• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৪:৫০ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
সবুজ ভৈরবের আয়োজনে এমবিশন পাবলিক স্কুলে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন ভৈরবে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে অবরোধের চেষ্টা, ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ করিমগঞ্জে বেড়েছে শিশু শ্রমিক করিমগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্নহত্যা নরসিংদী আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে সদ্য যোগদানকারী জেলা ও দায়রা জজকে সংবর্ধনা প্রদান বাজিতপুরে বর্জ্যরে বায়োগ্যাসে সাশ্রয় হচ্ছে জ্বালানি খরচ কোটা বিরোধীদের রাজাকার পরিচয়ের শ্লোগানের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন বাজিতপুরে চালককে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই নিজ মেয়েকে ধর্ষণ, বাবার মৃত্যুদণ্ড কিশোরগঞ্জে কোটা বিরোধী সংগঠনের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

তাড়াইলে মাঠে মাঠে দুলছে কৃষকের সোনালী স্বপ্ন

# জোবায়ের হোসেন খান :-
কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ফসলের মাঠে সোনালী ধানের সমারোহ। রোদ আর হিমেল বাতাসে ফসলের মাঠে মাঠে দোল খাচ্ছে কৃষকের সোনালী স্বপ্ন। এখন ফসলের মাঠ সবুজ বর্ণ থেকে হলুদ বর্ণ ধারন করার অপেক্ষা। আর মাত্র ক’দিনের মধ্যেই কৃষকেরা তাদের ধান কেটে ফসল ঘরে তুলবে। এবার কৃষকরা বোরো ধানের বাম্পার ফলনের আশা করছেন।
এদিকে ধান কাটার আগমুহূর্তে ধানের শীষ পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা।
উপজেলা কৃষি অফিস জানিয়েছেন, এ বছর উপজেলায় লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ হাজার ১০০ হেক্টর এবং অর্জন ১০ হাজার ২৭৫ হেক্টর। এছাড়া কৃষি অফিস থেকে বিভিন্ন কৃষককে বিনামূল্যে উন্নত মানের বীজ, সার, কীটনাশক সহায়তা, সুবিধা ও পরামর্শ কৃষকদের দেয়া হয়েছে।
উপজেলার ৭ টি ইউনিয়নের ফসলের মাঠে বোরো ধানের শীষ দোল খাচ্ছে। এবছর নতুন জাতের ধান ব্রি-৮৯, ব্রি৯২, উফসি২৯ জাতের ধান রোপন করা হয়েছে। এছাড়াও ব্রি-২৮, ২৯ জাতের ধান কৃষকের মাঠে দোল খাচ্ছে।
কৃষকেরা জানান, অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার প্রচুর ধানের শীষ দেখা যাচ্ছে। এবছর বাম্পার ফলনের আশা করছি আমরা। কিন্তু সামনে আসছে কালবৈশাখী ঝড়, এই ঝড়ে যদি কোন ক্ষতি না হয় তাহলে বিঘাপ্রতি ৩৫ হতে ৩৬ মন ধান পওয়ার আশা করছি। এছাড়া সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, উপজেলার তালজাঙ্গা ইউনিয়ন, বান্দুলদিয়া, ঘোষপাড়া, দেওথান, মোল্লাপাড়া, খালপাড়, আড়াইউড়া, চিকনি, গাবতলি, দড়িজাহাঙ্গীরপুর, পাইকপাড়া, নয়ানগর, হিজলজানি বিল, পদ্ম বিল, আগারখাল বাগার বিল, জাওয়ার, ধলা, সেকান্দরনগর, দামিহা, রাহেলা, হাছলা, রাউতি, মেছগাঁও, সিংধাসহ উপজেলার সব এলাকার মাঠ গুলোতে একি চিত্র দেখা গিয়েছে। বোরো ধানের আবাদ হচ্ছে আর ক’দিন পরেই কৃষক ধান কাটবে এবং বাম্পার ফলনের আশা করছেন স্থানীয় কৃষকরা।
তাড়াইল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আশরাফুল আলম জানান, আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে চলতি বছর লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত ফসল উৎপাদন হবে। উপজেলার ১০ হাজর ১০০ শ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ করা হয়েছে। এবছর বড় ধরনের ঝড়, বৃষ্টি অথবা শিলাবৃষ্টি না হলে বোরো ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া কৃষি অফিস থেকে নিয়মিত কৃষকদের সার্বক্ষণিক পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। কাজেই কৃষক সঠিক সময় ফসল কেটে ঘরে তুলতে পারবেন বলে আশা করছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *