• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৫:১১ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
সবুজ ভৈরবের আয়োজনে এমবিশন পাবলিক স্কুলে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন ভৈরবে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে অবরোধের চেষ্টা, ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ করিমগঞ্জে বেড়েছে শিশু শ্রমিক করিমগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্নহত্যা নরসিংদী আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে সদ্য যোগদানকারী জেলা ও দায়রা জজকে সংবর্ধনা প্রদান বাজিতপুরে বর্জ্যরে বায়োগ্যাসে সাশ্রয় হচ্ছে জ্বালানি খরচ কোটা বিরোধীদের রাজাকার পরিচয়ের শ্লোগানের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন বাজিতপুরে চালককে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই নিজ মেয়েকে ধর্ষণ, বাবার মৃত্যুদণ্ড কিশোরগঞ্জে কোটা বিরোধী সংগঠনের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

২৮০ মণের জায়গায় পেয়েছেন ২০ মণ

খালি হাতে বিপুল পরিমাণ চিটা তুলে ধরেছে মুরাদ। -পূর্বকণ্ঠ

২৮০ মণের জায়গায়
পেয়েছেন ২০ মণ

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন হাওরে এবার নেকব্লাস্ট রোগে ব্রিধান-২৮ শেষ। ঋণ করে চাষাবাদ করে এবার কৃষকদের পথে বসার উপক্রম। যাদের এবার ২৮০ মণ ধান পাবার কথা ছিল, ব্লাস্টের কারণে পেয়েছেন মাত্র ২০ মণ। এক কৃষক ৫০০ মণ ধানের ব্লাস্ট আক্রান্ত জমি অন্য কৃষকের কাছে ২৫ হাজার টাকায় বিক্রি করে দিয়েছেন। অথচ বর্তমান বাজার দরেও এসব জমিতে প্রায় ৪ লাখ টাকার ধান হওয়া কথা ছিল। এমনই করুণ চিত্র পাওয়া গেছে হাওরের বিভিন্ন এলাকার কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে।
সম্প্রতি করিমগঞ্জের বিলপায়া হাওরে কৃষকদের খলায় গিয়ে দেখা গেছে, ধানের স্তুপ একটি, আর চিটার স্তুপ চারটি। ধানের চিটা হাতে নিয়ে তাদের স্বপ্ন চুরমার হওয়ার দৃশ্য দেখাচ্ছিলেন। কোন পাত্র ছাড়া খালি দুই হাতে প্রচুর চিটা তুলে ধরে দেখাচ্ছিলেন এই করুণ পরিণতি। অথচ ভাল ধান হলে খালি দুই হাতের কেবল তালু পরিমাণ ধান উঠতো। করিমগঞ্জের নিয়ামতপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কুদ্দুছের ছেলে মুরাদ মিয়া এবার ৪ একর জমিতে ব্রিধান-২৮ আবাদ করেছিলেন। ২৮০ মণ ধান পাবার কথা ছিল। পেয়েছেন মাত্র ২০ মণ। খলায় ভাল ধানের ছোট একটি স্তুপ। আর পাশেই বড় বড় চিটার স্তুপ। তাঁর বড়ভাই জুয়েল মিয়ার ১৫ একর জমির একই অবস্থা দেখে ধান কাটতে যাচ্ছেন না। শ্রমিকের টাকা দিয়ে পোষাবে না।
চামড়া বন্দর এলাকার জাহের মিয়ার ছেলে বোরহান মিয়া জনিয়েছেন, ইটনার কয়রা বিলে ৭ লাখ টাকা ঋণ করে ৮ একর জমিতে ব্রিধান-২৮ আবাদ করেছিলেন। প্রায় ৬০০ মণ ধান হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু পাবেন মাত্র ১০০ মণের মত। জমিগুলো আবাদ করতেই খরচ গেছে আড়াই লাখ টাকা। এখন চোখেমুখে অন্ধকার দেখছেন। করিমগঞ্জের পূব গণেশপুরের মিছির উদ্দিনের ছেলে হাদিস মিয়াও ৭০ হাজার টাকায় কয়রা বিলে ৭ একর জমি পত্তন নিয়ে ব্রিধান-২৮ করেছিলেন। অন্তত ৫০০ মণ ধান হওয়ার কথা। কিন্তু ব্লাস্ট রোগের কারণে জমি আর কাটছেন না। জমির ধান জমিতে রেখেই সকল জমি মাত্র ২৫ হাজার টাকায় অন্যের কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন। তাঁর গ্রামের জাহের মিয়ার ১৫ একর জমির ধানেরও একই অবস্থা বলে জানিয়েছেন জাহের মিয়া। জাহের মিয়া আরও জানান, তিন বছর ধরে কৃষি বিভাগ অবশ্য বলছে ব্রিধান-২৮ আবাদ না করার জন্য। কিন্তু একজন কৃষি কর্মকর্তা বলেছিলেন, এবার নতুন জাতের ব্রিধান-২৮ বীজ এসেছে। কোন সমস্যা হবে না। তাঁর আশ্বাসে ব্রিধান-২৮ আবাদ করে সর্বনাশ হয়ে গেলো। তবে কোন কৃষি কর্মকর্তার আশ্বাসে ব্রিধান-২৮ আবাদ করেছিলেন, তাঁর নামটি জাহের মিয়া জানা নেই। তিনি মন্তব্য করেন, মনে হচ্ছে মজুদ বীজ আমাদের গছানোর জন্যই কৃষি কর্মকর্তা এরকম সর্বনাশা আশ্বাস দিয়েছিলেন।
চমকপুর গ্রামের কৃষক জীবন মিয়া বলেন, জোয়াইরা বিলে তাঁর দুই একর জমির ধান নষ্ট হয়ে গেছে। নদার বন্দের কৃষক মোশারফ দুই একরে ব্রিধান-২৮ আবাদ করেছিলেন। সব শেষ। ঋণ করেছিলাম। এখন মহাজনরা বাড়ি এসে টাকার জন্য তাগিদ দিচ্ছেন। চমকপুর গ্রামের সিদ্দিক মিয়া জোয়াইরা বিলে ৬ একর জমি আবাদ করেছিলেন। তাঁর জমিও শেষ।
করিমগঞ্জ, নিকলী, ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রামের বিভিন্ন হাওরের চিত্রই অনুরূপ। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা এখন দিশেহারা পাগলপ্রায়। উ™£ান্তের মত জমির পাশে বসে থাকেন। এই একফসলি ধান ছিল তাদের শেষ সম্বল। এবছর তাঁরা চড়া সুদে টাকা এনে জমি চাষ করেছিলেন। কিন্তু ব্লাস্টের কারণে ধান ছিটা হয়ে চরম আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন। কৃষকরা জানিয়েছেন, গাছে ধানের শীষ আসার সঙ্গে সঙ্গে তা পুড়ে যেন ছাঁই হয়ে গেছে।
মিঠামইন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. রাফিউল ইসলাম জানান, মিঠামইনে এবছর ১৫ হাজার ৯শত ১০ হেক্টর বোরো জমি আবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩ শত ৯০ হেক্টর ব্রিধান-২৮ আবাদ হয়েছে। তিনি জানান, একটি নির্দিষ্ট সময়ে কিছু ওষুধ প্রয়োগের পরামর্শ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু কৃষকরা তা মানেনি বলে এই বিপর্যয় ঘটেছে। এদিকে অষ্টগ্রামের কৃষি কর্মকর্তা অভিজিৎ সরকার জানিয়েছেন, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের তালিকা করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এসময় তারা কেউ মাঠে না থাকলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেয়া হবে বলেও তিনি জানিয়েছেন।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. আবদুস ছাত্তার জানিয়েছেন, তিনি বিভিন্ন হাওর পরিদর্শন করেছেন। ব্রিধান-২৮ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে তিনি নিজেও প্রত্যক্ষ করেছেন। তাদের হিসাবমতে এবার ৭৭ হেক্টর জমিতে ব্লাস্টের প্রকোপ দেখা গেছে। তিনি জানান, এবার জেলার ১৩ উপজেলায় বিভিন্ন জাতের বোরো ধানের আবাদ হয়েছে ১ লাখ ৬৬ হাজার ৪২০ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে ব্রিধান-২৮ আবাদ হয়েছে ২৯ হাজার ৮৩৮ হেক্টরে। কয়েক বছর ধরেই ব্রিধান-২৮ জমিতে ব্লাস্ট রোগ দেখা যাচ্ছে। ফলে এখন কৃষকদের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে যেন তাঁরা আগামীতে এই জাতটি পরিহার করে ‘বঙ্গবন্ধু ধান-১০০, ব্রিধান-৮৯ এবং ব্রিধান-৯৬’ আবাদ করেন। এগুলিতে ব্লাস্ট রোগের সমস্যা নেই বলে উপ-পরিচালক জানিয়েছেন।
এদিকে বিএডিসির (বীজ বিপনন) কিশোরগঞ্জের উপ-পরিচালক কার্যালয় থেকে জানানো হয়েছে, এবার বোরো মৌসুমে জেলায় ৩ হাজার ৪০৬ টন বিভিন্ন জাতের ধান বীজ সরবরাহ করা হয়েছিল। এর মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১ হাজার ৫২০ টন ২৬০ কেজি বীজ সরবরাহ করা হয় ব্রিধান-২৮। আর সর্বোচ্চ ১ হাজার ৬৩৭ টন ১৭০ কেজি সরবরাহ করা হয় ব্রিধান-২৯।
ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগের বীজ বিতরণের দায়িত্বে নিয়োজিত বিএডিসির যুগ্ম-পরিচালক রুহুল আমিন জানিয়েছেন, এবারের মৌসুমে কিশোরগঞ্জ খামারবাড়ি ও বীজ ডিলার সমিতির চাহিদা এবং বিগত বছরের বিপননের ধারা পর্যালোচনা করেই এবার ব্রিধান-২৮ বীজ সরবরাহ করা হয়েছিল। তবে কিশোরগঞ্জ খামার বাড়ির উপ-পরিচালক আগামী বছর থেকে এই বীজ সরবরাহ না করার জন্য অনুরোধ করেছেন বলেও তিনি জানিয়েছেন।
জেলা থেকে এই বীজের চাহিদা দেয়ার ব্যাপারে প্রশ্ন করলে জেলা খামারবাড়ির উপপরিচালক মো. আব্দুস সাত্তার সরাসরি কোন উত্তর না দিয়ে জানান, আগামী বছর যেন ব্রিধান-২৮ বীজ সরবরাহ না করা হয়, এর জন্য তিনি ঢাকায় কথা বলেছেন। আর অফিসিয়ালি বিএডিসির কেন্দ্রীয় কার্যালয় এবং জেলা প্রশাসককে চিঠিও লিখেছেন। তিনি জানান, ব্রিধান-২৮ এর জীবনকাল কম, আগাম ফলন হয়, চালের মানও ভাল। আগাম বন্যার হাত থেকে ফসল রক্ষার চিন্তা মাথায় কাজ করে বলে কৃষকদের মানা করলেও তারা কর্ণপাত করতে চান না। তিনি আরও বলেন, একটি উদ্ভাবিত জাত ৮-১০ বছর ভাল ফলন দেয়। এরপরই এতে নানা সমস্যা দেখা দেয়। ব্রিধান-২৮ প্রায় ৩০ বছর ধরে আবাদ করা হচ্ছে। তবে সময়মত যারা জমিতে পরামর্শমত ‘নাটিবো’ এবং ‘ফিলিয়া’ ওষুধ প্রয়োগ করেছেন, তাদের জমি ভাল আছে বলে তিনি জানিয়েছেন।
আগামীতে যেন কৃষকরা ‘বঙ্গবন্ধু ধান-১০০’ এবং ‘ব্রিধান-৮৯’ আবাদ করেন, কৃষদের সেই পরামর্শ দিচ্ছেন। ব্রিধান-২৮ হেক্টরে ফলন হয় ৬ টন। আর বঙ্গবন্ধু ধান হেক্টরে ফলন হয় ৭ টন এবং ব্রিধান-৮৯ ফলন হয় হেক্টরে ৮ টন। কাজেই আগামীতে এসব নতুন জাতের ধান আবাদের জন্য তিনি কৃষকদের পরামর্শ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন।
এদিকে জেলা বিএডিসির বীজ ডিলার সমিতির সভাপতি সামিউল হক ভূঁইয়া জানিয়েছেন, কৃষকদের প্রতি বছরই বারণ করা হয় যেন ব্রিধান-২৮ আবাদ না করেন। কিন্তু এরা একটি জাতে অভ্যস্ত হয়ে গেছেন বলে নতুন জাত সহজে নিতে চান না। যে কারণে জেলার ৩০০ জন ডিলারকেই ব্রিধান-২৮ নিতে হয়। তবে এই বীজ বন্ধ করতে হলে ময়মনসিংহ বিভাগেও বন্ধ করতে হবে। তা না হলে হাওরের কৃষকরা ময়মনসিংহ থেকে গিয়ে বীজ সংগ্রহ করে আনবেন বলে তিনি মনে করেন। তিনি জানান, তার ইটনার বাদলা এলাকায় অনেকেই ব্রিধান-২৮ আবাদ করে সর্বশান্ত হয়ে গেছেন, কান্নাকাটি করছেন। একজন কৃষক জমিতে গিয়ে জ্ঞান হারিয়েছিলেন বলেও জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *