• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
কটিয়াদীতে দুদল গ্রামবাসীর সংঘর্ষে আহত শতাধিক, পুলিশের গুলি, গ্রেপ্তার ২৩ জমি অধিগ্রহণের দুই কোটি টাকা ফেরত না দিতে নানা ষড়যন্ত্র দাতার বিরুদ্ধে লাল বাহাদুরের রং পাল্টে হয়ে গেল কুচকুচে কালো নানা অঙ্গসজ্জায় সাজানো হয় কোরবানির পশু পাচারকালে ৬০ বস্তা সার জব্দ করে মামলা পৌনে তিনশ বছরের প্রাচীন শোলাকিয়া ঈদগার প্রস্তুতি ভৈরবে এমবিশন পাবলিক স্কুলের জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কুরবানী সম্পর্কীত কিছু মাসায়েল ; সংকলনে : ডা. এ.বি সিদ্দিক ছিনতাইকৃত টাকা ও মাদক উদ্ধারে অবদান রাখায় আইজিপি পুরস্কারে ভূষিত ভৈরবের ওসি সফিকুল ইসলাম ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন

কিশোরগঞ্জে সৈয়দ আশরাফের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী পালন

গত বছর ৬ জানুয়ারি ঐতিহ্যবাহী শোলাকিয়া ঈদগায় কিশোরগঞ্জের ইতিহাসে সৈয়দ আশরাফের সর্ববৃহৎ জানাজার নামাজ। পূর্বকণ্ঠ

কিশোরগঞ্জে সৈয়দ আশরাফের
প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী পালন

মোস্তফা কামাল

কিশোরগঞ্জে প্রয়াত জনপ্রশাসন মন্ত্রী আওয়ামী লীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে কিশোরগঞ্জে আওয়ামী লীগ স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিল করেছে। ৩ জানুয়ারি শুক্রবার বিকালে দলের জেলা কার্যালয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান শাহজাহান, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এমএ আফজাল ও যুগ্ম-সম্পাদক সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটু বক্তব্য রাখেন। সৈয়দ আশরাফের নিজ এলাকা সদর উপজেলার বীর দামপাড়ায়ও মিলাদ এবং দোয়া মাহফিল করা হয়েছে। ছাত্রলীগ বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ধারণের আয়োজন করেছে। সৈয়দ আশরাফ ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে গতবছর ৩ জানুয়ারি থাইল্যান্ডের বিশেষায়িত বামবুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। ৬ জানুয়ারি কিশোরগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী শোলাকিয়া ঈদগায় তার নামাজে জানাজা ছিল কিশোরগঞ্জের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ জানাজা। দূরদূরান্তের লাখ লাখ মানুষ এই জানাজায় অংশ নেন।
এর আগে ২০১৭ সালের অক্টোবরে লন্ডনের একটি হাসপাতালে সৈয়দ আশরাফের স্ত্রী শীলা ইসলামও ক্যান্সারে মারা যান। এর পর থেকেই তিনি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন এবং অনেকটা নিঃসঙ্গ হয়ে পড়েন। আর তিনি মৃত্যুকালে তার একমাত্র সন্তান সৈয়দা রিমা ইসলাম, তিন ভাই ও দুই বোনকে রেখে গেছেন। রিমা ইসলাম জন্ম থেকেই লন্ডনে প্রবাসী। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর ওই বছরই ৩ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে সৈয়দ আশারাফের বাবা মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামসহ জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা হয়। তবে এর আগে থেকেই সৈয়দ আশরাফ লন্ডনে অবস্থান করেন এবং পঁচাত্তরের এসব নারকীয় হত্যাযজ্ঞের পর তিনি দীর্ঘদিন দেশে ফেরেননি। ১৯৯৬ সালে জাতীয় সংসদ নির্বচনে কিশোরগঞ্জ সদর আসন থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়ে তিনি প্রথম দেশে আসেন। নির্বাচনে তিনি বিজয়ী হন এবং আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে তিনি বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন উপমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। এই আসন থেকে তিনি টানা ৫ বার সংসদ সদস্য হন। তিনি আওয়ামী লীগের দু’বার কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক হন। এলজিআরডি মন্ত্রী এবং জনপ্রশাসন মন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। সৈয়দ আশরাফের তিন ভাই মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলাম, ড. সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম ও ড. সৈয়দ শরীফুল, দুইবোন ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি ও সৈয়দা রাফিয়া নূর রূপা রয়েছেন। এদের মধ্যে সৈয়দ আশরাফের মৃত্যুর পর তার আসনে উপ-নির্বাচনের মাধ্যমে সৈয়দা জাকিয়া নূর এমপি হয়েছেন।
সৈয়দ একজন সৎ ও সজ্জন রাজনীতিবিদ হিসেবে সারাদেশের মানুষের কাছে শ্রদ্ধার আসনে স্থান পেয়েছিলেন। তিনি ছিলেন মিতভাষী। তবে প্রতিটি কথা ছিল সবার কাছে মহামূল্যবান। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও দলের প্রতি ছিল তার প্রশ্নাতীত আনুগত্য ও ভালবাসা। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্ব ও নিরাপত্তা নিয়ে ছিলেন সদা সতর্ক। কোন বাগাড়ম্বর করা, তোষামোদী করা এবং মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দেওয়া তার ধাতে ছিল না। ফলে সততার পাশাপাশি এই বিশেষ গুণগুলিও তাকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছিল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *