• বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:১৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

ভৈরবে মাসব্যাপি সবার জন্য উন্মুক্ত ইফতার আয়োজন

# মিলাদ হোসেন অপু :-
কিশোরগঞ্জের ভৈরবে মাসব্যাপি সবার জন্য উন্মুক্ত ইফতারের আয়োজন করেছে প্রবাসী এক যুবক রফিকুল ইসলাম সোহেল। পৌর শহরের মাতৃসদন মাঠে রোজার শুরু থেকে এই আয়োজন করা হয়েছে। সকল শ্রেণি-পেশার লোকজন এখানে বিনামূল্য ইফতারি খেতে পারে। ধনী গরিব সব মানুষের জন্য উন্মুক্ত এই ইফতার আয়োজন। স্থানীয়দের সহযোগীতায় প্রতিদিন ৪শ মানুষের ইফতার আয়োজন করছেন বলে জানিয়েছেন সোহেল। তিনি বলেন, রোজাদারদের খাবার খাওয়ানো ভাগ্যের ব্যাপার। দীর্ঘ তিন বছর যাবত এ আয়োজন করে আসছি। আল্লাহ বাঁচিয়ে রাখলে প্রতিবছর এ আয়োজন করে যাওয়ার ইচ্ছে আছে। এতে প্রতিদিন প্রায় ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা খরচ হয়। এই টাকা আমরা নিজেরাই বহন করি। আমাদের কোন সংগঠন না থাকলেও অনেকেই আমাদের বিভিন্ন ভাবে সহযোগীতা করে।
তবে, শুধু নিম্নআয়ের মানুষই নয় সবার জন্যই এটি উন্মুক্ত। যে কেউ এসে এখানে ইফতার করতে পারবেন।
এ বিষয়ে স্থানীয়রা জানান, সকলের সহযোগীতায় সোহেলের উদ্যোগে মাসব্যাপি ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। ইফতারে খেজুর, শরবত, বিভিন্ন ফল, পোলাও, ডিম ও খিচুরি-মাংসসহ বেশ কয়েকটি আইটেম প্রতিদিন দেয়া হয়। একেক দিন একেক ধরণের খাবার দেয়া হয়। রমজান মাসে অনেকেই অসহায়, গরিব ও দুস্থ মানুষকে সাহায্য-সহযোগিতা করে থাকে। কিন্তু পথচারী অনেকে সময়মত ইফতার করতে পারে না। ভাল করে ইফতার করার সুযোগও থাকে না। অনেক অসহায় মানুষ আছে যারা সারাদিন রোজা রেখে ভাল খাবার খেতে পারে না। অনেক রিকশা চালক, ভ্যান চালক রোজা রেখে ক্লান্তি শরীরে সময়মত ইফতার করতে পারে না। দিনমজুর, ভিক্ষুকসহ অসহায় মানুষদের জন্য মূলত এই আয়োজন। সীমিত আয়ের মানুষের জন্য এই আয়োজন অত্যন্ত আনন্দের। এটি স্থানীয়দের অনেক ভালো লাগার কাজ। মাগরিবের আজান দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সকল শ্রেণি পেশার মানুষের ভিড় লেগে যায়। সমাজের বিত্তবানরা চাইলেই সহযোগীতার হাত বাড়াতে পারে। তাতে আয়োজকদের কোন আপত্তি নেই।
সরেজমিনে আছরের নামাজের পর গিয়ে দেখা যায়, ইফতার করার জন্য সারিবদ্ধভাবে লোকজন বসে আছেন। এখানে রয়েছে দিন মজুর, পথচারি, স্কুল- কলেজের ছাত্র, কেউ ব্যবসায়ী, আবার অনেকেই ভ্যানচালক, রিকশাচালক, ভিক্ষুক, অসহায় এবং দরিদ্র শ্রেণির মানুষ।
এ বিষয়ে কথা হয় আমেনা বেগম, চামেলী বেগম ও জমিলা খাতুন নামে ভিক্ষুকদের সাথে। তারা বলেন, ‘আমরা বিভিন্ন স্থানে ভিক্ষা করে খাই। আমরা খুব গরিব মানুষ। দুমুঠো ভাত ঠিকমত খেতে পারি না। এক বেলা খাবার খেলে আরেক বেলা উপোস থাকি। আমরা এখানে রোজার প্রথম দিন থেকেই ইফতার করছি। দোয়া করি তারা যেন নিয়মিত এ আয়োজন করে যেতে পারে।
অটো চালক আলম বলেন, আমাদের মতো অনেক অসহায় এবং গরিব লোক এখানে ইফতার করে। গরিব লোকদের জন্য এমন আয়োজন সত্যিই প্রশংসনীয়।
সেখানে ইফতার করার সময় কথা হয় ভ্যান চালক মো. হেলালের সাথে। তিঁনি বলেন, আমি সারাদিন ভ্যান চালাই। ভ্যান চালিয়ে আমার সংসার চালাতে কষ্ট হয়। তারপর ইফতার করতেও টাকা লাগে। এখানে নিয়মিত ইফতার করি। কিছু টাকাও বেঁচে যায় আমার অনেক উপকার হয়।
এসময় কথা হয় মেইল কর্মচারী সালাহ উদ্দিনের সাথে তিঁনি বলেন, জিনিস পত্রের যে দাম। এ অবস্থায় আমার ইফতার কিনে খাওয়ার মতো সামর্থ নেই। আমি ইফতার করার জন্য বাড়ির দিকে যাচ্ছিলাম। মাতৃসদনে বিনা পয়সার ইফতার দেখে আমি এখানে এসে ইফতার করলাম।
কথা হয় কয়েকজন পথচারীর সাথে তাঁরা জানান, আজ আমরা এখানে ইফতার করছি। তাদের এ উদ্যোগটি আমাদের অনেক ভালো লেগেছে। আমরা কর্তৃপক্ষদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি। আমরা একা নয় অনেকেই এখানে ইফতার করেছেন। তবে এখানে ভিক্ষুক ও গরিব অসহায় মানুষের সংখ্যা বেশি। রোজাদারদের জন্য রয়েছে বহু আইটেমের ইফতার সামগ্রী।
এ ব্যাপারে ভৈরব পৌরসভার ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. দ্বীন ইসলাম মিয়া বলেন, মানুষের টাকা থাকলেও গরিবদের খাওয়ানোর সাহস থাকে না। সোহেল একটি সাহসী পদক্ষেপ নিয়েছে। আমি তাকে সাধুবাদ জানাই। অনেকেই আছে ইফতার করতে পারবেন না ভেবে রোজাই রাখেন না। আবার কেউ কেউ আছেন রোজা রেখে ভালো ইফতার করতে পারেন না। অন্যদিকে অনেক পথচারী রয়েছে যারা কাজের জন্য রাস্তায় আটকে যান তারাও সময় মতো ইফতার করতে পারেন না। এসব বিষয় চিন্তা করেই স্থানীয়রা সোহেলের সাথে ঐক্যবদ্ধ হয়ে বিনামূল্যে গরিব ও অসহায় থেকে শুরু করে সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের জন্য বিনামূল্যে সবার জন্য ফ্রি ইফতারের আয়োজন করছে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *