• বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:১৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

ঈদ আসলেই সক্রিয় ভৈরব ছিনতাইকারী চক্র

# মিলাদ হোসেন অপু :-
ঈদ আসলেই সক্রিয় হয়ে ওঠে ভৈরবের ছিনতাইকারী চক্রের সদস্যরা। দুই দিন পর পর ভৈরবের চিহ্নিত স্থান পৌর শহরের মেঘনা ব্রীজ সংলগ্ন নাটাল মোড় এলাকা, রেলওয়ে স্টেশন রোড, পৌর বাসস্ট্যান্ড নদীবাংলা এলাকা, বঙ্গবন্ধু সরণি ভিআইপি রোড, ভৈরব-কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক সড়ক উপজেলার কালিকাপ্রসাদ ইউনিয়ন গাজিরটেক এলাকায় ঘটে ছিনতাই ঘটনা। একাধিক ছিনতাইকারী আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করলেও থেমে নেই ছিনতাই। ভৈরব থানা পুলিশ যেন এ বিষয়ে অসহায়। এ নিয়ে ভৈরবের সুশীল মহলেও যেন ক্ষোভের কমতি নেই। প্রতিনিয়তই ঘটছে ছিনতাই ঘটনা। হয়রানির কথা ভেবে অনেকে আবার থানায় মামলা নিয়ে যেতেও ভয় পায়। গত ১৫ দিনে ঘটেছে বেশ কয়েকটি ঘটনা। ২৩ মার্চ উপজেলার কালিকাপ্রসাদ ইউনিয়ন গাজিরটেক এলাকায় ছিনতাই কবলে পড়ে আহত হন ভৈরব শহরের গাউছিয়া মসজিদ খতিব মাওলানা আতাউর রহমান মোজাহেদী। তিনি গুরুতর আহত হন। পরে থানা অভিযোগ করেন। এ ঘটনার কয়েকদিন আগে একই এলাকায় এক দরিদ্র রিকশাচালককে গলায় ছুরি ধরে তার একমাত্র উপার্জনের সম্বল বিভাটেকটি ছিনিয়ে নিয়ে যায় ছিনতাইকারীরা। ২৯ মার্চ রেলওয়ে স্টেশনে এলাকায় ভৈরব পৌর নিউমার্কেট ব্যবসায়ীকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে মোবাইল ও নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয়। ৩০ মার্চ ছিনতাইকালে রেলওয়ে স্টেশন এলাকায় জনতা ১ ছিনতাইকারীকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করে। ঈদকে সামনে রেখে ভৈরবে সক্রিয় হচ্ছে অপরাধ চক্রগুলো।
এমনই এক ছিনতাই ঘটনায় ৩১ মার্চ শুক্রবার বিকেল চারটায় পৌর শহরের চিহ্নিত ত্রিসেতু সংলগ্ন নাটাল মোড় এলাকায় ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে ২ ভাই আহত হয়। এতে একজনকে গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকায় রেফার্ড করা হয়েছে।
আহতরা হলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আন্দাদিল গ্রামের আজগর মিয়ার ছেলে রোহান (১৮), একই গ্রামের হারুন মিয়ার ছেলে দিহান (১৭)। তারা দুই জন আপন খালাতো ভাই।
আহতদের স্বজনরা সূত্রে জানা যায়, রোহান ও দিহান মাস ছয়েক আগে ভৈরবের একটি ফার্ণিচারের দোকানে কাজ করতে আসে। সেই সুবাধে তারা ভৈরবেই বাসা নিয়ে থাকেন। সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবার। তাই বিকালে দুই ভাই মেঘনা সেতু এলাকায় ঘুরতে যান। বাসায় ফেরার পথে ছিনতাইকারী চক্রের দুই সদস্য পথরোধ করে তাদের পকেট থেকে মোবাইল নিয়ে নেয়। এতে বাধা দিলে ছিনতাইচক্রের আরো ৫/৬ জন তাদের ছুরিকাঘাত করে। ধারালো অস্ত্রের মুখে জিম্মি হয়ে তাদের কাছে থাকা নগদ টাকা ও এনড্রোয়েড মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়ায়। এ সসময় রোহান বাধা দিলে ছিনতাইকারী তার হাতে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করলে রোহানের ডান হাতের রগ কেটে যায় এবং দিহানকে ছুরিকাঘাত করতে চাইলে সে প্রাণ ভিক্ষা চাইলে তাকে কিল ঘুষি মেরে আহত করে। চিৎকার চেঁচামেচিতে স্থানীয়রা ছুটে আসলে ছিনতাইকারীরা তাদের সাথে থাকা ২টি এনড্রোয়েড মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। এসময় স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।
আহতদের খালাতো ভাই সবুজ জানান, রোহান ও দিহান ৬ মাস যাবৎ ভৈরবে সুমন মিয়ার ফার্ণিচারের দোকানে কাজ করে। বিকালে মেঘনা সেতু এলাকায় ঘুরতে গেলে ছিনতাইকারীরা তাদের মারধোর ও ছুরিকাঘাত করে ২টি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়েছে যায়। ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে রোহানের ডান হাতের রগ কেটে গেছে। তাই অপারেশনের জন্য ঢাকায় নিয়ে যাচ্ছি।
তিনি আরো জানান এ বিষয়ে থানায় অভিযোগ করা হবে।
এ বিষয়ে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সোহাগ বলেন, প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে গুরুতর আহত রোহানকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে।
এ বিষয়ে নিরাপদ সড়ক চাই ভৈরব শাখার সাধারণ সম্পাদক আলাল উদ্দিন বলেন, দেশের প্রেক্ষাপটে আমরা ঘর থেকে বের হলে আবার বাড়ি ফেরার কোন নিশ্চয়তা নাই। পুলিশ প্রশাসনের ভূমিকাও প্রশ্নবিদ্ধ। ছিনতাকারীর সংখ্যা ভৈরবে অনেক কম। আমাদের সম্মলিত ভাবে কাজ করতে হবে। পুলিশকেও জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ সহযোগীতা করতে হবে। ভৈরব চিহ্নিত ছিনতাই হওয়ার জায়গাও কম। তিন/চারটা স্পটে পুলিশি টহল জোরদার হলে ভৈরবে ছিনতাই কমে যাবে।
এ বিষয়ে ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মাকছুদুল আলম বলেন, ছিনতাই হওয়ার বিষয়টি লোক মাধ্যম জানতে পেরেছি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। ঈদ আসলে ভৈরব ছিনতাইকারীরা বেশি সক্রিয় থাকে। আমাদেরও প্রচেষ্টার কোন কমতি নেই। গত কয়েকদিনে ভৈরবের বেশ কয়েকজন ছিনতাইকারী কিশোরগঞ্জ জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। ৩১ মার্চ শুক্রবারও তিনজন ছিনতাইকারীকে কিশোরগঞ্জ জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। ঈদ উপলক্ষে পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *