• মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৮:১৮ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জের ৩ উপজেলার নির্বাচনে মোতায়েন ৭ প্লাটুন বিজিবি সদস্য নিকলীতে রাত পোহালেই ভোট, মোটরসাইকেল ও আনারসের মাঝে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস র‌্যাব হেফাজতে গৃহবধূর মৃত্যু ভৈরবের ৪ র‌্যাব সদস্যসহ নান্দাইলের এক এসআই প্রত্যাহার কুলিয়ারচর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আবুল হোসেন লিটন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় বিএনপির যুবদল নেতাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ বাজিতপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে মার্কা বিতরণ করিমগঞ্জে বারঘড়িয়া ফাজিলখালী ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসায় ৪ তলা নতুন ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন ক্যাম্পে এক নারীর মৃত্যুতে র‌্যাব কর্মকর্তা প্রত্যাহার কিশোরগঞ্জে ভোক্তা অধিকার আইন বাস্তবায়নে সেমিনার ঐতিহ্যবাহী লাঠিখেলার এখন চলছে দুর্দিন

পোশাক শ্রমিকের লাশ উদ্ধার ১২ আসামীর দুজন গ্রেপ্তার

সোহান আহমেদ আলিফ

পোশাক শ্রমিকের লাশ উদ্ধার
১২ আসামীর দুজন গ্রেপ্তার

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
কিশোরগঞ্জে নিখোঁজের ৯ দিন পর একটি গোরস্থান থেকে পোশাক শ্রমিকের গলিত লাশ উদ্ধার হয়েছে। মামলার ১২ আসামীর দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। নিহতের নাম সোহান আহমেদ আলিফ (২৩)। তিনি সদর উপজেলার রশিদাবাদ ইউনিয়নের বেরুয়াইল কলাপাড়ার জুতা শ্রমিক শফিক আহমেদ বাচ্চুর ছেলে।
নিহতের মা হাওয়া আক্তারের দায়ের করা মামলার বিবরণে জানা যায়, দুই ছেলের মধ্যে বড় ছেলে আলিফ নিজ গ্রামের হাইয়ুলের দর্জির দোকানে চাকরি করতেন। গত ২০ মার্চ বিকাল ৫টার দিকে পার্শ্ববর্তী উলুহাটি কান্দিপাড়া গ্রামের বিল্লাল মিয়ার ছেলে আলিফের বন্ধু অন্তর (১৯) আলিফকে দর্জির দোকান থেকে কথা আছে বলে ডেকে নিয়ে যান। এরপর থেকে আলিফ নিখোঁজ। কোথাও ছেলেকে খুঁজে না পেয়ে গত মঙ্গলবার হাওয়া আক্তার প্রথমে সদর থানায় একটি জিডি করেন। এর সূত্র ধরে এসআই রফিকুল ইসলাম বুধবার (২৯ মার্চ) সকালে এলাকায় তদন্তে গেলে তাঁকে নিয়ে আলিফের মাসহ পরিবারের লোকজন এলাকার ঝোঁপঝাড় ও এলাকার গাউসুল আযম গোরস্থানে খোঁজ নিতে বের হন। এসময় গোরস্থান থেকে দুর্গন্ধ আসতে থাকে। কাছে গিয়ে একটি কবরের মত দেখতে পান। এরপর এসআই রফিক থানার ওসি মোহাম্মদ দাউদকে বিষয়টি জানালে তিনি গিয়ে বিকালে হাসপাতালের ডোম দিয়ে মাটি খুঁড়ে আলিফের গলিত লাশ উদ্ধার করেন। কালো জিন্সের প্যান্ট আর কোমরের বেল্ট দেখে স্বজনরা এটি আলিফের লাশ বলে শনাক্ত করেন। ওসি জানান, গলিত লাশের গায়ে কোন আঘাতের চিহ্ন বোঝা যায়নি। ময়না তদন্তের জন্য লাশ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।
লাশ উদ্ধারের পর আলিফের মা হাওয়া আক্তারকে বাদী করে থানায় বুধবার হত্যা মামলা নেয়া হয়েছে। মামলায় অন্তর ছাড়াও আসামী করা হয়েছে পার্শ্ববর্তী উলুহাটি গ্রামের মফিজ মিয়ার দুই ছেলে হুমায়ুন (৩৪) ও মাসুদ (২৪), রুহুল আমিনের ছেলে মুকুল (২০) এবং সগড়া এলাকার হানিফের ছেলে আনন্দসহ (১৯) নামীয় ৫ জন ও অজ্ঞাত ৬-৭ জনকে। বুধবার সন্ধ্যার পর আসামী হুমায়ুন ও আনন্দকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওসি মোহাম্মদ দাউদ। অন্যদেরও গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।
আলিফের বাবা শরীফ আহমেদ বাচ্চু নারায়ণগঞ্জে একটি জুতার কারখানায় চাকরি করেন। আর নিহত আলিফ এক সময় মাদ্রাসায় পড়তেন। তবে কিছুদিন আগে তাঁকে রশিদাবাদ এলাকার শিমুলিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে ৯ম শ্রেণীতে ভর্তি করানো হয়েছিল বলে আলিফের মামা মো. ইকবাল জানিয়েছেন। তিনি আরও জানান, আসামীরা মাদকাসক্ত। এক সময় এরা আলিফকেও তাদের আসরে নিয়ে যেত। একদিন আলিফের মা ছেলেকে মাদকের আসর থেকে নিয়ে আসেন এবং আসামীদের পুলিশে ধরিয়ে দেবেন বলে শাসিয়ে আসেন। এর জের ধরেই হত্যাকা-টি ঘটে থাকতে পারে বলে পরিবারের ধারণা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *