• মঙ্গলবার, ৩০ মে ২০২৩, ১০:৩২ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

রাষ্ট্র বা সমাজ থেকে দুর্নীতি, জুলুম-অত্যাচার দূর করার ক্ষেত্রে একজন মা ও স্ত্রীর ভূমিকা ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক

কবির ভাষায়,
বিশে^ যা কিছু মহান সৃষ্টি চির কল্যাণকর
অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর।
অর্থাৎ মানবসভ্যতার অগ্রগতির মূলে নারী ও পুরুষ উভয়েরই সম্মিলিত প্রচেষ্টা রয়েছে। এই পৃথিবীতে কল্যাণকর যা কিছুই হয়েছে, তার বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে নারীদের অবদান রয়েছে। কেননা সভ্যতাকে সাজাতে-গোছাতে পুরুষ দেয় শ্রম। আর তাতে অনুপ্রেরণা জোগায় নারী। এক কথায়, রাষ্ট্রের বা সমাজের উন্নতির জন্য পুরুষের পাশাপাশি নারীরও যে বিরাট ভূমিকা রয়েছে তা অনস্বীকার্য।
উল্লেখিত প্রসঙ্গটি নিয়ে কুরআন ও সুন্নাহর আলোকে যদি আলোচনা করা হয় তবে দেখা যাবে যে, মানব জাতির সৃষ্টির সূচনালঘ্ন থেকেই বিভিন্ন ক্ষেত্রে পুরুষদের পাশাপাশি নারীদেরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। যেমন- এই পৃথিবীতে মানুষের আবাদ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ বলেন, হে মানুষ, তোমরা তোমাদের রবকে ভয় কর, যিনি তোমাদেরকে সৃষ্টি করেছেন এক নফস থেকে। আর তা থেকে সৃষ্টি করেছেন তার স্ত্রীকে এবং তাদের থেকে ছড়িয়ে দিয়েছেন বহু পুরুষ ও নারী।
(সূরা নিসা: ১)
ইসলাম ধর্মে নারীদের অবস্থান নিয়ে আলোচনা করলে দেখা যাবে যে, মহাগ্রন্থ আল কুরআনের ১১৪টি সূরার মধ্যে একটি সূরার নামই হল নিসা (তথা রমণীগণ)। অন্য একটি সূরার নামকরণই হয়েছে নারীর নামে, যাকে সূরা মারইয়াম বলা হয়। তাছাড়া সূরা মুজাদালাহ, মুমতাহিনা, ত্বলাক, তাহরীম প্রভৃতি সূরাগুলো অবতীর্ণ হয়েছে নারীকে কেন্দ্র করেই। তাই একজন নারী চাইলেই সমাজ থেকে দুর্নীতি আর জুলুম-অত্যাচার দূর করার জন্য যথেষ্ট ভূমিকা পালন করতে পারে। কেননা এই পৃথিবীর প্রত্যেকটা মানুষই কোন না কোন নারীর সন্তান। বেশীরভাগ পুরুষ লোকই একজন নারীর স্বামী। এখন একজন স্ত্রী যদি তার স্বামীর জন্য ধর্মীয় বিধি বিধান পালনের ক্ষেত্রে সহযোগী হয়, তাহলে ওই স্বামী খুব সহজেই আল্লাহর হুকুম পালনে অভ্যস্থ হবে। ভাল কাজ করতে উৎসাহী হবে। স্ত্রী যদি স্বামীর দুর্নীতি ও অন্যান্য অন্যায় কাজকে প্রশ্রয় না দেয় তাহলে স্বামী খুব সহজেই দুর্নীতি ও অন্যের উপর জুলুম অত্যাচার করা থেকে নিজেকে বিরত রাখতে পারবে।
এরকমভাবে একজন মা যদি ছোটকাল থেকেই তার সন্তান সন্ততিকে উত্তম শিক্ষা প্রদান করে। উত্তম আদর্শের অধিকারী হওয়ার জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা করে। তবে আশা করা যায় যে, ছেলেমেয়ে উত্তম শিক্ষা পেয়ে আদর্শবান হিসেবে গড়ে উঠবে। কেননা মা-ই হল শিশুদের প্রথম মাদরাসা ও স্কুল এবং মহাবিদ্যালয়। তাই কথায় বলে,
মায়ের হাতেই গড়বে মানুষ মা যদি সে সত্য হয়,
মা-ই তো এ জগতে প্রকৃত বিশ^বিদ্যালয়।
একজন নারী যদি রাসূল (সা.) এর বাণী, স্ত্রী তার স্বামীর ঘর-সংসার এবং সন্তানের উপর দায়িত্বশীল। ক্বিয়ামতের দিন তাকে এ দায়িত্ব সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। (মুসলিম: ৪৬১৮)
এই হাদীসকে আমলে নিয়ে ছোটকাল থেকেই তার সন্তানদেরকে শিরক না করার, সালাত আদায় করার, অন্যকে ভাল কাজের আদেশ ও অন্যায় কাজ থেকে বিরত রাখার, অহংকার না করার, বিপদ-আপদে ধৈর্যশীল হওয়ার, কথা বলার সময় কন্ঠস্বর নীচু, সংযত ও নরম করার, জীবনে চলার পথে মধ্যমপন্থা অবলম্বন করার এবং ভাল-মন্দ সব কর্ম আল্লাহ দেখেন এবং এর হিসাব তিনি নিবেন এই শিক্ষার আলোকে বড় করেন। লজ্জাশীল হওয়ার, স্বভাব চরিত্র ভাল করার, সকল ধরণের হারাম উপার্জন ও জুলুম-অত্যাচার থেকে বিরত থাকার, মানুষদেরকে সাহায্য করার, পিতা-মাতার সেবা করার, মানুষকে অপমান না করার, প্রতিবেশীর খোঁজ-খবর নেওয়ার, সকল ধরণের মিথ্যাকে পরিহার করে সত্যের উপর অটল থাকার শিক্ষাসহ ইসলামী আদর্শ অনুযায়ী শিক্ষিত করার চেষ্টা করেন, তাহলে আশা করা যায় যে, সমাজ থেকে দুর্নীতি ও অন্যান্য অন্যায় অনেকটাই কমে যাবে ইনশাআল্লাহ।
পরিশেষে বলা যায় যে, পুরুষের অর্ধাঙ্গিনী এবং মায়ের জাতি হিসেবে সুন্দর রাষ্ট্র বা সমাজ গঠনে নারীর ভূমিকা অতুলনীয়। একজন মা ও স্ত্রী চাইলেই সমাজ থেকে দুর্নীতি ও জুলুম-অত্যাচার দূর করার জন্য যথেষ্ট ভূমিকা পালন করতে পারেন। শান্তিময় একটি সমাজ উপহার দিতে পারেন। তাই প্রত্যেকটি নারীর উচিত ইসলামী শিক্ষায় নিজেদেরকে শিক্ষিত করা এবং দুর্নীতি ও জুলুম মূক্ত রাষ্ট্র বা সমাজ গঠনের জন্য নিজেদের জায়গা থেকে প্রচেষ্ট করা। আল্লাহ সবাইকে তাওফীক দিন আমীন

প্রচারে : আসুন কুরআন পড়ি, সফল জীবন গড়ি।
আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল (প্রা.), কমলপুর, ভৈরব।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *