• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৪:৩৪ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

কিশোরগঞ্জের চার উপজেলা আজ ভূমিহীনমুক্ত হলো

একজন নারীর হাতে ঘরের দলিল তুলে দিচ্ছেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ -পূর্বকণ্ঠ

কিশোরগঞ্জের চার উপজেলা
আজ ভূমিহীনমুক্ত হলো

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
দেশের ১৫৯টি উপজেলার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী আজ ২২ মার্চ বুধবার কিশোরগঞ্জের চারটি উপজেলাকেও ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করেছেন। আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর আওতায় চতুর্থ পর্যায়ে কিশোরগঞ্জের সদর, ভৈরব, পাকুন্দিয়া ও অষ্টগ্রাম উপজেলাকেও ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হলো।
আজ বুধবার সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী ৩৯ হাজার ৩৬৫টি ঘর উপহার দেয়ার মাধ্যমে দেশের ১৫৯টি উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করেছেন। এর মধ্যে কিশোরগঞ্জের সদর উপজেলায় ১১২টি, ভৈরবে ১৬০টি, অষ্টগ্রামে ১২২টি এবং পাকুন্দিয়ায় ১১৬টি ঘর বিতরণের মাধ্যমে এ চারটি উপজেলাকেও ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ সদর উপজেলা পরিষদের সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সদর উপজেলার উপকারভোগীদের হাতে ঘরের দলিল তুলে দিয়েছেন। এর আগে কটিয়াদী উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হয়েছিল। জেলা প্রশাসক জানান, জেলায় আরও ১৭২টি ঘরের কাজ চলমান রয়েছে। এগুলি হস্তান্তর হলে পুরো জেলা আপাতত গৃহহীন ও ভূমিহীমুক্ত হবে। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মামুন আল মাসুদ খান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী, সদর থানার ওসি মোহাম্মদ দাউদ, উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান আব্দুস ছাত্তার ও মাছুমা আক্তার, বীর মুক্তিযোদ্ধা, বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, বিভিন্ন পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তাসহ উপকারভোগীগণ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *