• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৫:৩৪ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

কয়েকদিনের বৃষ্টিতে ইট ভাটায় ব্যাপক ক্ষতি

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ‘স্ট্যান্ডার্ড ব্রিকস’ ভাটার চিত্র। -পূর্বকণ্ঠ

কয়েকদিনের বৃষ্টিতে ইট
ভাটায় ব্যাপক ক্ষতি

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
বেশ কিছুদিন ধরেই কিশোরগঞ্জে বৃষ্টিপাত হচ্ছে। তবে এতদিন থেমে থেমে মাঝারি মানের বৃষ্টিপাত হচ্ছিল। কিন্তু বৃহস্পতিবার রাতে ভারী বৃষ্টিপাত হওয়ায় জেলার সকল ইটভাটায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে। লাখ লাখ কাঁচা ইটের সারি গলে গিয়ে মাটিয়ে লুটিয়ে পড়েছে। কাদাপানিতে সব একাকার। প্রত্যেক ভাটা মালিকই লাখ লাখ টাকার ক্ষতির মুখে পড়েছেন বলে জানিয়েছেন জেলা ইট প্রস্তুতকারী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আহাদ মানিক। তিনি জানান, সারা জেলায় ৮২টি ইটভাটা রয়েছে। আর প্রতিটি ভাটাতেই এবার বৃষ্টিতে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।
সদর উপজেলার কর্শাকড়িয়াইল ইউনিয়নের কড়িয়াইল এলাকায় ‘স্ট্যান্ডার্ড ব্রিকস’ নামে ইটভাটায় গিয়ে দেখা গেছে, একদিকে ভাটার চুল্লীতে লাখ লাখ ইট পুড়িয়ে স্তুপ করে রাখা হয়েছে। আরও লাখ লাখ ইট পোড়ানোর কাজ চলছে। আর বিশাল চত্বর জুড়ে আরও লাখ লাখ কাঁচা ইট পোড়ানোর অপেক্ষায় সারিবদ্ধভাবে সাজিয়ে রাখা হয়েছে। এসব কাঁচা ইটের সবগুলোই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বহু ইট গলে কাদাপানিতে লুটিয়ে পড়ে আছে।
ভাটার ম্যানেজার সাইফুল আলম তারেক জানিয়েছেন, এবারের মৌসুমে একটু আগেভাগেই বৃষ্টি শুরু হয়েছে। ঘন ঘন বৃষ্টিপাত হচ্ছে। এর ফলে ভাটার ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। তবে বৃহস্পতিবার রাতে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে, ক্ষতিও হয়েছে সর্বাধিক। তিনি জানান, এবারের বৃষ্টিতে তাদের ভাটার প্রায় ২ লাখ ইট নষ্ট হয়ে গেছে। প্রতি হাজার এক নম্বর পোড়া ইট ভাটা থেকে বিক্রি হয় ১৩ হাজার টাকায়। আর দুই নম্বর ইট বিক্রি হয় ১২ হাজার টাকায়। প্রতি হাজার কাঁচা ইট তৈরি করতে খরচ হয় ৯ হাজার টাকা। সেই হিসাবে এবার বৃষ্টিতে ২ লাখ কাঁচা ইট নষ্ট হওয়ায় ১৮ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। সামনে আরও বৃষ্টি হতে পারে। ফলে ক্ষতির মাত্রা তখন আরও বাড়বে। ম্যানেজার আরও জানান, তাদের ভাটায় ৬ রাউন্ড ইট পোড়ানো হয়। প্রতি রাউন্ডে ৮ লাখ ইট পোড়ানো হয়। ফলে মৌসুমে ৪৮ লাখ ইট পোড়ানো হয়। কিন্তু এবার বৃষ্টির কারণে ইটের সংখ্যা অনেক কমে যাবে বলে তিনি মনে করছেন।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *