• মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
একই বিদ্যালয়ের দুই প্রধান শিক্ষক শহীদ বুদ্ধিজীবী বিদায়ী অধ্যক্ষ-সভাপতি দ্বন্দ্বে শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ বাজিতপুরে বইয়ের কভারের আদলে বাড়ির সীমানা প্রাচীর দেখতে মানুষের ভিড় (আপডেট) স্মার্ট দেশ গড়তে হলে নতুন প্রজন্মকে স্মার্ট করে গড়ে তুলতে হবে…… নাজমুল হাসান পাপন এমপি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শরীফুল আলম কারামুক্ত কুলিয়ারচরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসানকে নাগরিক সংবর্ধনা ১২ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার লায়ন মশিউর আহমেদ ওয়েশকা ইন্টারন্যাশনাল জাপান বাংলাদেশ ন্যাশনাল চ্যাপ্টার এর দ্বিতীয় ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভৈরবে ১ সপ্তাহের ব্যবধানে দুই গৃহবধূ জন্ম দিলেন ৬ সন্তান ভৈরবে শিমুলকান্দি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নবম বর্ষে পদার্পণে কেক কাটা ও সার্টিফিকেট বিতরণ

কিংবদন্তী লেখক অদ্বৈত মল্লবর্মণ ও তার সৃষ্টি – মুহ. শহীদুল্লাহ

– মুহ. শহীদুল্লাহ

আন্তরিকভাবে শিল্প সাহিত্য যারা চর্চা করেন, মনে পালন করেন, চিত্তে ধারণ করেন তারা অন্য একজন শিল্পী সাহিত্যিক সম্পর্কে জানতে বুঝতে এমনকি তাদের জন্মস্থান ও চর্চা কেন্দ্র ঘুরে দেখতে তাদের মাটি ও কীর্তি স্পর্শ করতে মনে ইচ্ছে জাগে, আগ্রহ বাড়ে। তাদের স্মৃতি দর্শন করে অনুপ্রেরণা পাওয়া যায় এবং তাদের মতো কিংবদন্তী হতে সাধ জন্মায়। তাই আমিও বাংলা সাহিত্যের কিংবদন্তী লেখক অদ্বৈত মল্লবর্মণের জন্মস্থান ব্রাহ্মণবাড়িয়ার গোকর্ণঘাটে গিয়েছিলাম গত ৩১ আগস্ট ২০২০ সালে সোমবারে। যদিও অদ্বৈত মল্লবর্মণের জন্মস্থান ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ও আমার জন্মস্থান কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব কাছাকাছি। মেঘনা নদীর পূর্ব পশ্চিম তীরের মাধ্যমে সীমারেখা টানা আছে। মেঘনা নদী থেকেই একটি শাখা নদী তিতাস নামে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় প্রবেশ করেছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে প্রবেশ করা তিতাস নদীর গোকর্ণঘাট নামক জেলে পাড়াতেই ১৯১৪ সালের ১ জানুয়ারিতে বাংলা সাহিত্যের অমর সৃষ্টি ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ কালজয়ী উপন্যাসের রচয়িতা কিংবদন্তী ঔপন্যাসিক অদ্বৈত মল্লবর্মণের জন্ম। পিতা অধর চন্দ্র মল্লবর্মণ। তিন ভাই এক বোনের মধ্যে অদ্বৈত ছিলেন দ্বিতীয়। শৈশবেই তার পিতা মাতার মৃত্যু হয়েছিল। তখন জীবন জীবিকার তাগিদেই তাকে নদীতে মাছ ধরে বিক্রি করা পৈত্রিক পেশাই তাকে গ্রহণ করতে হয়েছিল। অর্থনৈতিক ভাবে অস্বচ্ছল জীবন। লেখাপড়ায় তার প্রবল আগ্রহ। তার এ অদম্য আগ্রহ দেখে জেলেপাড়া অর্থাৎ যাকে বলে মালো পাড়া। এ পাড়ার উৎসাহী যুবকগণ চাঁদা তুলে তার পড়ার খরচ চালিয়েছেন। অদ্বৈত শুধু শ্রেণির পাঠ্য পুস্তকেই সীমাবদ্ধ ছিলেন না। তিনি সাহিত্য চর্চাও করতেন।
অন্নদা হাইস্কুল থেকে ১৯৩৩ সালে অদ্বৈত মল্লবর্মণ প্রথম শ্রেণিতে ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে ভর্তি হয়েছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে পড়ালেখা চালাতে পারেননি। তিনি নিজ গ্রামেই চলে আসেন এবং এ গ্রামেই তাদের মালো পাড়ার ও নমঃসূদ্রপাড়ার ছেলেদের নিয়ে স্কুল খোলেন। কুমারপুরে তপশীলী ফেডারেশনের যে শাখা অফিস বসেছিল তার অবৈতনিক সহকারী সম্পাদকের কাজ করেছেন। একপর্যায়ে জীবিকার অন্বেশনে ১৯৩৪ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শ্রীকাইল গ্রামের জমিদার পরিবারের কামিনী কুমার দত্ত ও ক্যাপ্টেন নরেন্দ্রনাথ দত্তের সাথে তার পরিচিতি ঘটে। কামিনী কুমার দত্ত ছিলেন একজন জননেতা ও ক্যাপ্টেন নরেন্দ্রনাথ দত্ত ছিলেন ‘নবশক্তি’ পত্রিকার মালিক। তাদের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত শ্রীকাইল কলেজটি ছিল সে সময়কার ব্যাতিক্রমী শিক্ষা কেন্দ্র। ঐ শিক্ষিত পরোপকারী ভ্রাতৃদ্বয়ের সহযোগিতায় অদ্বৈত মল্লবর্মণ কলকাতায় স্থান পেয়েছিলেন।
তিনি কলকাতায় গিয়ে সাংবাদিকতা পেশায় জড়িয়ে পড়েন। সেখানে তিনি ত্রিপুরা, নবশক্তি, আজাদ, মোহাম্মদী, যুগান্তর, লাঙ্গল এবং দেশ পত্রিকার সম্পাদনায় সাহায্য করেছেন। তবে বেশ কিছুদিন জাতীয়তাবাদী সাপ্তাহিক ‘নবশক্তি’ পত্রিকার সম্পাদনা করেছেন।
তার কালজয়ী সৃষ্টি উপন্যাস ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ ছাড়াও ঐ সময় আরও দুটি উপন্যাস রচনা করেছেন। একটি হচ্ছে ‘শাদা হাওয়া’ অপরটি হচ্ছে ‘রাঙ্গামাটি’।
কলকাতায় সাংবাদিকতায় বিভিন্ন পত্রিকায় অনিশ্চিতভাবে কাজ করেছেন। তবে সাপ্তাহিক নবশক্তিতে কাজ করার সময় তার সহকারী হিসেবে কাজ করেছেন চাঁদপুরের সাংবাদিক সাগরময় ঘোষ। পরবর্তীতে নবশক্তি প্রকাশনা ১৯৪১ সালে বন্ধ হয়ে গেলে সাগরময় ঘোষ ‘দেশ’ পত্রিকায় সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। তখন তিনি অদ্বৈত মল্লবর্মণকে সহকারী হিসেবে ‘দেশ’ পত্রিকায় নিয়ে আসেন।
অদ্বৈত মল্লবর্মণ ছিলেন একজন বিশেষ স্বভাবের শিল্পী। তার শ্রেষ্ঠ রচনা ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ উপন্যাসটি তিনি প্রকাশ করেন পাকিস্তান আন্দোলনের কট্টর সমর্থক মুখপত্র ‘মোহাম্মদী’ পত্রিকায় ১৩৫২ বঙ্গাব্দের শ্রাবণ থেকে ১৩৫২ এর মাঘ সংখ্যায়। লেখাটি মোহাম্মদীতে দেখে সাহিত্যিক বিমল মিত্র অদ্বৈত মল্লবর্মণকে জিজ্ঞেস করেছিলেন যে আপনি চাকরি করছেন ‘দেশ’ পত্রিকাতে। আর আপনার উপন্যাসটি অন্য একটি অখ্যাত পত্রিকাতে কেন প্রকাশ করলেন? এর উত্তরে অদ্বৈত বলেছিলেন ‘ওরা চাইলেন তাই আমি দিলাম।’
তিতাস একটি নদীর নাম উপন্যাসে একটি বিষয় স্পষ্ট হয়ে উঠেছে যে, অদ্বৈত মল্লবর্মণ মুসলমান সমাজের প্রতি আগ্রহী ছিলেন। দেশ যারা শাসন করেছেন সেই ইংরেজদের প্রতি ছিল তার ঘৃণা, ক্ষোভ। কিন্তু হিন্দু মুসলমান নিম্নবর্ণের মানুষ আর উচ্চ বর্ণের ব্রাহ্মণ কায়স্তের দল ভিন্ন মেরুর। উচ্চ বর্ণের মানুষের সাথে মালোদের সম্পর্ক নেই। উপন্যাসের প্রবাস খণ্ডে প্রবাস যাত্রার সময় সুবল আর কিশোর গিয়েছে ভৈরবের ঘাটে। ভৈরব বন্দর মেঘনা থেকে যেখানে তিতাস নদীর উদ্ভব মালোরা এখানেও থাকে। তবে তারা গোকর্ণঘাটের মালোদের থেকে পৃথক জীবন ছন্দে আবর্তিত। তিতাস একটি নদীর নাম থেকে উদৃত যে- ‘মালোদের অনেক জায়গা রেল কোম্পানী লইয়া গিয়াছে। বৃহত্তর প্রয়োজনের পায়ে ক্ষুদ্র আয়োজনের প্রয়োজন অগ্রাহ্য হইয়া গিয়াছে। তবুও এ গায়ের মালোরা গরীব নয়। এইখানে গিয়ে কিশোর সুবলের মুখে শুনলো আশ্চর্য সংবাদ।
কিশোর দাদা, ভৈরবের মালোরা কি কাণ্ড করে জান নি? তারা জামা জুতা ভাড়া কইরা রেল কোম্পানীর বাবুরার বাসার কাছ দিয়া বেড়ায় আর বাবুরাও মালো পাড়ায় বইয়া তামুক টানে আর কয়, ‘পোলাপান ইস্কুলে দেও, শিক্ষিত হও, শিক্ষিত হও।’
বোঝা যায় শিক্ষার আন্দোলন ভৈরব বন্দরের মালো সমাজকে ছুঁয়ে গিয়েছিল। তারা হয়তো স্বাধীনতা আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত উচ্চবর্ণের মানুষদের সহযোগিতা উৎসাহও কিছু পাচ্ছিলো। কিন্তু দুই সমাজের মধ্যে কোন সম্পর্কই ছিলো না। তাই সুবলের সংবাদটির উত্তেজনার আগুনে জল ঢেলে দিলো তাদের বয়স্ক সহযাত্রী তিলকঃ ‘হ শিক্ষিত হইলে শাদি সম্বন্ধ করব কিনা। আরে সুবলা, তুই বুঝবি কি? তারা মুখে মিঠা দেখায়, চোখ রাখে মাইয়া লোকের উপর।’ পান্ডুলিপিতে বর্জিত পাঠের একাংশে পাওয়া যায় একই রকম বিচ্ছিন্নতার সংবাদ।
এ উপন্যাসটিতে হিন্দু মুসলিমদের নিম্ন শ্রেণির পেশার মানুষদের মধ্যে গ্রামীণ শিল্প সংস্কৃতিতে একত্রিত করেছেন যেমন কৃষি চাষবাস, লোকজ আচার অনুষ্ঠান, সংগীত, যাত্রা পালা, জারি সারি, নৌকা বাইচ প্রভৃতি লক্ষ করা যায়। উপন্যাসটিতে নৌকা বাইচ দেখা যায়। ‘নাও দৌঁড়ানিতে হিন্দু মুসলিম নিম্নবর্গের মানুষ একাকার। এক দৌঁড়ের পথ লম্বা, একখানা সটান সাপের মত নাওখানা জলের উপর ভাসিয়া চলিয়াছে। বৈঠাধারীদের সকলের পরিধানে ফরসা ধুতি, গায়ে ফরসা গেঞ্জি, মাথায় জড়ানো ফরসা রুমাল। সকলেই বয়সে তরুণ। দেখিতে সুশ্রী। দেশ প্রাণতায় উদ্বুদ্ধ হওয়ার মতই একখানা গান তাহারা গাহিতেছে। আর এলোমেলাভাবে বৈঠা ফেলিতেছে। তাহাতে বৈঠার ছন্দপতন হইতেছে বটে। কিন্তু গানের সুর তাল মোটেই বেঠিক হইতেছেনা। তাহারা ছন্দহীন বৈঠা ফেলিতেছে। আর স্বচ্ছন্দ কণ্ঠে গাহিতেছে- ভেড়ারে করিলে রোধ, সেও ফিরে মারে ঢুগরে, আমরা বাঙ্গালি জাতি খাইয়া ফিরিঙ্গির লাথি ধুলা ঝেড়ে যাই নিজ ভবন।
অদ্বৈত মল্লবর্মণ তার ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ রচনা করে তিনি অমর হয়ে আছেন সাহিত্য জগতে, মানব জগতে। তার রচনায় তিতাস পাড়ের জেলেদের জীবনযাত্রার পরতে পরতে যত প্রকার আনন্দ, দুঃখ বেদনা, কর্মকাণ্ড, প্রেম বিরহ, তৎকালীন রাজনীতি, অর্থনীতি, সমাজনীতি, ধর্মনীতি সবকিছুরই চিত্রাংকন করেছেন। ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ উপন্যাসটি পুরো বাস্তবতারই সবাক চিত্র। এ যেন তিতাস পাড়ের মানুষের জীবন যাত্রার এক বিশাল কাব্য।
অদ্বৈত মল্লবর্মণ আরও দুটি উপন্যাস রচনা করেছেন। ১৩৫৫ বঙ্গাব্দে শারদীয়া সংখ্যায় ‘সোনারতরী’ নামক পত্রিকায় ‘শাদা হাওয়া’ প্রকাশিত হয়। তারপর ১৯৯৬ সালে কলকাতার বৃন্দবাক থেকে অচিন্ত্য বিশ্বাসের সম্পাদনায় বই আকারে প্রকাশিত হয়েছে। অপর উপন্যাসটি ‘রাঙ্গামাটি’ ১৩৭১ বঙ্গাব্দে চতুষ্কোনে বৈশাখ থেকে ধারাবাহিকভাবে চৈত্র পর্যন্ত প্রকাশ হয়। ১৯৯৭ সালে ঐ বৃন্দবাক থেকেই বই আকারে প্রকাশিত হয়েছে।
অদ্বৈত মল্লবর্মণ আসলে অন্তরে ছিলেন একজন শ্রেণি সংগ্রামী প্রগতিশীল মানুষ। তিনি সোভিয়েত ইউনিয়নের কমিউনিজমকে সমর্থন করতেন। এ বিষয়ক অনেক বইপত্র পড়তেন। কমিউনিস্ট লেখক রেবতী মোহন বর্মণের রচিত বই ‘সোভিয়েত ইউনিয়ন’ খুব মনোযোগের সাথে পড়তেন।
রাঙ্গামাটি উপন্যাসে কলকাতা শহরের জীবনযাপনের জটিলতার কথা আছে। আছে মানুষের শ্রেণি ও প্রকারভেদের কথা। তিনি তার উপন্যাসে তিনটি শ্রেণির মানুষের কথা উল্লেখ করেছেন। ভিখারী, শ্রমিক, অভিজাত শ্রেণির কথা। অভিজাত ও মধ্যবিত্ত ব্যবসায়ী শ্রেণি কর্তৃক নির্যাতিত হয়ে মনুষ্যত্ব বিবর্জিত হওয়ার চিত্র। তার ‘শাদা হাওয়া’তেও তিনটি শ্রেণির মানুষের জীবন যাত্রা ও কর্মকাণ্ডের কথা বর্ণনা দেয়া আছে। তারা হচ্ছেন স্ফীতবান তালুকদার, জমিদার, মধ্যবিত্ত নামীয় বিত্তহীন, কেরানীবর্গ, আর দধিচী, চাষী, মজুর শ্রেণি।
তাছাড়াও তিনি ‘দলবেধে’ নামক গল্পগ্রন্থ তার সম্পাদনায় ১৩৪৭ বঙ্গাব্দে রথযাত্রার দিন প্রকাশ করেন। কলকাতার চয়নিকা পাবলিশিং হাউস থেকে। ১৯৪৭ সালে ‘দেশ’ পত্রিকায় ধারাবাহিক রম্যরচনা ‘নাটকীয় কাহিনী’। তার লেখা কিছু প্রবন্ধ সংগৃহীত লোকসংগীত নিয়ে ১৯৯০ সালে প্রণীতা প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হয়েছে ‘বারমাসী গান ও অন্যান্য’ নামে একটি গ্রন্থ। ১৯৫০ সালে প্রকাশিত আরডিং স্টোনের একটি গ্রন্থ অনুবাদ করেন ‘জীবন তৃষ্ণা’ নামে। তিনি লোক সাহিত্য সংগ্রহ করে অনেক রচনা করেছেন। উল্লেখ যোগ্য হচ্ছে অপ্রকাশিত পল্লীগীতি, পুতুল বিয়ের ছড়া, বাউল সংগীত, উপাখ্যান সংগীত, জল সওয়া গীত, ত্রিপুরার গান, নাইওরের গান, পল্লীসংগীতে পালাগান, পরিহাস সংগীত, পাখির গান, বর্ষার কাব্য, ভাইফোটার গান, মাঘ মঙ্গল, বরজের গান, শেওলার পালা প্রভৃতি।
অদ্বৈত মল্লবর্মণের তিতাস একটি নদীর নাম এর অনুবাদ করেছেন ইংরেজীতে আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়ার প্রবাসী তিতাস পাড়ের কন্যা ড. কল্পনা বর্ধণ, প্রকাশ করেছেন ১৯৯২ সালে পেঙ্গুইন প্রকাশনী থেকে। ১৯৭৩ সালে ঋত্বিক ঘটক চলচ্চিত্রে রূপ দিয়েছেন। এর আগে উৎপল দত্ত এর নাট্য রূপ দিয়েছেন। কিংবদন্তী অদ্বৈত মল্লবর্মণের রচিত বইয়েও তার জীবন সম্পর্কে অনেক লেখকই অনেক আলোচনা লিখেছেন এবং বইগুলো অনেকবার অনেক প্রকাশন থেকে প্রকাশিত হয়েছে। আরও হতে থাকবে তাকেও তার রচনা নিয়ে গবেষণা আলোচনা। এতে তিনি তার সৃষ্টির মাধ্যমে হয়ে থাকবেন অমর।
এ অমর শিল্পী দেশ পত্রিকায় কাজ করার সময় অদ্বৈত মল্লবর্মণ অপুষ্টিতে ক্ষয়রোগ যক্ষ্মায় আক্রান্ত হয়ে পড়েছিলেন। তখন দেশ পত্রিকার অফিসে শনিবারে চা মুড়ির আড্ডা জমতো। ঐ আড্ডায় যোগ দিতেন সুশীল রায়, হরিনারায়ণ চট্টোপাধ্যায়, প্রভাত দেব সরকার ও বিমল মিত্র প্রমুখ সাহিত্যিকগণ। তখন তারাও দেশ পত্রিকায় তার সহকর্মিরা উদ্যোগ নিয়ে তাকে কাঁচড়াপাড়া যক্ষ্মা হাসপাতালে বি-৩নং ওয়ার্ডে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে দেন। এখানে অসুস্থ অদ্বৈত মল্লবর্মণ আত্মীয়স্বজনদেরকে অনেক চিঠি লিখেছেন। কিন্তু তখন ছিলো দেশভাগ পরবর্তীকাল। তখন তিতাস পাড়ের মালোরাও অন্যান্য হিন্দুসম্প্রদায়ের লোকজনের মতো দেশ ত্যাগ করে ভারতে চলে যায়। তখন অদ্বৈত মল্লবর্মণ মানসিকভাবে খুব যন্ত্রণা ভোগ করতেন এবং মন্তব্য করতেন। ‘রাজনৈতিক নেতাদের ভ্রান্তনীতির ফলে মানুষের এই দুরবস্থা।’ হাসপাতালের অলস জীবন তার অসহ্য লাগতো। হাসপাতাল থেকে পালিয়ে চলে যেতে চাইতেন তার স্বজন বান্ধবদের কাছে। কিন্তু তা তিনি পারেননি। শেষ পর্যন্ত চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৯৫১ সালের ১৬ এপ্রিল মাত্র ৩৭ বছর বয়সে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।
এ কৃতীমান কিংবদন্তী সাহিত্যিকের জন্মস্থান বাড়িতে গিয়ে তার বাড়ি পাড়া, পথ, ঘাট, সে তিতাস নদী দেখে অনুভব করেছি অনেক কিছুই। তাই তার সৃষ্টি ও তার সম্পর্কে কিছু লিখতে ইচ্ছে হলো। লিখলাম। লিখতে গিয়ে আমাকে তার জন্মস্থান গোকর্ণঘাটে, তিতাস পাড়ে এবং কলকাতার ‘দেশ’ পত্রিকায়ও যেতে হয়েছিল তার সম্পর্কে কিছু জানতে বুঝতে এবং তথ্য সংগ্রহ করতে। তেমনভাবে তার সম্পর্কে বই লিখেছেন সুলেখক সুনীল দাস, অচিন্ত্য বিশ্বাস, শান্তনু কায়সার এবং পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে জয়দুল হোসেন ও অন্যান্য লেখকের এ সম্পর্কিত অনেক লেখা।
অদ্বৈত মল্লবর্মণের গোকর্ণঘাটে তার জন্মস্থান মালো পাড়ার রাস্তায় তার স্মৃতি রক্ষার্থে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদের উদ্যোগে ১৯৮২ সালের ১ জানুয়ারি তারিখে অদ্বৈত মল্লবর্মণের একটি আবক্ষ কালো রংয়ের মুর্তি স্থাপন করা হয়েছে।
সাহিত্য প্রেমীরা ওখানে গিয়ে মাঝে মধ্যে শ্রদ্ধা নিবেদন করে থাকে মুর্তিতে ফুল দিয়ে। তার সৃষ্টি নিয়ে আলোচনা করে থাকে। সেখানে তার আত্মার শান্তি কামনা করে নিজের মনে নতুন অমর সৃষ্টির প্রেরণা নিয়ে ফেরে।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার গোকর্ণঘাটে যাত্রায় আমার ভ্রমণসঙ্গী ছিলেন সম্প্রীতি সাহিত্য পরিষদের কবি মোছলেহ উদ্দিন ভূইয়া ও কবি সুধীর সূত্রধর।
লেখক- কবি, কথাসাহিত্যিক ও
গবেষক, ভৈরব, বাংলাদেশ।
ফোন- +৮৮ ০১৭১০৮৩২০৪১।
তারিখ: ২০/০৮/২০২২খ্রি.


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *