• বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:০১ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

কটিয়াদীর সোনালী ব্যাংকে ঋণ বরাদ্দে ঘুষের অভিযোগ

কটিয়াদীর সোনালী
ব্যাংকে ঋণ বরাদ্দে
ঘুষের অভিযোগ

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-
ঘুষ না দিলে কটিয়াদী বাজারের সোনালী ব্যাংকের শাখা থেকে ঋণ অনুমোদন করা হয় না বলে অভিযোগ উঠেছে। বিভিন্ন জনের কাছ থেকে এরকম ঘুষ আদায়ের তথ্য পাওয়া গেছে। একজন প্রাইমারি শিক্ষক তার স্ত্রীর নামে ঋণ অনুমোদন করাতে গিয়েও এরকম পরিস্থিতির মুখে পড়েছিলেন বলে জানা গেছে। ঋণের আবেদনের সঙ্গে তিনি প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্র জমা দেয়ার পরও আরও নানা রকম কাগজপত্রের জন্য তাকে হয়রানির মধ্যে ফেলে ঘুষ দাবি করা হয়েছিল বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে তিনি ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতিকার দাবি করে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
কটিয়াদী উপজেলার পাইকসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মাহমুদ কামালের লিখিত অভিযোগে জানা যায়, তিনি তার স্ত্রী সালমা আক্তারের নামে ৩ লাখ ২০ হাজার টাকার ব্যক্তিগত ঋণের জন্য উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার অনুমতি এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ সোনালী ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার সজিব মিয়ার কাছে আবেদনপত্র জমা দিয়েছিলেন। কিন্তু সজিব মিয়া প্রধান শিক্ষকের প্রত্যয়নপত্র, নিয়োগপত্রের কপি এবং জিপিএফ ফান্ডের স্টেটমেন্ট জমা দিতে বলেন। ইতোপূর্বে কারও কাছে এই তিনটি কাগজ চাওয়া হতো না বলে শিক্ষক মাহমুদ কামাল এসব কাগজ জমা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এর ফলে ঋণ দেয়া সমম্ভব নয় জানিয়ে সজিব মিয়া ঘুষ দাবি করলে শিক্ষক মাহমুদ কামাল তাতেও অপারগতা প্রকাশ করেন। বিষয়টি তিনি ব্যাংকের ম্যানেজারকে জানিয়েও কোন প্রতিকার পাননি বলে লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেছেন।
রাকিবুল হক নামে একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান জানান, ঘুষ না দেয়ার কারণে তাকে ঋণের বিষয়ে নানা অজুহাতে সজিব মিয়া প্রায় দেড় মাস হয়রানি করেছেন। শেষ পর্যন্ত ঘুষ ছাড়াই কাজ করিয়েছেন। তবে ফাতেমা নামে অন্য এক মুক্তিযোদ্ধার সন্তানের কাছে সজিব মিয়া ২ হাজার টাকা ঘুষ নিয়েছেন বলে ফাতেমা নিজেই তার কাছে জানিয়েছেন। কামরুল ইসলাম শিপন নামে একজন ঠিকাদার জানিয়েছেন, সজিব মিয়া তার কাছে ঋণ অনুমোদনের জন্য সাড়ে ৪ হাজার টাকা ঘুষ নিয়েছেন। এছাড়াও সজিব মিয়া সবার সঙ্গেই দুর্ব্যবহার করেন এবং কাজে দীর্ঘসূত্রিতা করেন বলেও তিনি জানিয়েছেন। এর আগে কখনই এরকম ঘুষ বা দুর্ব্যবহার কেউ করেননি বলেও সবাই জানিয়েছেন।
এ ব্যাপারে ব্যাংকের ম্যানেজার রাশেদ আহমেদকে প্রশ্ন করলে বলেন, সজিব মিয়া খুব ভাল কর্মকর্তা। তার কাছে সজিবের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ কেউ আগে করেননি। তবে ঋণের জন্য একেক কর্মকর্তা একেক ধরনের কাগজপত্র চান। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দিতে হয়। তার পরও কারও কোন অভিযোগ থাকলে যেন তার কাছে সরাসরি জানান, এ ব্যাপারে ম্যানেজার সবাইকে অনুরোধ জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *