• বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৩৫ পূর্বাহ্ন |
  • English Version
শিরোনাম :
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ভৈরবে এতিম ও গরীব শিশুদের সুন্নাতে খাৎনা বিএডিসির দূরত্ব বিধান অমান্য করে প্রতিবেশির সেচের সীমায় সেচ প্রকল্প হোসেনপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে স্মার্ট কার্ড ও ডিজিটাল সনদ বিতরণ কিশোরগঞ্জের ঈশাঁখা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা কিশোরগঞ্জে জাতীয় শোক দিবসে গণতন্ত্রী পার্টির জেলা কার্যালয়ে শোকসভা তাড়াইলে যথাযোগ্য মর্যাদার মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস উদযাপিত হয়েছে সরকারি চাকরিজীবীদের নির্বাচন করার বিধানের রিট খারিজ কুলিয়ারচরে রাস্তার পাশে ঘর নির্মাণকে কেন্দ্র করে এক বাড়িতে হামলা, আহত ৩ কিশোরগঞ্জে অশোক-ঝুমু স্কুল এন্ড কলেজে জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা কিশোরগঞ্জে ১২ কেজি গাঁজা নিয়ে ৬ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

কিশোরগঞ্জে প্রাণী প্রদর্শনীতে বন্য পাখিও প্রদর্শন করা হয়

কিশোরগঞ্জে প্রাণী প্রদর্শনীতে
বন্য পাখিও প্রদর্শন করা হয়

# মোস্তফা কামাল :-

গত ৫ জুন শনিবার দেশব্যাপী প্রাণী সম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্প এবং প্রাণীসম্পদ অধিদপ্তরের উদ্যোগে প্রাণী প্রদর্শনী ও শ্রেষ্ঠ খামারিদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। কিশোরগঞ্জেও এ কর্মসূচীটি পালিত হয়। এদিন বিকালে সদর উপজেলা প্রাণীসম্পদ অধিদপ্তর ও পশু হাসপাতাল চত্বরে আয়োজন করা হয়েছিল প্রাণী প্রদর্শনী। সেখানে বিভিন্ন খামারি উন্নত জাতের গাভী, ষাঁড়, মহিষ, ভেড়া, ছাগল ও মুরগির পাশাপাশি প্রদর্শন করেন বন্য পাখিও। সেখানে দু’টি স্টলে কালিম এবং ডাহুক পাখি প্রদর্শন করতে দেখা গেছে। অথচ বণ্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইন অনুসারে এসব পাখি খাচায় বন্দী রাখা বা লালন করা আইনত দণ্ডনীয়।
প্রদর্শনীতে গিয়ে দেখা গেছে, শহরতলির কাটাখালী এলাকার কাজল মিয়া ডিম পাড়া কালিম পাখি প্রদর্শন করছেন একটি স্টলে। খাচার ভেতর পাখিটি ডিমে তা দিচ্ছে। একটি লিখিত বিবরণীতে দেখানো হয়েছে, কালিম পাখি বছরে তিন থেকে চারবার ডিম দেয়। একেকবার ৮ থেকে ১২টি ডিম দেয়। কাজল মিয়া এ প্রতিনিধিকে জানালেন, তিনি প্রায় ৪০ বছর আগে কালিম পাখি লালন করতেন। তখন কালিম পাখি মোটামুটি সহজলভ্য ছিল। এখন এগুলি কমে গেছে। ফলে মাঝে অনেক বছর তিনি কালিম পাখি লালন করতে পারেননি। তবে ৫ বছর আগে শহরের গাইটাল বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে তিনি একটি পুরুষ ও একটি স্ত্রী কালিম পাখির বাচ্চা কিনেছিলেন। এগুলি থেকে বাচ্চা ফুটিয়ে তিনি১৫ দিনের পুরুষ ও নারী বাচ্চার জোড়া বিক্রি করেন দেড় হাজার থেকে দুই হাজার টাকায়। এখন তার বাড়িতে চার জোড়া পুরুষ ও স্ত্রী কালিম রয়েছে। প্রদর্শনীতে কাজল মিয়ার পাশের স্টলেই সদর উপজেলার যশোদল ইউনিয়নের গোয়ালাপাড়া এবং দানাপাটুলি ইউনিয়নের মনোহরপুর গ্রামের বকুল মিয়া ও ফোরকান মিয়া প্রদর্শন করেন ডাহুক পাখি এবং কালিম পাখি। এক সময় কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন জলাভূমিতে প্রচুর ঘন জলজ আগাছা বা জলজ উদ্ভিদ ছিল। এগুলিই ছিল কালিম, ডাহুক, কোড়াপাখি, লাল বকসহ বিভিন্ন বিরল প্রজাতির বন্য পাখির নিরাপদ আবাসস্থল। তখন কোন আইন ছিল না। ফলে শিকারিরা এসব পাখি শিকার করে খাওয়ার জন্য হাটবাজারে প্রকাশ্যে বিক্রি করতেন। ধানচাষ বাড়াতে গিয়ে এবং কৃত্রিম ফিশারি করতে গিয়ে এসব আবাসস্থল বিলীন হয়ে গেছে। যে কারণে কিশোরগঞ্জের এক সময়কার পরিচিত বন্য পাখিগুলো এখন আর নেই, হারিয়ে গেছে। এখন সিলেটের হাকালুকি হাওর এবং সুনামগঞ্জের টাঙ্গুয়ার হাওরের মত কঠোরভাবে সংরক্ষিত জীববৈচিত্র সমৃদ্ধ প্রাকৃতিক জলাশয়গুলোতে অবশিষ্ট হিসেবে কিছু বন্য পাখি দেখতে পাওয়া যায়।
এসব বন্য পাখি প্রদর্শনের বিষয়ে সদর উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডা. খালেদা জেসমিনের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, কিছু পাখি বন্য হলেও এগুলি গৃহপালিতের মত মানুষ এখন লালন করছে। তবে এগুলি আইনত নিষিদ্ধ বলে তিনি স্বীকার করেন। উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেও কিশোরগঞ্জ শহরে বন বিভাগের কর্মকর্তারা এসে বিভিন্ন পাখির দোকানে অভিযান চালিয়ে বিপুল সংখ্যক দেশীয় বন্য পাখি জব্দ করে প্রকৃতিতে অবমুক্ত করে দিয়েছিলেন।
প্রকৃতি বিজ্ঞানী এবং প্রাণী বিশেষজ্ঞরা সবসময় বলে থাকেন, বণ্য প্রাণীরা প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে থাকে। বনজ ও ফলদসহ নানা প্রজাতির উদ্ভিদরাজির পরাগায়ন ও বীজ বিস্তারে বণ্য পাখিরা অপরিহার্য ভূমিকা রেখে থাকে। প্রাকৃতিক বনায়ন মানুষের দ্বারা হয়নি। এগুলি পাখিকূলের দ্বারাই সম্পন্ন হয়েছে। বন্য পাখিরা পরাগায়ন এবং ফল খেয়ে বীজ ফেলে ফেলে এসব বনায়নে মুখ্য ভূমিকা রেখেছে। এমনকি বন্য পাখিরা ফসলের জন্য ক্ষতিকর পোকামাকড় খেয়ে ফসল উৎপাদনেও ইতিবাচক ভূমিকা রাখে। কাজেই এসব বন্য পাখি বন্দী করে রাখলে এদের যেমন স্বাভাবিক বংশবৃদ্ধি ব্যাহত হয়, পরাগায়ন, বনায়ন এবং ফসল উৎপাদনও ব্যাহত হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: কপি করা নিষেধ!!!