• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:২২ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

পাগলা মসজিদ উপাখ্যান

পাগলা মসজিদ উপাখ্যান

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
দেশ-বিদেশে কয়েক বছর ধরেই আলোচনায় উঠে এসেছে কিশোরগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী পাগলা মসজিদ। বিশেষ করে নানা ধর্মের মানুষের মনোবাঞ্ছা পূরণের আশায় মসজিদের দানবাক্সে বিপুল অঙ্কের টাকাপয়সা আর সোনাদানা দানের খবর আরও কৌতুহল তৈরি করেছে। প্রতি তিন মাস অন্তর ৮টি দানবাক্স খুলে তিন-চার কোটি টাকা পাওয়া যাচ্ছে।
জেলা শহরের পশ্চিম প্রান্তে নরসুন্দা নদীর তীরে প্রতিষ্ঠিত এই পাগলা মসজিদ প্রতিষ্ঠা ও এর নামকরণে একটি ছোট্ট কাহিনী রয়েছে। মসজিদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা বীর মুক্তিযোদ্ধা শওকত উদ্দিন ভূঁইয়া জানিয়েছেন, কিছু দালিলিক সূত্রে জানা গেছে, শহরের হয়বতনগরের জমিদার জিলকদর দাদ খান প্রায় পৌনে দুইশ বছর আগে এই জায়গায় নরসুন্দার পাড়ে নামাজ আদায় করতেন। এক পর্যায়ে একটি ছোট্ট মসজিদ তৈরি করে তাতে নামাজ পড়তে শুরু করেন। তাঁকে সবাই পাগলা জমিদার বলে ডাকতেন। তাঁর নামানুসারেই মসজিদটির নামকরণ হয়ে যায় ‘পাগলা মসজিদ’। তবে মসজিদের কোথাও এর প্রতিষ্ঠা কালের সন-তারিখ লেখা পাওয়া যায়নি।
শওকত উদ্দিন জানান, আগে তিন মাসে এক কোটি টাকা বা তার কিছু বেশি পাওয়া যেত। ২০১৮ সালে মসজিদের সৌন্দর্য বর্ধনসহ ব্যাপক উন্নয়ন হয়। এতে মানুষের মধ্যে বাড়তি আকর্ষণ তৈরি হয়েছে। এর পর থেকেই দানের পরিমাণ বাড়তে শুরু করেছে। গত শনিবার ৮টি দানবাক্সে পাওয়া গেছে এযাবত কালের সর্বোচ্চ ৫ কোটি ৫৯ লাখ ৭ হাজার ৬৮৯ টাকা। সঙ্গে বিভিন্ন দেশের মুদ্রা এবং সোনা-রূপার অলংকার।
এসব টাকা রূপালী ব্যাংকে মসজিদের হিসাবে জমা রাখা হয়। এক সময় পাগলা মসজিদের টাকা থেকে বিভিন্ন পিছিয়ে থাকা মসজিদের উন্নয়নে আর্থিক সহায়তা দেয়া হতো। নানারকম ফতোয়ার কারণে কমিটি এই খাতে ব্যয় বন্ধ রেখেছে। মসজিদ পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহমুদ পারভেজ জানিয়েছেন, প্রায় ৭ বছর আগে তিনি সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর থেকে বিভিন্ন মসজিদে অনুদান বন্ধ রাখা হয়েছে। মসজিদের টাকা থেকে পাগলা মসজিদের ইমাম, নিরাপত্তা রক্ষী ও অন্যান্য স্টাফদের বেতন, মসজিদের রক্ষণাবেক্ষণ ও উন্নয়নে ব্যয় করা হয়।
মেয়র জানান, মসজিদের ১০ কোটি টাকা এফডিআর করে রাখা হয়েছে। এর লভ্যাংশ থেকে বিভিন্ন মানবিক কাজে সহায়তা করা হয়। দরিদ্র ক্যান্সার রোগীদের ৩০ হাজার টাকা, হৃদরোগ ও ডায়ালাইসিসের রোগীদের ২০ হাজার টাকা, অন্যান্য সাধারণ রোগীদের ১০ হাজার টাকা করে সহায়তা করা হয়। এছাড়া করোনা মহামারির সময় এই টাকা থেকে প্রায় ৮ লাখ টাকা ব্যয়ে ৪টি হাইফ্লোনেজাল ক্যানুলা কিনে কোভিড হাসপাতাল শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালকে দেয়া হয়েছিল। তৎকালীন সভাপতি জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী তৎকালীন সিভিল সার্জন মুজিবুর রহমানের মাধ্যমে এসব ক্যানুলা হস্তান্তর করেন। এর ফলে অনেক জটিল রোগীর চিকিৎসা সহজ হয়েছিল।
মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি থাকেন পদাধিকার বলে জেলা প্রশাসক। যে কোন একজন বিশিষ্ট ব্যক্তিকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। আর বীর মুক্তিযোদ্ধা, আইনজীবীসহ সমাজের আরও কিছু বিশিষ্ট ব্যক্তিকে নিয়ে ৩১ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। বর্তমান কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ। সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন পৌর মেয়র মাহমুদ পারভেজ। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য। সাধারণত সবসময় ক্ষমতাসীন দল থেকেই সাধারণ সম্পাদক রাখা হয়। সদস্যদের মধ্যে দলীয় পরিচয় ছাড়াও বিশিষ্ট অরাজনৈতিক ব্যক্তিদেরও রাখা হয়।
মেয়র আরও জানন, মসজিদের হিসাব থেকে একটি আধুনিক মসজিদ কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হবে। এর জন্য আনুমানিক ব্যয় ধরা হয়েছে ১১৫ কোটি টাকা। মসজিদের টাকা অত্যন্ত সচ্ছতার সঙ্গে গচ্ছিত রাখা হয় এবং ব্যয় করা হয়। এটি ওয়াকফ এস্টেটের বিধি দ্বারা পরিচালিত হয়।
প্রতি তিনমাস অন্তর দান বাক্সগুলো খোলার সময় দিনব্যাপী বিভিন্ন মিডিয়ার কর্মীরা মসজিদে অবস্থান করেন। তথ্য ও ছবি সংগ্রহ করেন। সর্বশেষ মোট টাকার হিসাবটি সংগ্রহ করে তাঁরা মসজিদ ত্যাগ করেন। এক্ষেত্রে কোন বাধানিষেধ নেই বলে মেয়র জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *