ হাজার টাকা দিয়ে ফেরিঘাটের ইজারা ডাক পায়। ঘাটের ৫শ গজ সীমানার মধ্য কয়লা, মাছ, সিমেন্টসহ যাবতীয় পণ্যের টোল আদায়ের নিয়ম রয়েছে ইজারাদারের চুক্তিপত্রে। কিন্তু ব্যবসায়ীরা সমাবেশে বিআইডব্লিটিএ’র জেডির ৫০ গজ সীমানার বাইরে টোল দিবেনা বলে প্রতিবাদ করে। এনিয়ে গত ১৬ মে মঙ্গলবার কয়লা ব্যবসায়ীরা মানববন্ধন সংবাদ সম্মেলন করে ফেরীঘাট এলাকায়।
সমাবেশে সভাপতি হাজী জয়নাল আবেদীন বলেন, আমরা ব্যবসায়ীরা বিআইডব্লিটিএ’র ইজারার টোল দিব ৫০ গজ সীমানার ভিতরে। কর্তৃপক্ষ অন্যায়ভাবে ৫শ গজ সীমানা কাগজে দেখিয়ে ইজারা দিয়েছে। আমরা এই সীমানা মানিনা।
কয়লা ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সভাপতি সাজ্জাদ ইবনে সোলায়মান সমাবেশে তার বক্তব্যে বলেন, ভৈরব মেঘনা ফেরিঘাটে কয়লা, সিমেন্ট, মাছ ব্যবসায় জড়িত আছে প্রায় ২ হাজার ব্যবসায়ী ও কর্মচারী। আর শ্রমিক আছে ১০ হাজার। ১২ হাজার লোকের কর্মসংস্থান এই ঘাটে। প্রতিমাসে এ ঘাটে শত শত কোটি টাকা লেনদেন হয়। সরকারকে আমরা বিভিন্নভাবে টোল প্রদান করি। এ ঘাটে বিআইডব্লিওটিএ ছাড়াও ৩ বিভাগের ইজারা রয়েছে। সরকারকে কত টোল দিব আমরা। ইজারার টোল দিতে দিতে আমরা হয়রানীর শিকার হচ্ছি।
ট্রাক মালিক সমিতির নেতা আসিবুদ্দৌল্লাহ বলেন, আমরা ব্যবসা নিয়ে শঙ্কিত। চার বিভাগকে টোল দিতে গিয়ে কয়লা সিমেন্ট ব্যবসা ধ্বংসের পথে।
পংকু মিয়া বাজার সমিতির নেতা হাবিব বলেন, আমরা ৫০ গজের বাইরে কোন টোল দিবনা। প্রয়োজনে ইজারাদারকে প্রতিহত করব।
সমাবেশে উপস্থিত নেতারা দৃঢ় কণ্ঠে বলেন, আমরা মরে যাব, কিন্তু অন্যায়ভাবে কোন টোল দিবনা।
বিআইডব্লিটিএ’র সদ্য ডাক পাওয়া ইজারাদার তমাল আহমেদ বলেন, আমি টেন্ডারে অংশগ্রহণ করে ইজারার ডাক পেয়েছি। চুক্তিপত্র অনুযায়ী ৫শ গজের মধ্যে আমি টোল আদায় করব। গত বছর কয়লা মালিক সমিতি নিজেরা বিআইডব্লিওটিএ’র ডাক পেয়ে ৫শ গজের মধ্য টোল আদায় করেছে। ইজারা দাখিলের আগে তারা আমাকে বাধা দেয়নি এবং জমা দেয়ার পরও কিছু বলেনি। আমি সরকারি নিয়ম মেনেই ইজারায় অংশগ্রহণ করেছি। এখন ব্যবসায়ীরা এক হয়ে প্রতিবাদে নেমেছে। কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা ও ইজারার চুক্তিপত্র অনুযায়ী আমি টোল আদায় করব। এটাই নিয়ম।
ভৈরব বিআইডব্লিউটিএ কার্যক্রম পরিচালনাকারী নারায়ণগঞ্জের পোর্ট ডাইরেক্টর সাইফুল ইসলাম জানান, ভৈরবের কয়লা ব্যবসায়ীদের আন্দোলনটি সম্পূর্ণ অযৌক্তিক ও অবৈধ। অসাধু কিছু ব্যবসায়ী তাদের স্বার্থ হাসিলের জন্য এ আন্দোলন করছে। সারা বাংলাদেশেই নদী শাসন করেন বিআইডব্লিউটিএ। ইতিমধ্যে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষদের সাথে নিয়ে ভৈরব মেঘনা ফেরীঘাট এলাকার ৪ দপ্তরের ইজারা নিয়ে দফায় দফায় আলোচনা হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ভৈরবে ৫০ গজ বিআইডব্লিউটিএ এর সীমানা ৫শ গজ করা হয়েছে। শুধু ৫শ গজ নয় বিআইডব্লিউটিএ চাইলে নদী এলাকা পুরোটাই ইজারা দিতে পারে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *