• বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১০:৫৯ পূর্বাহ্ন |
  • English Version

নিকলীর তিন ইউনিয়নে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে

নিকলীর কারপাশা ইউনিয়নে বন্যার্তদের মাঝে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলমের ত্রাণ বিতরণ। -পূর্বকণ্ঠ

নিকলীর তিন ইউনিয়নে
ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে

# নিজস্ব প্রতিবেদক :-

কিশোরগঞ্জের বন্যা কবলিত উপজেলাগুলোতে এখন পর্যন্ত ২৫৪টি আশ্রয় শিবির খোলা হয়েছে। সকল শিবিরেই সরকার এবং বিভিন্ন জনপ্রতনিধি ও সংস্থার পক্ষ থেকে ত্রাণ বিতরণ চলছে। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম আজ ২১ জুন মঙ্গলবার বিকালে নিকলীর কারপাশা, দামপাড়া এবং নিকলী সদর ইউনিয়নের বন্যা দুর্গতদের মাঝে খাদ্য সামগ্রি বিতরণ করেছেন। তিন ইউনিয়নে মঙ্গলবার ৩০০ পরিবারের মধ্যে খাদ্য সামগ্রির প্যাকেট বিতরণ করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক সড়ক ও নৌপথে গিয়ে এসব ইউনিয়নের বন্যাকবলিত এলাকায় ত্রাণ সামগ্রি বিতরণ করেছেন। এর মধ্যে কারপাশা চেয়ারম্যান বাজারে, দামপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় চত্বরে এবং নিকলী সদর ইউনিয়নের রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সড়কে ও ভবানীপুর শ্মশানঘাট এলাকায় বন্যার্তদের মাঝে খাদ্যসামগ্রি বিতরণ করা হয়েছে। এসময় নিকলী উপজেলা চেয়ারম্যান রুহুল কুদ্দুছ ভূঁইয়া জনি, উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু হাসান, উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান রিয়াজুল হক আয়াজ, কারপাশা ইউপি চেয়ারম্যান তাকি আমান খান, নিকলী ইউপি চেয়ারম্যান কারার শাহরিয়ার আহমেদ তুলিপ, দামপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনসহ স্থানীয় বিভিন্ন সরকারি কর্মকর্তা ও ইউপি সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন। ত্রাণের প্যাকেট পেয়ে সবাই সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।
ত্রাণ বিতরণকালে জেলা প্রশাসক জানান, গত শুক্রবার থেকে কিশোরগঞ্জের হাওর এলাকায় বন্যার প্রকোপ শুরু হয়। বন্যা কবলিত এলাকাগুলোতে এখন পর্যন্ত ২৫৪টি আশ্রয় শিবিরে ১২ হাজারের বেশি পরিবার আশ্রয় নিয়েছে। পর্যাপ্ত ত্রাণ মজুদ আছে। নগদ ৪ লাখ ৮০ হাজার টাকাও বরাদ্দ করা হয়েছে। চাহিদা মাফিক সরকারের পক্ষ থেকে ত্রাণ সহায়তা দিচ্ছে। বন্যার্তদের উদ্ধার ও আশ্রয় শিবিরে পাঠাবার জন্য পর্যাপ্ত নৌযানও প্রস্তুত রাখা আছে। ফলে বন্যা দুর্গত এলাকায় কোন সমস্যা হবে না বলে তিনি আশ্বাস প্রদান করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *