• মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৭:৩৩ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জের ৩ উপজেলার নির্বাচনে মোতায়েন ৭ প্লাটুন বিজিবি সদস্য নিকলীতে রাত পোহালেই ভোট, মোটরসাইকেল ও আনারসের মাঝে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস র‌্যাব হেফাজতে গৃহবধূর মৃত্যু ভৈরবের ৪ র‌্যাব সদস্যসহ নান্দাইলের এক এসআই প্রত্যাহার কুলিয়ারচর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আবুল হোসেন লিটন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় বিএনপির যুবদল নেতাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ বাজিতপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে মার্কা বিতরণ করিমগঞ্জে বারঘড়িয়া ফাজিলখালী ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসায় ৪ তলা নতুন ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন ক্যাম্পে এক নারীর মৃত্যুতে র‌্যাব কর্মকর্তা প্রত্যাহার কিশোরগঞ্জে ভোক্তা অধিকার আইন বাস্তবায়নে সেমিনার ঐতিহ্যবাহী লাঠিখেলার এখন চলছে দুর্দিন

১৪০ বছর পুরনো পঁচু বেপারী মসজিদ ট্রেন চললে মসজিদটি কেঁপে উঠে

# মিলাদ হোসেন অপু :-
ভৈরবে ১৪০ বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী পঁচু বেপারী মসজিদ। সংস্কারের অভাবে ঐতিহ্য হারাতে বসেছে এই মসজিদটি। প্রথমে টিন সেড মসজিদ থাকলেও ৯ বৈশাখ ১৩৪১ বঙ্গাব্দ ইট, বালি, সিমেন্ট দিয়ে মিনারসহ মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে। পরে আর ১শ বছরেও এই মসজিদটি সংস্কার কাজ হয়নি। স্থানীয়রা কোন সংস্কারের উদ্যোগ নেইনি, নেইনি সরকারও। ৬৬ শতাংশের জায়গার মধ্যে ১০ শতাংশ জায়গার উপর মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে। মসজিদের পাশে রয়েছে দুটি রেল ব্রীজ ও একটি সড়ক সেতু। দ্বিতীয়বার রেল ব্রীজ নির্মাণের সময় মসজিদের অনেক জায়গা কমে গেছে।
এই পুরনো মসজিদে প্রায় ৫ জন ইমাম পর্যায়ক্রমে নামাজ পড়িয়েছেন। কেউ ৬০ বছর, কেউ ৪০ বছর, আবার কেউ ২৭ বছর ইমামতি করেছেন। ২০০৯ সাল থেকে হাফেজ ওমর ফারুক বর্তমানে ইমামতী করছেন।
সরেজমিনে দেখা যায়, মসজিদটি নামাজের উপযোগী থাকলেও ভিতরে রয়েছে প্যালেস্তারা ভাঙ্গা। রডের খুঁটি দিয়ে দাঁড় করিয়ে রেখেছেন ছাদ। কোথাও রয়েছে ফাঁটা আবার কোন কোন জায়গায় দেখা যায় এই বুঝি ভেঙ্গে পড়ে যাবে। নামাজ পড়তে মুসুল্লীরা নামাজের সময়ে আসলেও তাঁরা ভয় নিয়ে নামাজ পড়েন।
স্থানীয়রা জানান, শতবছর পুরনো মসজিদটিতে দীর্ঘদিন যাবত মুসুল্লীরা নামাজ পড়ছে। কোন এক সময় মসজিদে নামাজের জন্য জায়গা হতো না। এখন সংস্কারের অভাবে মসজিদটি অনেকাংশ ফাঁটল দেখা দিয়েছে চুন, সুড়কি খসে পড়ছে, ভয়ে অনেকে মসজিদে আসেন না। কখন যেন ভেঙ্গে পড়ে মসজিদটি। শত বছরের পুরনো মসজিদটি ঐতিহ্য ধরে রাখতে সংস্কারের কোন বিকল্প নেই। ট্র্রেন আসলে যেন মসজিদটি কেঁপে উঠে। মুসুল্লীদের নামাজের অনেক সময় ধ্যানও নষ্ট হয়ে যায়। এখন পর্যন্ত মসজিদটি সংস্কারের কোন বিত্তবান বা সরকারিভাবে সহয়তা আসেনি। বৃষ্টি আসলে ছাদের ফুটো দিয়ে পানি পড়ে, নামাজে ব্যাঘাত ঘটে। স্থানীয়রা আরো জানান, গত বছর রমজানে এতেকাফে বসা মুসুল্লীরা বৃষ্টির পানির কারণে মসজিদ থেকে বের হয়ে বাইরে অবস্থান নিয়েছিল। বৃষ্টি এলে মসজিদের ভিতরে হাঁটু পানি হয়ে যায়। মসজিদের অনেক জায়গা রয়েছে। প্রয়োজনে নতুন একটি মসজিদ করে দিলেও মুসুল্লীরা নামাজ পড়তে পারবে বলে স্থানীয়দের দাবী। দ্রæত সংস্কার না হলে শতবর্ষী মসজিদটির ঐতিহ্য হারানোর পাশাপাশি মসজিদটি হারিয়ে যাবে।
এ বিষয়ে মসজিদের ইমাম হাফেজ উমর ফারুক জানান, ১৪০ বছর পুরনো এ মসজিদটি, আশুগঞ্জ আড়াইসিধার একজন ইমাম প্রথম ইমামতী শুরু করেন। পরে কালিকাপ্রসাদের একজন ইমাম প্রায় ৬০ বছর। তারপর নোয়াখালী ফেনীর একজন ইমাম ৪০ বছর ইমামতি করেন। পরে তার ছেলে মাওলানা জোবাইয়েদ ২৭ বছর ইমামী করেন। উনার পর আমি এ মসজিদে ২০০৯ সালে যোগদান করি। মসজিদের বয়স অনুযায়ী এখন পর্যন্ত সংস্কার হয়নি। আমি যোগদানের পর থেকেও দেখেনি। মসজিদের ভিতরে ছাদ দিয়ে পানি পড়ে, অনেক জায়গা ফাঁটল দেখা দিয়েছে। মানুষ নামাজ পড়তে খুব কষ্ট হয়। এখন আমাদের দাবী মসজিদটি পুননির্মাণ করা হোক, নতুবা সংস্কার করা হোক।
এ বিষয়ে মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন জানান, প্রায় ১৪০ বছর পুরনো এই মসজিদ। এক সময় এই মসজিদ এলাকায় রেল কলোনী ছিল। মানুষ ফেরী দিয়ে আশুগঞ্জ-ভৈরব যাতায়াত করতো। মানুষের সমাগম ছিল অনেক বেশী। এখন রেল ব্রীজ হওয়াতে মানুষের সংখ্যাও কমে গেছে। আমি সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর থেকে মসজিদের বিভিন্ন ভাঙ্গা জায়গা ইতিমধ্যে সংস্কার করেছি। মসজিদের পাশে আমার বাড়ি না হওয়ায় আমি নিয়মিত মসজিদে যেতে পারি না। তবে মসজিদটি সংস্কারের জন্য আমি স্থানীয়দের নিয়ে একটি উদ্যোগ নিয়েছি। তবে মসজিদের পাশে মেঘনা ডিপো ঘাটের কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় মসজিদটি পরিচালনা করে যাচ্ছি। ইতিমধ্যে প্রতœতত্ত¡ বিভাগ আমাদের মৌখিকভাবে জানিয়েছেন এই মসজিদের ঐতিহ্য ধরে রাখতে যেন মসজিদটি ভাঙ্গা না হয়। তবে আমরাও চাই ঐতিহ্য থাকুক।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান সবুজ বলেন, আমি আপনার নিকট থেকেই জানতে পেরেছি ভৈরবে একটি ১৪০ বছর পুরনো মসজিদ রয়েছে। আমি এখনও কোন চিঠি বা আবেদন পায়নি। যেহেতু আপনার মাধ্যমে জেনেছি আমি লোক পাঠিয়ে খবর নিয়ে খুব দ্রæত সময়ের মধ্যে মসজিদটি সংস্কারের ব্যবস্থা করবো।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *