• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৪:৪৪ অপরাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
সবুজ ভৈরবের আয়োজনে এমবিশন পাবলিক স্কুলে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন ভৈরবে মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে অবরোধের চেষ্টা, ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের রাবার বুলেট নিক্ষেপ করিমগঞ্জে বেড়েছে শিশু শ্রমিক করিমগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্নহত্যা নরসিংদী আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে সদ্য যোগদানকারী জেলা ও দায়রা জজকে সংবর্ধনা প্রদান বাজিতপুরে বর্জ্যরে বায়োগ্যাসে সাশ্রয় হচ্ছে জ্বালানি খরচ কোটা বিরোধীদের রাজাকার পরিচয়ের শ্লোগানের প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন বাজিতপুরে চালককে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই নিজ মেয়েকে ধর্ষণ, বাবার মৃত্যুদণ্ড কিশোরগঞ্জে কোটা বিরোধী সংগঠনের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

করিমগঞ্জ হাসপতালে ডাক্তার লাঞ্ছিত লিখিত অভিযোগ মামলা মানববন্ধন

করিমগঞ্জ হাসপতালে ডাক্তার লাঞ্ছিত
লিখিত অভিযোগ মামলা মানববন্ধন

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
করিমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সহকারি শৈল্যবিদ ডা. মো. কামরুল হাসান এক মৃত রোগির স্বজনদের দ্বারা লাঞ্ছিত হয়ে থানায় মামলা করেছেন। এখন তিনি আতঙ্কে আছেন। মোবাইল ফোনও বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। জানা গেছে, কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জে ফিরোজা বেগম (৭০) নামে এক রোগির মৃত্যুকে কেন্দ্র করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সহকারি শৈল্যবিদ ডা. মো. কামরুল হাসান ওয়াসিমকে শুক্রবার বিকালে রিয়াজ (৩০) নামে এক ব্যক্তি হাসপাতালে লাঞ্ছিত করেছেন। এ ঘটনায় তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্কর্ার কাছে ওই দিনই লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। এ ঘটনায় থানায় মামলাও করেছেন। এদিকে হাসপাতালের কর্কর্া ও কর্চারীগণ আজ রোববার দুপুরে কর্বিতরতি করে মানববন্ধনে অংশ নিয়েছেন। তারা হামলাকারীর গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন।
লিখিত অভিযোগে ডা. ওয়াসিম বলেছেন, তিনি শুক্রবার বিকাল ৫টা ২০ মিনিটের দিকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কাজ করার সময় রিয়াজ তার বাড়িতে গিয়ে রোগি দেখার জন্য উপসহকারি কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার নূরজাহান খাতুনের ওপর জোরজবরদস্তি করতে থাকেন। নূরজাহান জরুরি বিভাগের কাজ রেখে যেতে পারবেন না জানিয়ে রোগিকে হাসপাতালে নিয়ে আসার জন্য বলেন। কিছুক্ষণ পর রিয়াজ ও তার কয়েক আত্মীয় একজন রোগিকে হাসপাতালে নিয়ে এসে নূরজাহান খাতুনকে খুঁজতে থাকেন। নূরজাহান খাতুন নামাজ পড়তে গেছেন শুনে তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করতে থাকেন এবং বিভিন্ন কক্ষে খুঁজতে থাকেন। এসময় ডা. ওয়াসিম রোগিকে পরীক্ষানিরীক্ষা করে রোগির ছেলে মামুনকে জানান, রোগি অনেকক্ষণ আগেই মারা গেছেন। এসময় রিয়াজ ডাক্তার ওয়াসিমকে গলায় চেপে ধরে হত্যার চেষ্টা করেন এবং কিলঘুষি মারতে থাকেন। রিয়াজ ও অন্য স্বজনরা ডাক্তার ওয়াসিমকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করতে থাকেন এবং তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেন। এসময় হাসপাতালের স্টাফ সামছু মিয়া ও সাজিদ মিয়াসহ অন্য রোগিদের স্বজনরা তাকে রক্ষা করেন। তিনি এখন আতঙ্কে আছেন। তিনি লিখিত অভিযোগে এ ধরনের হামলার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা দাবি করেছে।
এ বিষয়ে কথা বলার জন্য ডা. ওয়াসিমের মোবাইলে (০১৯১৩-১৬৪১৮২) একাধিকবার ফোন করলেও সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্কর্া ডা. রিয়াদ শাহেদ রনিকে মোবাইল ফোনে (০১৭১৫-৯৯৮৮৫১) প্রশ্ন করলে জানান, ওইদিন পৌর এলাকার বৃদ্ধা ফিরোজা বেগমকে (৭০) মৃত অবস্থায়ই হাসপাতালে আনা হয়েছিল। কিন্তু রোগির স্বজনরা ক্ষিপ্ত হয়ে ডাক্তারের ওপর চড়াও হয়েছিলেন। ডা. ওয়াসিম বাদী হয়ে রিয়াজসহ অজ্ঞাত ৩-৪ জনকে আসামী করে করিমগঞ্জ থানায় মামলাও করেছেন। পুলিশও আসামী গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে। আর হাসপাতালের স্টাফরা কর্বিরতি পালন করলেও জরুরি বিভাগে কাজ হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।
করিমগঞ্জ থানার ওসি সামছুল আলম সিদ্দিকী জানিয়েছেন, ডা. ওয়াসিম বাদী হয়ে শনিবার মামলা (মামলা নং ২) দায়ের করেছেন। আসামী ধরার চেষ্টা চলছে বলেও তিনি জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *